চট্টগ্রাম বুধবার, ০৩ জুন, ২০২০

আমরা সবসময় সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে পঁয়ত্রিশে দৈনিক পূর্বকোণ

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৬:৪১ পূর্বাহ্ণ

আমরা সবসময় সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে পঁয়ত্রিশে দৈনিক পূর্বকোণ

সত্য প্রকাশে আপসহীনতার প্রমাণ রেখে গণমানুষের মুখপত্র দৈনিক পূর্বকোণ চৌত্রিশ পেরিয়ে পঁয়ত্রিশে পা দিয়েছে আজ। চট্টগ্রামলগ্নতা, আপসহীনতায় বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন, জনমানুষের পক্ষে লেখনি ও স্বার্থান্বেষী মহলের সঙ্গে আপোষ না করা এবং পাঠকদের মনের চাহিদাকে গুরুত্ব দিয়ে পথচলার মানসে পূর্বকোণ যাত্রা শুরু করেছিল ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দের ১০ ফেব্রুয়ারি। সূচনালগ্ন থেকেই পূর্বকোণ সত্যিকারের গণমানুষের মুখপত্র হওয়ার চেষ্টা চালিয়েছে। সে চেষ্টা সফল হয়েছে। বস্তুনিষ্ঠ ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার জন্য আত্মপ্রকাশের অল্প দিনের মধ্যেই পাঠকের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয় পূর্বকোণ। মাত্র তিন দশকেই অগণিত পাঠকের ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছে দেশের অন্যতম জনপ্রিয় এই দৈনিক। ফলশ্রুতিতে ৩৫ বছরের টগবগে যৌবনে এসে পূর্বকোণ পরিণত হয়েছে চট্টগ্রামের শীর্ষ ও দেশের অন্যতম প্রধান জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকায়। সচেতন জনগণের অকুণ্ঠ সমর্থন, সীমাহীন ভালোবাসাই ছিল দৈনিক পূর্বকোণের সুদীর্ঘ পথচলার একমাত্র শক্তি ও সাহস। পাঠকের ভালোবাসায় এই পথচলা আগামী দিনেও অব্যাহত থাকবে। পঁয়ত্রিশে পদার্পণের এ আনন্দঘন মুহূর্তে আমরা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাই পূর্বকোণের অগণিত পাঠক, লেখক, বিজ্ঞাপনদাতা, এজেন্ট, হকার ও শুভানুধ্যায়ীকে।
দেশ-স্বার্থ ও জনমানুষের কল্যাণচিন্তাই দৈনিক পূর্বকোণের ধ্যান-জ্ঞান। বস্তুনিষ্ঠ ও দায়িত্বশীল সাংবাদিকতাই দৈনিক পূর্বকোণের পেশাগত ও নৈতিক অঙ্গীকার। জনসাধারণকে নিয়মিতভাবে ওয়াকিবহাল রাখতে বস্তুনিষ্ঠ তথ্য সরবরাহ করাকে প্রধান অগ্রাধিকার দিয়েছে পূর্বকোণ। দেশকে দ্রুত সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি চট্টগ্রামের ন্যায্য স্বার্থ রক্ষা ও এ অঞ্চলের গণমানুষের কথা বলার তাড়না থেকেই যাত্রা শুরু করেছিল দৈনিক পূর্বকোণ। সত্য প্রকাশে অকুতোভয় পূর্বকোণ জন্মলগ্ন থেকেই চট্টগ্রামের উন্নয়ন, জনমানুষের অধিকার এবং গণতন্ত্রের কথা বলে এসেছে। বলেছে মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপ্ন-লালিত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার কথা। চলার পথ সব সময় মসৃণ ছিল না। তবু কখনো লক্ষ্যচ্যুত হয়নি। বিবেকের অনুশাসন থেকে বিচ্যুত হয়নি কখনো, পূর্বকোণের সাংবাদিকদের কলম। আপস করেনি কোনো রক্তচক্ষুর সঙ্গে। প্রশ্রয় দেয়নি