চট্টগ্রাম রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

dav

৬ মে, ২০১৯ | ৪:১০ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৩৫ দিনের কাজ হবে ৩৮ দিনে

অনলাইনে নির্মাণ অনুমোদন দিবে চউক

সেবা গ্রহীতাদের সময়, পরিদর্শন ও অর্থ বাঁচাতে অনলাইনে নির্মাণ নকশা অনুমোদন দিচ্ছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কতৃপক্ষ (চউক)। আজ সোমবার বিকাল ৪টায় চউক সভা কক্ষে এ ই-সেবা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন চউক চেয়ারম্যান এম.জহিরুল আলম দোভাষ। এসময় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স গ্রহণ করেছেন। আর তাই দুর্নীতি মুক্ত করতেই এই ই-সেবা কার্যক্রম চালু করেছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কতৃপক্ষ।’

অনলাইন কার্যক্রমের এ সুবিধা গ্রহণ করে ১৩৫ কর্মদিবসের সেবা ৩৮ কর্মদিবসের মধ্যে পাবে গ্রাহকরা বলে জানান সভা সঞ্চালক নগর পরিকল্পনাবিদ শাহিনুল ইসলাম খান।  তিনি বলেন, গ্রাহকরা যাতে কোন ধরনের হয়রানির স্বীকার না হন সে সুবিধার কথা মাথায় রেখে ই-সেবা কার্যক্রম চালু করেছে চউক। ৪ ধাপে অনলাইনে সুবিধা দেওয়া হবে গ্রাহকদের। ধাপগুলো হল ভূমি ব্যবহার ছাড়পত্র, নির্মাণ অনুমোদন, বৃহদায়তন ও বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন এবং ভেরিফিকেশন। তিনি বলেন, ভূমি ব্যবহার ছাড়পত্র দিতে পূর্বে চউকের পূর্বে সর্বোচ্চ সময়সীমা ছিল ৪৫ কার্যদিবস। তবে অনলাইনে এ ছাড়পত্র দেওয়া হবে সর্বোচ্চ ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে। নির্মাণ অনুমোদনেও চউকের পূর্বে সর্বোচ্চ সময়সীমা ছিল ৪৫ কার্যদিবস। তবে অনলাইনে এ ছাড়পত্র দেওয়া হবে সর্বোচ্চ ২০ কার্যদিবসের মধ্যে। বৃহদায়তন ও বিশেষ প্রকল্প (প্রযোয্য ক্ষেত্রে) অনুমোদনেও চউকের পূর্বে সর্বোচ্চ সময়সীমা ছিল ৪৫ কার্যদিবস। তবে অনলাইনে এ ছাড়পত্র দেওয়া হবে সর্বোচ্চ ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে। এছাড়া ভেরিফিকেশনের ক্ষেত্রে পূর্বে কোন নির্দিষ্ট সময় না থাকলেও এখন তা সম্পন্ন হবে ৩ কার্যদিবসের মধ্যে। ফলে চউকের এ ই-সেবা সুবিধা গ্রহণ করে ১৩৫ কর্মদিবসের সেবা ৩৮ কর্মদিবসের মধ্যে পাবে গ্রাহকরা। তবে বৃহদায়তন ও বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন প্রযোয্য হলে অনলাইনেও সর্বোচ্চ ৫৩ কার্যদিবস পর্যন্ত সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

ই-সেবা কার্যক্রমটির স্থপতি আশিক ইমরান বলেন,‘চউকের বিরুদ্ধে গ্রাহকদের হয়রানিসহ নানান ধরনের অভিযোগ রয়েছে। আমি যখন চউকের বোর্ড সদস্য হয়েছি তখন থেকে এ সব সমস্যাগুলোকে চিহ্নিত করে তার সমাধান করতে চেয়েছি। এছাড়া চউকে প্রতিমাসে নির্মাণ অনুমোদন চেয়ে প্রায় ৪০০ আবেদন আসে। যা পরিদর্শন করেন চউকের মাত্র ৬জন কর্মকর্তা। যার ফলে ছাড়পত্র পেতে গ্রাহকদের অনেক সময় ধরে অপেক্ষা করতে হয়। পোহাতে হয় হয়রানি। এসব সমস্যাগুলো সমাধান করতেই ই-সেবা কার্যক্রম চালু করেছে চউক। আর এই ই-সেবা গ্রহণ করে ১৩৫ কার্যদিবসের ফলাফল মাত্র ৩৮ দিনে পাবে গ্রাহকরা। শুধু তাই নয়, অনলাইনা করা এ আবেদন কোন পর্যায়ে আছে তাও জানতে পারবে গ্রাহকরা। এছাড়া আবেদন প্রক্রিয়ায় কোন ভুল ত্রুটি থাকলে তা সংশোধনেরও সুযোগ থাকবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে নতুন এ পদ্ধতিতে প্রথম আবেদনটি করেন আবু সুফিয়ান নামে এক প্রবাসী ব্যক্তি। তিনি কল্পলোক আবাসিক এলাকায় ১০ তলা ভবনের জন্য ভূমি ব্যবহার ও নির্মাণ অনুমোদনের জন্য অনলাইনে আবেদন করেন।

চউকের এ উদ্বোধন সভায় এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন চউক সচিব তাহেরা ফেরদৌস, বোর্ড সদস্য মো. জসীম উদ্দীন শাহ, কেবিএম শাজাহান, মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন,  এম আর আজিম, রুমানা নাসরীন, প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস, অথরাইজড অফিসার-১ মো. মঞ্জুর হাসান, অথরাইজড অফিসার-২ মোহাম্মদ শামীম প্রমুখ।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 574 People

সম্পর্কিত পোস্ট