চট্টগ্রাম বুধবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২০

দেশসেরা শিক্ষক হলেন ‘সততা স্টোর’র সেই শহিদুল ইসলাম

৩ নভেম্বর, ২০২০ | ৯:৩২ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশসেরা শিক্ষক হলেন ‘সততা স্টোর’র সেই শহিদুল ইসলাম

দেশসেরা শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছেন রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার স্বাবলম্বী ইসলামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম। তিনিই দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো ‘সততা স্টোর’ চালু করা শিক্ষক। ‘জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৯’ উপলক্ষে গত রবিবার (১ নভেম্বর) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় তাকে দেশের সেরা প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত করে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব (বিদ্যালয়-২) শামীম আরা নাজনীন গতকাল সোমবার (২ নভেম্বর) বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এর আগে, একই অনুষ্ঠানে শহিদুল ইসলাম প্রথমে বালিয়াকান্দি উপজেলা পর্যায়ে ও পরে রাজবাড়ী জেলার শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হন। এরপর ঢাকা বিভাগের সেরা প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হওয়ার মধ্য দিয়ে তিনি দেশের সেরা প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হন। তিনিই সারাদেশের মধ্যে প্রথম তার বিদ্যালয়ে ‘সততা স্টোর’ নামের বিক্রেতাবিহীন দোকান প্রতিষ্ঠা করে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন।

১৯৭১ সালে জন্ম নেয়া শহিদুল ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পাস করেন। তিনি ১৯৯৮ সালের ২ ডিসেম্বর প্রধান শিক্ষক হিসেবে চাকরিতে যোগদান করেন। তার স্বাবলম্বী ইসলামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি জেলার সেরা প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৮-তে নির্বাচিত হয়। ২০১৬ সালে তিনি বালিয়াকান্দি উপজেলার প্রথম শিক্ষক হিসেবে সরকারি জিও-তে ইন্দোনেশিয়া ভ্রমণ করেন।

উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, শহিদুল ইসলাম ২০১৪ সাল হতে ছয় বছর ধরে কোনও নৈমিত্তিক ছুটি ভোগ করেননি। বিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য স্থানীয় ব্যক্তিদের সম্পৃক্ত করার পাশাপাশি তিনি নিজে প্রায় পাঁচ লাখেরও বেশি টাকা বিদ্যালয়ের ফান্ডে অনুদান হিসেবে দান করেন। তার বিদ্যালয়ে মুক্তিযুদ্ধ কর্নার, গ্রন্থাগার, নামাজ ঘর, শহীদ মিনার, উপকরণ কর্ণার, মিনা রাজু পার্ক, পতাকামঞ্চ, ভূগোলক, রিডিং কর্নার, হাসান আলী স্কয়ার, আমাদের ভূবন, পশুপাখির মুর‌্যালসহ নানাবিধ স্থাপনা স্থানীয়ভাবে স্থাপন করা হয়েছে। তিনি বিদ্যালয়টিতে যোগদানের পর সেটি ঈর্ষণীয় সাফল্য পায়। সমাপনীতে ভালো ফলাফল লাভের জন্য তিনি বিদ্যালয়ের সময়সূচির বাইরে বৈকালিক/নৈশকালীন বিদ্যালয় চালু করেছেন।

সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও তার উপস্থিতি শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার প্রতি আগ্রহ বাড়িয়েছে। তিনি নিজ হাতে মানচিত্র, ভূ-গোলক ও শিক্ষা উপকরণ তৈরি করেন। তিনি স্কাউটিং-এ জাতীয় সনদপ্রাপ্ত এবং রেড ক্রিসেন্টের আজীবন সদস্য। কাজের স্বীকৃতি হিসেবে বালিয়াকান্দি উপজেলা নাগরিক ফোরাম ২০১৮ সালে তাকে গুণীজন সংবর্ধনা দেয়।

 

 

পূর্বকোণ/আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 122 People

সম্পর্কিত পোস্ট