চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

৫ নভেম্বর, ২০২০ | ১:৩৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক 

মোটা চালের দাম পাইকাররা বলছেন কমছে, বাজার ভিন্ন

কমেছে মধ্যবিত্তের চালের দাম। এরইমধ্যে কৃষকরাও ধান কাটা শুরু করেছে। আর কয়েক দিনের মধ্যে উঠবে নতুন আমন ধান। তাই সামনে সরবরাহ বাড়লে চালের দামও কমবে। চালের দাম বাড়ার কোনো সম্ভাবনা নেই বলছেন চাক্তাই-খাতুনগঞ্জ ও পাহাড়তলীর আড়তদাররা। বিশেষ করে দেশে করোনাভাইরাসের পরিস্থিতি শুরুর পর থেকে দীর্ঘ এ সময় চালের বাজার ছিল ঊর্ধ্বগামী। প্রায় প্রতি সপ্তাহেই বেড়েছে চালের দাম। তবে নতুন ধান উঠলে দীর্ঘদিনের এ অস্থিরতার রেশ এবার কিছুটা হলেও কাটবে বলে জানায় এ পাইকারি ব্যবসায়ীরা।

এক সপ্তাহ ধরে পাইকারি বাজারে চালের দাম বাড়েনি। তবে চলতি সপ্তাহে কাঠারি, বাসমতি ও গোবিন্দ ভোগ চালের দাম বেড়েছে বস্তা প্রতি ১শ টাকা। সিদ্ধ নুরজাহান, বেতি-২৯, বেতি-২৮, মিনিকেট, জিরাশাই, গুটি সিদ্ধ ও আতপ মিনিকেটসহ মধ্যবিত্তের খাবারে স্থান পাওয়া সবগুলো চালে বস্তা প্রতি দাম কমেছে ১শ থেকে ১৫০ টাকা। তবে এখনো খুচরা বাজারে চালের দামে পরিবর্তন হয়নি। খুচরা বাজারে আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে চাল।

চট্টগ্রাম চাল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি এনামুল হক বলেন, বন্যার কারণে ধানক্ষেত নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এতোদিন চালের দাম কমেনি। চলতি সপ্তাহে চালের দাম বাড়েনি আর এরমধ্যে বাড়ার সম্ভাবনাও নেই। কারণ সারাদেশে কৃষকরা নতুন ধান তুলছেন। নতুন আমন ধান আসলে উল্টো আরো দাম কমতে পারে। 

পাহাড়তলী বণিক সমিতির সহ-সভাপতি মো. জাফর আলম বলেন, সাতদিন আগেও ইরি আতপ চাল বিক্রি হয়েছিল বস্তাপ্রতি ২ হাজার টাকায়। কিন্তু গতকাল ১৯শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। নূরজাহান সিদ্ধ বিক্রি হয়েছে ২৪৫০ টাকায়। দাম কমে কাল বাজারে এটি বিক্রি হচ্ছে ২৩শ থেকে ২৩৫০ টাকায়। বেতি-২৯ ২৩শ থেকে কমে বিক্রি হচ্ছে ২২শ টাকায়। বেতি-২৮ ২৩৫০ টাকা থেকে কমে ২২৫০ টাকায়। মিনিকেট আতপ চাল ২৫শ থেকে ২৪২০, ২৪৩০ ও মিনিকেট সিদ্ধ ২৪৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। জিরাশাইল মানভেদে ২৬৫০ টাকা থেকে দাম কমে সিদ্ধ ২৫৫০ ও আতপ ২৫শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মোটা সিদ্ধ ২১শ টাকা থেকে দাম কমে বিক্রি হচ্ছে ২০০০ ও ১৯শ টাকায় এবং গুটি সিদ্ধ ২২৫০ টাকা থেকে দাম কমে বিক্রি হচ্ছে ২১শ টাকায়। এসব চালের প্রতি বস্তায় দাম কমেছে ১শ থেকে ১৫০ টাকা।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 99 People