চট্টগ্রাম বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০

১ মে, ২০১৯ | ২:১৯ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা

রাউজান পুলিশের কাছে ধরা হেলপারের

লাশ গুম করার চেষ্টা ট্রাকচালকের

আঘাতজনিত কারণে মারা যাওয়া এক ট্রাক হেলপারের লাশ গুম করার চেষ্টা চালিয়েছেন একই ট্রাকের চালক জাহাঙ্গীর আলম (৩২)। রাউজান থানা পুলিশ গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের রাউজান সীমান্তে ধাওয়া করে লাশ উদ্ধার ও ওই ট্রাক চালককে আটক করেছে। থানা পুলিশ জানায় পার্বত্য জেলা রাঙামাটির কাউখালী উপজেলার বেতবুনিয়া ৬নং ওয়ার্ডের সাবমারা গ্রামের রুইচা অং মারমার ছেলে থোয়াইচিং মং মারমা (৩৪) রাউজান উপজেলার রাউজান ইউপির ৫নং ওয়ার্ডের আব্দুস সাত্তারের ছেলে ট্রাক চালক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীরের হেলপার হিসেবে কাজ করতো। সোমবার রাতে মিরসরাই উপজেলার বড়হাতিয়া

নামক স্থান থেকে কাঠভর্তি ট্রাক রাতে (ট্রাক নং চট্টমেট্রো-ট-০৫০৫৫৮) রাঙ্গুনিয়া উপজেলার সুগারমিল এলাকার তারাবুনিয়া একটি ব্রিক ফিল্ডে আসলে কাঠগুলো আনলোড করা হয়। পরে হেলপার থোয়াইচিং মারমা ট্রাকের পিছনের ঢাকনা লাগাতে গেলে অসাবধানতাবশত তা ছিটকে তার মাথায় পড়ে। এতে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু ঘটে। সেসময় ড্রাইভার জাহাঙ্গীর কারো সহযোগিতা কিংবা ডাক্তারের স্মরণাপন্ন না হয়ে লাশটিকে ট্রাকে তোলে। লাশটি পলিথিন মুড়িয়ে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গিয়ে লুকিয়ে রাখা কিংবা, গুম, অন্যকিছু করার চেষ্টা করার মানসে ট্রাকটি নিয়ে সোজা রাঙামাটি সড়ক হয়ে রাউজানে আসতে থাকে। সে সময় রাউজান সীমান্ত গোদারপাড়ে রাউজান থানার ডিউটিরত পুলিশ অফিসার শ্যামল, সুজনসহ অপর পুলিশ সদস্যরা ট্রাকটিকে থামাতে সিগন্যাল দেন। চালক তা অমান্য করে দ্রুতগতিতে সামনের দিকে এগুতে থাকে। এতে পুলিশের সন্দেহ জোনালো হয়। দ্রুত পুলিশও ট্রাকের পিছু নিয়ে অল্প দূরে গিয়ে ট্রাকটি আটক করে তল্লাশি শুরু করে। এরপর পুলিশ দেখতে পায় পলিথিন মোড়ানো কিছু একটি ট্রাকের ভিতর রয়েছে। পুলিশের ধারণা ছিল চোলাই মদ নিয়ে ট্রাকটি পালাচ্ছিল। পরে পলিথিন খুলে দেখা যায় সেখানে একটি লাশ। পুলিশ লাশসহ ট্রাকটি রাউজান থানায় নিয়ে আসে। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ২টায় রাউজান থানায় গেলে দেখা যায় ট্রাকের ওপর লাশটি সাদা কাপড়ে মোড়ানো রয়েছে। ট্রাকের পাশে নিহতের স্ত্রী রিচাচিং মারমা, বোনসহ নিকটজনরা বসে কান্না করছে। ডিউটি অফিসার হাসান বলেন, ওসি স্যার আইনগত যা করা দরকার তা করবেন। ওসি কেপায়েত উল্লাহ বলেন ‘ঘটনা যখন কাউখালীর, আমরা কাউখালী থানাকে বলেছি। কাউখালী থানা লাশটি নিয়ে যাবে। আর আইনগত ব্যবস্থা যা করার দরকার তারা তা করবে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 267 People

সম্পর্কিত পোস্ট