চট্টগ্রাম বুধবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

৭ মে, ২০১৯ | ২:২৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা , সাতকানিয়া

সাতকানিয়ায় অস্ত্রের মুখে পিতা-পুত্র অপহরণ

২৭ ঘণ্টা পর উদ্ধার ব্যবসায়ী মোস্তাক

­­। পুলিশি হেফাজতে মোস্তাককে জিজ্ঞাসাবাদ । জনমনে নানা প্রশ্ন! ­­। আতঙ্কে এলাকাবাসী

সাতকানিয়ায় অপহরণের ২৭ ঘণ্টা পর ব্যবসায়ী মোস্তাক আহমদ (৪৫) উদ্ধার হয়েছে। গত রবিবার দিবাগত রাত আনুমানিক তিনটার দিকে সাতকানিয়া সদর ইউনিয়নের রূপকানিয়া সেগুন বাগিচা ছড়ারকুল এলাকায় অপহৃত ব্যক্তিকে ছেড়ে দিয়ে চলে যায় অপহরণকারীরা। পরে পরিচিত স্থানীয় লোকেরা তাকে উদ্ধার করে বাড়িতে দিয়ে আসে। বর্তমানে তিনি পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন। ফলে অপহৃত ব্যবসায়ী মুক্তি পাওয়ায় উৎকন্ঠা কমার পাশাপাশি পরিবারের সদস্যদের মাঝে ফিরে আসে স্বস্তি। অপরদিকে গত রবিবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটককৃত সোনাকানিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের দয়ার পাড়ার মৃত ইমাম উদ্দিনের ছেলে মোহাম্মদ বেলাল উদ্দিন (৩৪) ও একই ইউনিয়নের ঢিলার পাড়ার মৃত বদন আলীর ছেলে মোহাম্মদ মোরশেদ (৩০) কে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গতকাল সোমবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্যদিকে, পুলিশ ও পরিবারের পক্ষ থেকে অপহরণকারীরা তাকে ছেড়ে দিয়েছে দাবি করা হলেও তাকে কারা-কি উদ্দেশ্যে অপহরণ করেছিল? অপহরণ করেই বা কোথায় লুকিয়ে রাখা হয়েছিল? কি যাদু বলে আবার তাকে অক্ষত অবস্থায় ছেড়েও দেয়া হলো এ রহস্যের জট এখনো না খোলায় জনমনে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন।
সোনাকানিয়া ও সাতকানিয়া এ দুই ইউনিয়নের বাসিন্দারা জানান, উল্লেখিত ইউনিয়ন দুটি থানা সদর থেকে অনেকটা যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ও দুর্গম হওয়ায় সেখানে অপরাধমূলক কর্মকা- ঘটলেও প্রশাসন তাৎক্ষণিক এ্যাকশনে যেতে না পারা এবং পরবর্তীতে গেলেও অপরাধীরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এ দুই ইউনিয়নের একাধিক ব্যক্তির সাথে আলাপকালে তারা বলেন, ব্যবসায়ী মোস্তাক আহমদ অপহরণের আগেও বিগত প্রায় ১০ বছর আগে রূপকানিয়া এলাকায় আব্দুল হাকিম প্রকাশ পান হাকিম ও কামাল উদ্দিন নামে দুই ব্যক্তিকে অপহরণ করা হয়েছিল। অপহরণের দুই দিন পর ছড়ারকূলের কাছাকাছি খালের বালুচর থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এছাড়া একাধিক ব্যক্তিকে বিভিন্ন সময় ঘর ও রাস্তা থেকে ধরে অপহরণ করে মুক্তিপণও আদায় করা হয়েছিল। যা ভুক্তভোগীরা ভয়ে মুখ খোলার সাহস পায়নি। তারা আরো বলেন, সামনে আসছে রোজা ও ঈদ। অনেকেই এ উপলক্ষে নিজেদের বাড়ি আসবেন। তাই আগামী ঈদের আগে এমন লোমহর্ষক ঘটনাও ঘটার আশঙ্কায় ও আতঙ্কে দিনাতিপাত করছে এলাকাবাসী। অতীতে এমন ঘটনা ঘটলেও প্রশাসন এখনো কোন রহস্যের কূল কিনারা করতে পারেনি। এর আগে গত ৪ মে রাত আনুমানিক সাড়ে ১০টার সময় স্কুল পড়–য়া ছেলে আকিবুল ইসলামকে সাথে নিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে