চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

সামিরাকেই মাফ চাইতে হবে : শাবনূর

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ২:১২ পূর্বাহ্ণ

পূর্বকোণ ডেস্ক

সামিরাকেই মাফ চাইতে হবে : শাবনূর

সামিরা বলেছেন, ‘শাবনূরকে তাঁর কৃতকর্মের জন্য সরি বলতে হবে। সেটা এখন হোক কিংবা পরে, এই জীবনে কিংবা শেষ বিচারের দিনে।’ এমন কথা শোনার পর ক্ষিপ্ত শাবনূর বললেন, ‘আমি কেন সরি বলতে যাব। আমি কী করেছি যে সামিরা এ ধরনের কথা বলবে! এতটা ঔদ্ধত্যপূর্ণ কথা সামিরা কোনোভাবেই বলতে পারে না। এ ধরনের কথা বলার জন্য সামিরাকেই সরি বলতে হবে, মাফ চাইতে হবে।’ অস্ট্রেলিয়া থেকে গতকাল বুধবার দুপুরে প্রচ- ক্ষোভ নিয়ে কথাগুলো বললেন শাবনূর। মডেলিং ও নাটকে অভিনয় করা সালমান

শাহর ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ ছিল প্রথম সিনেমা। এ ছবিতে অভিনয় করে সালমান শাহ ও মৌসুমী তুমুল জনপ্রিয়তা পান। ‘তুমি আমার’ ছবিতে কাজের মধ্য দিয়ে জুটি হিসেবে অভিনয় শুরু সালমান-শাবনূরের। একসঙ্গে তাঁরা ১৪টি ছবিতে অভিনয় করেন। ‘তুমি আমার’ দিয়ে শুরু করলেও ‘বুকের ভেতর আগুন’ দিয়ে শেষ হয়। প্রতিটি ছবি সুপারহিট হওয়ায় সালমান ও শাবনূরকে নিয়ে ভক্ত-দর্শক ও সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যাপক কৌতূহল তৈরি হয়। সালমান-শাবনূরের তুমুল জনপ্রিয়তার কারণে কখনো শোনা যায়, তাঁরা চুটিয়ে প্রেম করেন, এমনকি বিয়ের সিদ্ধান্তও নেন। তবে শাবনূর ও সালমান বিষয়টি কখনো স্বীকার করেননি। সালমানের মৃত্যুর পর শাবনূরকে বিষয়টি নিয়ে যতবারই জিজ্ঞেস করা হয়, বলে গেছেন, সালমান শুধুই বন্ধু। তাঁদের মধ্যে ভাই-বোনের সম্পর্ক। সালমানের মা নীলা চৌধুরীও শাবনূরকে মেয়ের মতো দেখতেন বলে জানান। সামিরার সঙ্গেও শাবনূরের ছিল চমৎকার বন্ধুত্ব। এ কথা সামিরাও স্বীকার করেছেন।
শাবনূর বলেন, ‘সালমানের সঙ্গে আমি কী করেছি, তার প্রমাণ দিতে হবে। সামিরা খুব ভালো বন্ধু আমার। তাকে নিয়ে এমন কথা বলতে চাইনি। সে কোথায় পেল, সালমান আমাকে বিয়ে করতে চেয়েছে? মৃত মানুষকে নিয়ে এ ধরনের কথা বলায় আমি অবাক হচ্ছি।’

