চট্টগ্রাম সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

৩ মে, ২০১৯ | ৩:১০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা , রাঙ্গুনিয়া

স্বামী আটক

রাঙ্গুনিয়ার গৃহবধূ শারমিনের লাশ মিললো কর্ণফুলীতে

নিখোঁজের হওয়ার এক দিনের মাথায় কর্ণফুলী নদী থেকে সাহিদা আক্তার শারমিন (২২) নামে রাঙ্গুনিয়ার এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গত বুধবার (১ মে) বিকালে কর্ণফুলী নদীর রাউজান উপজেলার খেলারঘাটে লাশটি ভাসতে দেখে এলাকার লোকজন পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠান। নিহত শারমিন রাঙ্গুনিয়া উপজেলার স্বনির্ভর রাঙ্গুনিয়া ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের মাওলানা মকবুল আহমেদ বাড়ির মো. শহীদুল্লাহর মেয়ে। এঘটনায় স্বামী আলমগীরকে আটক করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।
নিহত শারমিনের স্বজনরা জানায়, গত বছরের ২ নভেম্বর শারমিনের সাথে রাঙ্গুনিয়া পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ড দক্ষিণ নোয়াগাঁও ফকিরখীল এলাকার নবীর হোসেনের পুত্র মো. আলমগীরের বিয়ে হয়। আলমগীর ঢাকার ধানমন্ডি ৬/এ আবাসিকে একটি ভবনে কেয়ারটেকারের কাজ করেন। বিয়ের পর থেকে সুখেই সংসার কাটছিল তাদের। সম্প্রতি বড় ভাইয়ের বিয়ে উপলক্ষে স্বামীসহ শারমিন বাপের বাড়িতে যায়। প্রায় ১০ দিন থাকার পর ২৮ এপ্রিল শ্বশুর বাড়িতে ফিরে যান তারা।
এরপর সোমবার (২৯ এপ্রিল) রাতে তার স্বামী ঢাকার কর্মস্থলে চলে যায়। পরদিন ৩০ এপ্রিল ভোরে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয় শারমিন। এব্যাপারে তার বাবা ঐদিনই রাঙ্গুনিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। পরদিন বুধবার কর্ণফুলীতে তার লাশ পাওয়া যায়।
গৃহবধূর স্বামী মো. আলমগীর বলেন, বিয়ের পর থেকে সুখেই সংসার কাটছিল দু’জনের। আমাদের পরিবারের সবাই তাকে অনেক ভালবাসতো। সম্প্রতি আমার আত্মীয়ের মৃত্যুর সংবাদে লাশ দেখে ফেরার পর থেকে তার আচার-ব্যবহারে কিছুটা ব্যতিক্রম দেখা দেয়। সে তার মাথা ও চুল টানতে টানতে কেমন যেন লাগছে বলে জানায়।
বিষয়টি আমি আমার শ্বশুরকে বললে উনি বৈদ্য দিয়ে নানা কোরানি চিকিৎসা চালান। আমিও বেশ কয়েকজন বৈদ্যকে দেখায় এবং ডাক্তারি চিকিৎসাও করি। গত ২৯ এপ্রিল আমি কর্মস্থলে ঢাকা ফিরে যাওয়ার সময় আমাকে সে জড়িয়ে ধরে কান্নাকাটি করে এবং বিদায় জানায়। ঢাকা পৌঁছে মঙ্গলবার ৩০ এপ্রিল ফোনের মাধ্যমে জানতে পারি ভোর হতে তার স্ত্রী নিখোঁজ। ঘরে কাউকে কিছু না বলে সে কোথায় চলে গেছে, কেউ জানে না। খবর পেয়ে বাড়ি ফিরে আসি। শ্বশুরের সাথে একসাথে আমিও তাকে সম্ভাব্য স্থানে খুঁজতে শুরু করি। বৈদ্যের বাড়িতে গিয়ে তার ব্যাপারে জানার চেষ্টা চালায়।
নিহত শারমিনের বাবা শহীদুল্লাহ জানান, মেয়ে নিখোঁজের সংবাদ পেয়ে বৈদ্যের বাড়িতে গিয়ে হাজিরা দেখেন। পরে রাঙ্গুনিয়া থানায় গিয়ে একটি নিখোঁজের ডায়েরি করি। তার মেয়ে ও স্বামীর সাথে তেমন কোন মতানৈক্য ছিল না। তবে সাংসারিক ছোটখাট কিছু অশান্তি ছিল। হয়ত এই কারণেই আমার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।’
নিহতের চাচা আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, ‘একটি মেয়ে নিজে নিজে বের হয়ে যাওয়া এবং পরে কর্ণফুলী থেকে লাশ পাওয়া। এরমধ্যে রহস্য অবশ্যই আছে। এমনি এমনি একজন সুস্থ মানুষ কিভাবে মারা যেতে পারে। এটি আসলে পরিকল্পিত হত্যাকা-।
রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ ভূঁইয়া বলেন, ‘কর্ণফুলী নদী থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে সুরতাহাল প্রতিবেদন সংগ্রহ করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এব্যাপারে নিহত গৃহবধূর পিতা বাদি হয়ে থানায় হত্যা মামলা দায়েরের পর তার স্বামীকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 323 People

সম্পর্কিত পোস্ট