চট্টগ্রাম বুধবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২০

৩ নভেম্বর, ২০২০ | ১:০৫ অপরাহ্ণ

নাজিম মুহাম্মদ

খুলে যাচ্ছে সম্ভাবনার দ্বার

পটিয়া থেকে পার্বত্য জেলা বান্দরবান পর্যন্ত নতুন একটি সড়ক নির্মাণ করতে চায় সড়ক বিভাগ (সওজ)। পটিয়ার হাইদগাঁও-রাঙ্গুনিয়া হয়ে পনেরো কিলোমিটার সড়কটি নির্মাণ হলে বদলে যাবে এ জনপদের চিত্র। সড়কটির উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) পাঠিয়েছে সওজ। কথা ছিলো চলতি বছরের ১ জুলাই থেকে ২০২৩ সালের ৩০ জুনের মধ্যে বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে সড়কটির নির্মাণকাজ শেষ করা হবে। নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছিলো ৩৩ লাখ ৫৯৫ টাকা। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলেও বাধ সেধেছে চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগ। তাদের দাবি- এ সড়ক নির্মাণ হলে রাঙ্গুনিয়ার অংশটি দুধপুকুরিয়া-ধোপাছড়ি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যে পড়বে।

সওজের দাবি- রাঙ্গুনিয়ার যে অংশে সড়ক নির্মাণ করা হবে সেখান থেকে প্রায় ৪ কিলোমিটার দূরে অভয়ারণ্য এলাকা অবস্থিত। বন বিভাগের যেটুকু অংশ সড়কের কাজে ব্যবহার করা হবে সেখানে তেমন কোনো গাছপালা নেই। তাছাড়া পাহাড় কিংবা গাছপালা না কেটেই সড়টি নির্মাণ করা যাবে। বর্তমানে সেখানে পায়ে চলা মাটির রাস্তা রয়েছে।

দোহাজারী সড়ক বিভাগ থেকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো উন্নয়ন প্রকল্পে বলা হয়েছে, পটিয়া-অন্নদাদত্ত-হাইদগাঁও-রাঙ্গুনিয়া জেলা মহাসড়ক নির্মিত হলে বিভাগীয় শহর চট্টগ্রাম এবং পর্যটন নগরী কক্সবাজারের মধ্যে সরাসরি সহজ ও নিরাপদ যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে উঠবে। যাত্রী ও পণ্য পরিবহনে সময় ও অর্থ সাশ্রয় হবে। এটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের একটি প্রকল্প বিধায় প্রকল্পের আওতায় যে সকল সড়ক ও সেতু নির্মাণ হবে তাতে কোনো ধরনের টোল দিতে হবে না। পরিবহন পরিচালন ব্যয় ও ভ্রমণ ব্যয় সাশ্রয় বিবেচনায় সড়ক ব্যবহারকারীদের অর্থনৈতিক লাভ হবে। সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে আর্থিক বিশ্লেষণের চেয়ে অর্থনৈতিক বিশ্লেষণের গুরুত্বারোপ করা হয়। প্রস্তাবিত প্রকল্পের অর্থনৈতিক বিশ্লেষণের উপর ভিত্তি করে প্রকল্পটি বাস্তবায়নযোগ্য।

দোহাজারী সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সুমন সিংহ জানান, ১৫ দশমিক ৩৬৫ কিলোমিটার পটিয়া-রাঙ্গুনিয়া জেলা মহাসড়কটি পটিয়া-অন্নদাদত্ত-হাইদগাঁও-রাঙ্গুনিয়ার পশ্চিম খুরুশিয়া-কালিন্দিরানী সড়ক-দুধপুকুরিয়া-চন্দনাইশের ধোপাছড়ি-শঙ্খতীরের ডলুপাড়া-বালাঘাটা হয়ে বান্দরবানের সাথে মিলিত হবে। সড়কটি  বাস্তবায়ন হলে যেসব সুবিধা হবে তা হলো- বান্দরবান-দক্ষিণ রাঙ্গুনিয়া, রাজস্থলী, কাপ্তাই উপজেলার রাইখালী এলাকায় উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারজাত করা সহজ হবে। এসব এলাকার মানুষকে বান্দরবান কিংবা কক্সবাজার যেতে হলে রাউজান, হাটহাজারী, চট্টগ্রাম শহর ঘুরে যাতায়াত করতে হয়। বান্দরবান থেকে চট্টগ্রামগামী বাস কিংবা পণ্যবাহী যানবাহন বর্তমানে সাতকানিয়ার কেরানীহাট-চন্দনাইশ হয়ে যাতায়াত করে। সড়কটি বাস্তবায়ন হলে বান্দরবানের পর্যটন খাত, ওইসব এলাকায় উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারজাতে আমূল পরিবর্তন  আসবে।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 259 People

সম্পর্কিত পোস্ট