কখনো দেশ ও জনমানুষের স্বার্থবিরোধী কিছুকে। অসত্যের বিরুদ্ধে সত্যকে সত্য হিসেবেই তুলে ধরেছে, মিথ্যাকে মিথ্যাই বলেছে। সব সময় সংবাদ পরিবেশন করেছে জনগণের চাওয়া-পাওয়াকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে। সবসময় চেষ্টা করেছে জনমানুষের সুখ-দুঃখের ভাগিদার হতে; শান্তি, সমৃদ্ধি ও স্থিতিশীলতার কথা বলতে। আর তা করতে গিয়ে মোকাবিলা করতে হয়েছে অনেক প্রতিকূলতা। তবু পাঠকের আস্থা আর ভালোবাসাকে পাথেয় করে সদর্পেই এগিয়েছে পূর্বকোণ। সত্য, ন্যায়, গণতন্ত্র এবং গণমানুষের অধিকারের প্রশ্নে পূর্বকোণের অবস্থান প্রতিষ্ঠার পর থেকে কখনো বদলায়নি। আগামিতেও বদলাবে না।
দৈনিক পূর্বকোণের সম্পাদকীয় নীতি হচ্ছে, নিরপেক্ষ এবং নির্ভীক সাংবাদিকতার ধারা অনুসরণ, চট্টগ্রামের উন্নয়ন ও গণমানুষের ন্যায্য অধিকারের পক্ষে কথা বলা এবং গণমানুষের মনে মহান মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনাকে জাগরিত রাখা ও নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বেড়ে উঠতে সাহায্য করা, সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদের সঙ্গে আপস না করা এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়তে জনমত তৈরি করা। দৈনিক পূর্বকোণ প্রথম দিন থেকে এই নীতি মেনে চলছে। আগামিতেও এই নীতিতে অবিচল থাকবে। নীতির প্রশ্নে, জনমানুষের অধিকারের প্রশ্নে কখনো আপস করা হবে না। দৈনিক পূর্বকোণের ৩৫ বছরে পদার্পণের এই ক্ষণটিকে স্মরণীয় করার জন্য এবারের বর্ষপূর্তি সংখ্যাটি বরাবরের মতো আরেকটি অভিনবত্ব নিয়ে পাঠকসমাজের কাছে হাজির হয়েছে। এবার বর্ষপূর্তি সংখ্যার উপজীব্য করা হয়েছে ‘বিপন্ন চট্টগ্রাম : বিশুদ্ধতায় উত্তরণ’। গণমাধ্যম হিসেবে আমরা যেমন আপন অঞ্চলের প্রতিনিধিত্ব করার দায়িত্বটি সুনিপুণভাবে পালনে সচেষ্ট, তেমনি জাতীয় বিষয়-বৈচিত্র্য ও আন্তর্জাতিক পরিম-লকে আমরা আমাদের পাঠকসমাজের গোচরীভূত করার ব্যাপারে সর্বদাই অগ্রণী হবার উদ্যোগ নিয়েছি। যার কারণে দেশপ্রেমিক পাঠকসমাজের কাছে পূর্বকোণের গ্রহণযোগ্যতা দিন দিন বাড়ছে। অগণিত পাঠক, সাংবাদিক, লেখক, বিজ্ঞাপনদাতাসহ সমাজের সর্বস্তরের মানুষের সক্রিয় সহযোগিতা, আন্তরিক সমর্থন ও ভালোবাসায় তীব্র প্রতিযোগিতাপূর্ণ সংবাদপত্রজগতে দৈনিক পূর্বকোণের গৌরবময় প্রতিষ্ঠা লাভ সম্ভব হয়েছে। এখন পূর্বকোণ এ অঞ্চলের সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিক।
সবার ভালোবাসা, পরামর্শ ও সহযোগিতাই আমাদের চলার পথের পাথেয়। শুভশক্তির পক্ষেই আমাদের অবস্থান। জনগণের আস্থাই পূর্বকোণের সবচেয়ে বড় অবলম্বন। নতুন একটি বর্ষে পা রাখার সময় আমরা আবারও বলতে চাই, আমরা পাঠকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে আরও নিবিড়ভাবে সম্পৃক্ত করে আরও বলিষ্ঠতার সঙ্গে এগিয়ে যেতে চাই। এ ব্যাপারে সকলের যৌক্তিক সহযোগিতা কাম্য।

The Post Viewed By: 103 People

সম্পর্কিত পোস্ট