১৯৯৬ সালে কিছু পত্রপত্রিকায় শাবনূরকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন সালমান বলে খবর বেরোয়। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছায়, সংবাদ সম্মেলন করে সালমানকে ঘোষণা দিতে হয়, সামিরা তাঁর স্ত্রী। এমন কথাও বলেছেন সামিরা। কথাটি শোনার পর শাবনূর বলেন, ‘আমরা যখন কাজ শুরু করেছি, তখন তো অনেক কিছুই পত্রপত্রিকায় লেখা হয়েছে। পত্রিকায় কী লেখা হয়েছিল, তা আমার জানার বিষয় না, দেখারও বিষয় না। আমাকে ও সালমানকে জড়িয়ে স্ক্যান্ডাল অনেক ছড়ানো হয়েছে। কেউ কিন্তু কখনোই কোনো প্রমাণ দিতে পারেনি। সেসব স্ক্যান্ডাল সামনে এনে এখন সামিরা যদি আমাকে সরি বলতে বলে, আমিও দুঃখিত, সামিরাকে সরি বলতে পারছি না। অন্যায় না করে কেন সরি বলব। আমি বলতে চাই, সামিরার ধারণা পুরোটাই ভুল। এ ধরনের কথা বলার সাহস দেখানোর জন্য সামিরার উচিত আমাকে সরি বলা। আমার খুব জানার ইচ্ছা, সামিরার কাছে কি এ ধরনের কথার প্রমাণ আছে? যা বলেছে, সেটার প্রমাণ দিক। আমি নিশ্চিত, একটা প্রমাণও দিতে পারবে না। কোনো দিন আমার সামনে এসেও বলতে পারবে না। শুধু মানুষের কানকথা শুনে এমন কথা বলাটা পছন্দ হলো না।’
শাবনূর বলেন, ‘সালমান যেদিন মারা যায়, সেদিন তো আমি বাসায় যাইনি। কথাও হয়নি। রাতে সালমানের সঙ্গে মোবাইলে কে কথা বলেছিল, সেটার প্রমাণ আগে দিক। সামিরা আমার সঙ্গে সরাসরি কথা বলে না কেন? ২৪ বছর চলছে, আজ পর্যন্ত একটিবারের জন্য আমাকে তো কিছু বলেনি। এখন এসব কথা কোথা থেকে আসছে! আমি কি অপরাধী যে সরি বলব! কী অদ্ভুত! পাছে লোকে যদি বলে, চিলে কান নিয়ে গেছে, আমি কি চিলের পেছনে দৌড়াব, নাকি হাত দিয়ে দেখব জায়গামতো কান আছে কি না। এ ধরনের কথা বলার জন্য সামিরার অবশ্যই আমাকে সরি বলা উচিত, মাফ চাওয়া উচিত।’

সামিরা ছিলেন সালমান শাহর স্ত্রী। শাবনূরের সঙ্গেও তাঁর বেশ ভালো বন্ধুত্ব ছিল বলে সামিরা-শাবনূর দুজনই স্বীকার করেছেন। মঙ্গলবার দেওয়া সাক্ষাৎকারে সামিরা জানান, সালমান শাহ ও শাবনূর যে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন, সে কথা সালমান নিজেই তাঁর কাছে স্বীকার করেছিলেন। এমন কথার পরিপ্রেক্ষিতে শাবনূর বলেন, ‘এই কথা সামিরা এখন কেন বলছে! সে তো আমারও খুব ভালো বন্ধু। সালমানের মৃত্যুর পর কোনো দিন তা আমার সামনে এসে বলেনি।’
শাবনূর বলেন, ‘সামিরা কিন্তু বলেছে, সালমান তাকে সঙ্গে নিয়েই শুটিংয়ে যেতেন। সালমানের “ড্রেস ডিজাইনার”ও ছিল সে। তাই বলতে চাই, আমাদের মধ্যে যদি কোনো প্রেম-পিরিতির সম্পর্ক তৈরি হতো, সেটা তো বন্ধু হিসেবেও সে বুঝতে পারত এবং তখনই আমাকে বলতে পারত সামিরা। একটা মানুষের মৃত্যুর এত বছর পর এসব কেন বলছে, তা আমার মাথায় আসছে না। দেখি তো, সামিরা একবার আমার সামনে এসে বলতে পারে কি না।’

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 315 People

সম্পর্কিত পোস্ট