নিজ বাড়িতে ফেরার সময় মুখোশ পরিহিত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা তাদের মোটর সাইকেলের গতিরোধ করে অপহরণ করে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সেখান থেকে ১০ রাউন্ড তাজা কার্তুজ, ১টি রেইনকোট অপহৃতদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ও মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে। অপহরণের ২ ঘণ্টা পর ছেলে আকিব উল্লাহকে (১৪) অপহরণকারীরা ছেড়ে দিয়ে বলেছিলেন, বাড়িতে গিয়ে বলিস এক কোটি টাকা দিলে তোর বাবাকে ছেড়ে দিব। না হয় জানে মেরে ফেলব।
এরপরই সাতকানিয়া সার্কেলের এডিশনাল এসপি হাসানুজ্জামান মোল্যা, থানার অফিসার ইনচার্জ শফিউল কবীরসহ অফিসারদের বেশ কয়েকটি টিম অপহৃত মোস্তাক আহমদকে উদ্ধার অভিযানে নামে। তবে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়েও মোস্তাককে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। এরপর সোনাকানিয়ায় মাদার্শা ও বাঁশখালী সীমান্ত এলাকায় সারাদিন চলে উদ্ধার অভিযান। উদ্ধার অভিযানের সম্পৃক্ত হয় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও। সর্বশেষ গতরাতে উদ্ধার অভিযানে কাজ করা পুলিশের একাধিক টিম থানায় ফেরার প্রস্তুতিকালে সাতকানিয়া সদর ইউনিয়নের রূপকানিয়া ছড়ার কূল এলাকায় অপহরণকারীরা মোস্তাক আহমদকে ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় মোস্তাক আহমদ নিজ বাড়িতে ফেরার সময় সেখানে পুলিশ পৌঁছে প্রথমে নিজ বাড়িতে নিয়ে যায় সেখান থেকে তাকে থানা হেফাজতে নিয়ে আসা হয়। অপহৃত মোস্তাক আহমদ সোনাকানিয়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড জমাদারপাড়ার ইসমাইল সওদাগর বাড়ির মৃত আঙ্গা মিয়ার ছেলে।
অপহরণের বিষয়ে মোস্তাক আহমদ বলেন, হাত বাঁধা ও মুখোশ পরিহিত অবস্থায় অপহরণকারীরা আমাকে রূপকানিয়া ছড়ারকূল এলাকায় ছেড়ে দিয়ে চলে যায়। পরবর্তীতে হাতের বাঁধন খোলে স্থানীয় একটি বাড়িতে আশ্রয় নিই। পরবর্তীতে তারা আমাকে সিএনজি টেক্সিযোগে আমার বাড়িতে দিয়ে আসে। পরে পুলিশ গিয়ে আমাকে থানায় নিয়ে আসে। মোস্তাক আহমদ কোন মুক্তিপণের বিনিময়ে অথবা অন্য কোন উপায়ে মুক্তি পেয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের তিনি কোন উত্তর দেয়নি। সাতকানিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান মোল্যা বলেন, পুলিশের ব্যাপক তৎপরতার মধ্যে অপহরণকারীরা মোস্তাক আহমদকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়।
মোস্তাক আহমদ থানা হেফাজতে রয়েছে। তার কাছ থেকে অপহরণের বিষয়ে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা। আটক ২ জনকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে এবং অপহৃত ব্যক্তিকে আজ মঙ্গলবার আদালতে হাজির করা হবে।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সোনাকানিয়া ও সাতকানিয়া ইউনিয়নে কোন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকা- কেউ ঘটালে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ ব্যাপারে আতঙ্কিত হওয়ার কিছুই নেই।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 334 People

সম্পর্কিত পোস্ট