চট্টগ্রাম শনিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২০

৮ নভেম্বর, ২০২০ | ৪:০৫ অপরাহ্ণ

অনুপম কুমার অভি, বাঁশখালী

বাঁশখালীর বাহারছড়ায় সরকারি জমিতে ইটভাটা!

বাঁশখালী উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের রত্নপুরে প্রশাসন কর্তৃক গুটিয়ে দেয়া ইটভাটা আবার চালু করতে যাচ্ছে আমিনুল হক গংরা।

ইটভাটা গড়ে উঠার জায়গা নিয়ে স্থানীয় জমির হোসেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে গত ১৩ অক্টোবর একটি লিখিত অভিযোগ প্রদান করেন। ৩১ অক্টোবর সন্ধ্যায় বাহারছড়ার রত্নপুরে গ্রামে ইটভাটাবিরোধী একটি সংগঠনের নেতারা বৈঠকে মিলিত হন। এ বৈঠকে যেকোন মূল্যে পরিবেশ রক্ষায় ইটভাটা বন্ধে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

স্থানীয় সমাজকর্মী জালালউদ্দিন চৌধুরী এ বিষয়ে বলেন, ইটভাটার মাধ্যমে এলাকার পরিবেশ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে, নষ্ট হবে কৃষিজমির টপসয়েল। ইটভাটার বিরোধকে কেন্দ্র করে গেল রমজান মাসে বাহারছড়া ইউনিয়নে তিন খুনের ঘটনা ঘটেছে। তাই কোনো অবস্থাতে এই ইটভাটা হতে দেয়া যাবে না। তাছাড়া যে ভূমিতে ইটভাটা হচ্ছে, তা বিরোধীয়। এখানে হিন্দুদের জায়গা ও শশ্মান জবরদখল করা হয়েছে। এছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা রয়েছে।

আবারো নতুন করে চালুর ব্যাপারে ইটভাটার মালিক আমিনুল হক বলেন, প্রশাসনের অনুমতির জন্য আবেদন করা হয়েছে। অফিসিয়ালভাবে আদেশ পাওয়াও গেছে।

বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার বলেন, গুটিয়ে দেয়া ইটভাটা চালুর ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ থেকে কোন ধরনের অনুমতিপত্র দেয়া হয়েছে কিনা আমার জানা নেই।

উল্লেখ্য, গত ২০ সেপ্টেম্বর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোমেনা আক্তার ও পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক আফজারুল ইসলাম, বাহারছড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তাজুল ইসলাম, বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়িতে দায়িত্বরত পুলিশের সমন্বয়ে টিম ইটভাটা গুটিয়ে দেয়। পরিবেশের অনুমতি না নেওয়া এবং জনবসতিতে ইটভাটা করায় ২ লাখ টাকা জরিমানা এবং ইটভাটার চিমনির কাজে ব্যবহৃত ইট ও অন্যান্য মালামালগুলো ওই সময়ে ২ লাখ ১৬ হাজার ৩শত টাকায় নিলামে বিক্রি করা হয়।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 146 People

সম্পর্কিত পোস্ট