চট্টগ্রাম বুধবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

৬ নভেম্বর, ২০২০ | ১:৪০ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক 

অবকাঠামো অপসারণে ধীরগতি

চসিক প্রশাসকের নির্দেশনার পরও চিটাগাং শপিং কমপ্লেক্সের নির্মীয়মাণ দোকান নির্মাণের অবকাঠামো এখনো অপসারণ করা হয়নি। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, প্রশাসকের মেয়াদ শেষ করার জন্য সময়ক্ষেপণের পাঁয়তারা করছে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত ১২ অক্টোবর চসিক প্রশাসক মো. খোরশেদ আলম সুজন ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, সিডিএ ও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বৈঠক করেন। এতে নিচে গাড়ি পার্কিং ও তৃতীয়-চতুর্থ তলায় নির্মীয়মাণ দোকানের অবকাঠামো ভেঙে ফেলার নির্দেশনা দেন তিনি।

প্রশাসক মো. খোরশেদ আলম গতকাল পূর্বকোণকে বলেন, ‘মূল দোতলা ভবনের ওপরের অংশ এবং পার্কিং এর স্থানের অবকাঠামো অবশ্যই খুলে ফেলতে হবে। খালি জায়গা ছাড়া অন্য স্থানে দোকান নির্মাণ করা যাবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘মার্কেটের বাথরুম ভেঙে দোকান করা যাবে না। পুরুষ ও মহিলাদের আলাদা বাথরুম নির্মাণ করতে হবে।’

এ বিষয়ে ব্যবসায়ী মোস্তফা কামাল বলেন, ‘গুটিকয়েক শ্রমিক নিয়ে অপসারণ কাজ শুরু করেছে। নামকাওয়াস্তে কিছু অবকাঠামো অপসারণ করেছে। আপতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে, চসিক প্রশাসকের মেয়াদ শেষ করার পাঁয়তারা করছে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। যাতে নতুন কোনো মেয়র আসলে ফের একইভাবে দোকান নির্মাণ করা যায়।’ সময়ক্ষেপণের বিষয়ে জানতে চাইলে চসিক প্রশাসক খোরশেদ আলম বলেন, ‘সবার সম্মতিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অপসারণ না করে উপায় নেই। নতুন মেয়র আসার পরও সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে দোকান নির্মাণের সুযোগ আর পাবে না।’

২০১৯ সালের ২১ আগস্ট ষোলশহর চিটাগাং শপিং কমপ্লেক্সের সৌন্দর্যবর্ধন ও আধুনিকায়নের জন্য শামীম করপোরেশনকে বরাদ্দ দেয় সিটি করপোরেশনের রাজস্ব বিভাগ। এরপর থেকেই দোকান নির্মাণ ও বিক্রি শুরু হয়।

মার্কেটের সোন্দর্যবর্ধন ও আধুনিকায়নের নামে ভেতরে আলো-বাতাস চলাচলের চারটি খালি জায়গা, বাইরে গাড়ি পার্কিং ও তৃতীয় তলায় দোকান তৈরির অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়। এতে অন্তত তিন শতাধিক দোকান নির্মাণের প্রস্তুতি নেওয়া হয়। এতে দৃষ্টিনন্দন এই মার্কেটটি গিঞ্জি পরিবেশ ও শ্রীহীন হয়ে পড়েছে।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 108 People

সম্পর্কিত পোস্ট