চট্টগ্রাম বুধবার, ২৭ জানুয়ারি, ২০২১

২৫ নভেম্বর, ২০২০ | ২:০০ অপরাহ্ণ

মরিয়ম জাহান মুন্নী 

অনাহারীদের মুখে একবেলা আহার

সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মুখে প্রতিদিন একবেলা খাবার তুলে দিচ্ছেন ‘স্মাইল বাংলাদেশ’ নামের সামাজিক সংগঠনের কর্মীরা। একেক দিন একেক এলাকায় চলে তাদের এ কার্যক্রম। কখনো চট্টগ্রাম রেল স্টেশন, কখনো সিআরবি, কখনো ডিসি হিল, কখনো নগরীর কোনো একটি বস্তি কিংবা এতিমখানায় গিয়ে তারা অনাহারী মানুষের মুখে খাবার তুলে দেন।  নিজেদের চাকরি কিংবা টিউশনের টাকায় চলে মানবিক এই কর্মসূচি। এমনও হয়, বন্ধু-বান্ধবীর কারো হয়তো জন্মদিন কিংবা কারো মৃত্যুবার্ষিকী। সে উপলক্ষে দুস্থদের খাবারের ব্যবস্থা করে থাকেন। আর বিতরণের জন্য সহায়তা চাওয়া হয় স্মাইল বাংলাদেশ’র।

কেউ আবার খাবার রান্না এবং বিতরণের জন্যও টাকা তুলে দেয় স্বেচ্ছাসেবী এই সংগঠনের হাতে। সংগঠনের কর্মীরা উপযুক্ত ব্যক্তিদের হাতে তুলে দেন আহার। এছাড়া ফেসবুকে একটি গ্রুপ করে মানুষের কাছ থেকে টাকা সংগ্রহ করে পরিচালনা করা হয় আহার প্রদানের কর্মসূচিটি।

সরেজমিনে দেখা যায়, চকবাজার এলাকার পথশিশু, রাস্তায় থাকা মানসিক প্রতিবন্ধী ও ভিক্ষুকদের হাতে খাবারের পেকেট তুলে দিচ্ছেন। খাবারের পেকেট দেখে চারদিক থেকে দৌড়ে আসে অনেকগুলো শিশু। এক প্রকার কাড়াকাড়ি করেই নিজের খাবার সংগ্রহ করে এ সুবিধা বঞ্চিত মানুষগুলো। সেই খাবারের পেকেট পেয়ে খুশিও তারা। এছাড়া নগরীর বহদ্দারহাট এলাকায় একটি এতিমখানায় ১২ জন শিশুকে দেওয়া হয় খাবার।  এ সংগঠনের দু’জন সদস্য শিহাব ও ইব্রাহিম বলেন, আমরা আগে নিজের কিংবা কোনো বন্ধু-বান্ধবীর জন্মদিন হলেই বড় বড় হোটেল-রেস্টুরেন্টে অনেক টাকা খরচ করে বার্থডে পালন করতাম। এসব কাজে অনেক টাকা অপচয় করতাম। অথচ খাবারের অভাবে রাস্তায় বহু মানুষ কষ্ট পাচ্ছে। তাই আমরা যখন ফেসবুকে ‘স্মাইল বাংলাদেশ’র এ কার্যক্রম দেখি সেদিন থেকে তাদের সাথে জড়িত হই। আমরা এবারের জন্মদিন অসহায় মানুষদের সাথে কাটাই। সেই টাকা দিয়ে তাদের মুখে খাবার তুলে দিয়েছি। এ কাজে যে কি আনন্দ, বলে বুঝাতে পারবো না।

স্মাইল বাংলাদেশ’র পরিচালক নজরুল ইসলাম জয় বলেন, এখন বিয়ে-জন্মদিন কিংবা কারো মৃত্যুবার্ষিকীসহ সামাজিক নানা অনুষ্ঠানে আপ্যায়নের জন্য খাবার আয়োজন করে। তাই আমরা বন্ধু-বান্ধবীরা মিলে ‘প্রতিদিন এক বেলার আহার’ নামে একটা প্রজেক্ট করি। সেখানে প্রতিমাসে নিজেদের আয়ের একাংশ জমা দিই। আবার অনলাইনে বিভিন্ন পোস্ট করে সবাইকে উৎসাহ দিচ্ছি তাদের অনুষ্ঠান উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য একবেলা খাবার আয়োজনের। আলহামদুলিল্লাহ, এখন অনেকে আমাদের এই উদ্যোগে সহযোগিতা করছেন। আয়োজন অনুযায়ী ৫০ থেকে শতাধিক লোকের মাঝে এক বেলা খাবার বিতরণ করা হয়।

নজরুল ইসলাম জয় বলেন, প্রতিদিনই এভাবে সবাই এগিয়ে এলে দুস্থ, এতিম ও সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা একবেলা খাবার খেতে পারবে। এ কার্যক্রমে আরো সাহায্য করে হৃদয়, আরমান, মুন্না, মিনহাজ, হাকিম, মুহিব, তানচুরা ও আফরোজা।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 109 People

সম্পর্কিত পোস্ট