চট্টগ্রাম সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০

সর্বশেষ:

মোরশেদ খান আমার মুরব্বি তাঁকে নিয়ে কিছু বলবো না

১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৪:২০ পূর্বাহ্ণ

মোহাম্মদ আলী

আবু সুফিয়ান

মোরশেদ খান আমার মুরব্বি তাঁকে নিয়ে কিছু বলবো না

বোয়ালখালী উপজেলা, চান্দগাঁও, পাঁচলাইশ ও বায়েজিদ আংশিক এলাকা নিয়ে চট্টগ্রাম-৮ সংসদীয় আসন গঠিত। গত ৭ নভেম্বর সংসদ সদস্য মহাজোটের প্রার্থী জাসদের মাঈনুদ্দিন খান বাদলের মৃত্যুর পর আসনটি শূন্য হয়। আগামী ১৩ জানুয়ারি এ আসনে উপ-নির্বাচন। নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান। এর আগে ২০১৮ সালে এ আসনে বিএনপি থেকে তিনি মনোনয়ন পেয়েছিলেন। এবার উপ-নির্বাচনেও তিনি দল থেকে মনোনয়ন পান। গতকাল নির্বাচন অফিসে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেন। নির্বাচন নিয়ে তাঁর ভাবনা এবং আগামীতে তাঁর ভূমিকা কী হতে পারে তা নিয়ে দৈনিক পূর্বকোণের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে আদ্যপান্ত্য বলেছেন তিনি। তিনি বলেন, আমাদের অতীত অভিজ্ঞতা সুখকর নয়। ২০১৮ সালে কি ধরনের নির্বাচন হয়েছে তা

দেশের জনগণ দেখেছেন। ৩০ ডিসেম্বরের আগের রাতে সীল মেরে ব্যালট বাক্স ভর্তি করে ফেলেছে সরকারি দলের লোকজন। তারপরও আমি আশা করবো এবার তার পুনরাবৃত্তি হবে না। জনগণের মতামত প্রতিফলনের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবে সরকার। নির্বাচনের দিন সাধারণ ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে আসবেন এবং একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে তাদের জনপ্রতিনিধি বেছে নেওয়ার সুযোগ পাবেন। এজন্য সরকারকে আগে নির্বাচনী সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে।’

চট্টগ্রাম-৮ আসনে অতীতে চারটি নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছিলেন মোরশেদ খান। গত ৫ নভেম্বর তিনি বিএনপি থেকে পদত্যাগ করেন। এমনকি উপ-নির্বাচনে তাঁর পক্ষে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা হয়। এ নিয়ে নির্বাচনী মাঠে নানা আলাপ-আলোচনা চলছে। বিষয়টি নিয়ে আবু সুফিয়ানের মন্তব্য চাওয়া হলে তিনি বলেন, মোরশেদ খান আমার মুরব্বি। তিনি বহুবার মন্ত্রী, সরকারের উপদেষ্টা, এমপি হয়েছে। এমনকি বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। সর্বশেষ তিনি পারিবারিক ও শারীরিক কারণে দল থেকে পদত্যাগ করেছেন। সুতরাং তাঁকে নিয়ে আমি কোন কিছু মন্তব্য করতে চাই না।’
তিনি বলেন, ‘তবে এটুকু বলবো- একটি পত্রিকায় দেখেছি, উপ-নির্বাচনে ফরম নেওয়ার ব্যাপারে মোরশেদ খান কিছুই জানেন না। তাঁর অজান্তে অনুসারীদের কেউ এ ফরম সংগ্রহ করেছেন। তারপরও আমি বলবো নির্বাচন করা তাঁর গণতান্ত্রিক অধিকার রয়েছে। তাতে আমার কোন আপত্তি নেই।’
একই আসনে বিএনপি নেতা এরশাদ উল্লাহ’র ফরম নেওয়ার প্রসঙ্গে আবু সুফিয়ান বলেন, ‘দল থেকে যে কেউ মনোনয়ন চাইতে পারেন। তাতে দোষের কিছু দেখি না। চট্টগ্রাম-৮ আসনে আমিসহ তিনজন দল থেকে ফরম সংগ্রহ করেছেন। তাদের মধ্যে থেকে দল আমাকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দিয়েছেন। এজন্য আমি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়াসহ সিনিয়র নেতৃবৃন্দের প্রতি কৃতজ্ঞ। নির্বাচনী অফিস থেকে এরশাদ উল্লাহ’র ফরম সংগ্রহ করেছেন বিএনপি নেতা আর ইউ চৌধুরী শাহীন ও মোহরা ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ আজম। বুধবার ফরম জমা দেওয়ার সময় তারাও আমার সাথে ছিলেন। সুতরাং এখানে ভুল বুঝাবুঝি কিংবা দলীয় বিরোধ কোনটি আমাদের মধ্যে নেই। নেতাকর্মীদের কারো কারো মধ্যে ভিন্নমত থাকতে পারে। কিন্তু দলীয় প্রার্থী বা ধানের শীষের ব্যাপারে সবাই একাট্টা। তাতে বিন্দুমাত্র সন্দেহের কোন অবকাশ নেই।

কালুরঘাট সেতু প্রসঙ্গে আবু সুফিয়ান বলেন, বোয়ালখালীবাসীর লালিত দুঃখ কালুরঘাট সেতু এখনো নির্মাণ না হওয়ায় মানুষের ভোগান্তি চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। কালুরঘাট সেতুতে আটকে আছে বোয়ালখালীবাসীর স্বপ্ন। সেতুটি পার হতে গিয়ে প্রতিদিন নষ্ট হচ্ছে ঘণ্টার পর ঘণ্টা। আমাকে যদি এ মুহূর্তে বোয়ালখালীর প্রধান তিনটি সমস্যার কথা বলা হয় তাহলে আমি বলবো এক নম্বরেও এই সেতু এবং দ্বিতীয় ও তৃতীয় নম্বরেও কালুরঘাট সেতু। সুতরাং কালুরঘাট সেতু নির্মাণের দাবির প্রতি আমি সব সময় সোচ্চার থাকবো।’

তিনি বলেন, ‘ভোটাধিকার মানুষের মৌলিক অধিকার। সরকার মানুষের এ অধিকার কেড়ে নিয়েছে। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে দীর্ঘদিন ধরে কারাগারে বন্দী রেখেছে। এখন পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের দাম উর্ধ্বমুখী। তাতে মানুষের দুর্ভোগ ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। নির্বাচনী গণসংযোগে গেলে আমি সাধারণ মানুষের কাছে এসব বিষয় তুলে ধরবো।’

The Post Viewed By: 176 People

সম্পর্কিত পোস্ট