চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২০

২২ অক্টোবর, ২০২০ | ১২:৫৯ অপরাহ্ণ

নাজিম মুহাম্মদ

পঞ্চান্ন পদের বুফে দুই টাকায়

অভিজাত হোটেলে সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা পঞ্চান্ন পদের খাবার (বুফে) খেলেন মাত্র দুই টাকার বিনিময়ে। শুধু তাই নয়। দিনভর বিভিন্ন রাইডে খেলাধুলাও করেছেন এসব শিশুরা। অবহেলিত শিশুদের জন্য এ আয়োজন করেছেন স্বপ্নপূরণে কাজ করা সামাজিক সংগঠন ‘যাত্রী ছাউনি’।

সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা নগর পুলিশের উত্তর জোনের উপ -কমিশনার বিজয় বসাক জানান, আমাদের লক্ষ্য সমাজে অবহেলিতদের স্বপ্নপূরণ করা। আমরা চাই সমাজটা সবার জন্য যেন সমান হয়। মূলত অবহেলিতদের একটু স্পেশাল মনে করানোর জন্যই আমাদের এ আয়োজন। বুফে খাবারের পর শিশুদের জন্য কিডস প্লে জোনে খেলাধুলার ব্যবস্থাও করা হয়।

পথশিশুদের জন্য এ আয়োজনে নগর পুলিশের উত্তর জোনের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (এডিসি) নাদিরা নুর, পাঁচলাইশে জোনের সহকারি কমিশনার শহিদুল ইসলাম ও সংগঠনের শুভাকাঙ্ক্ষিরা উপস্থিত ছিলেন।
বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সদ্য এমবিএ পাশ করা সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ফরহাদ জিসান জানান, পাঁচ বছর ধরে সুবিধাবঞ্চিত মানুষ নিয়ে কাজ করছি আমরা। ৫০ জনেরও বেশি সদস্য নিয়ে গঠিত ‘যাত্রী ছাউনি’ নামের সংগঠনটি। শুধু সুবিধাবঞ্চিত শিশু নয়। সমাজের অবহেলিত মানুষ বিশেষ করে অবহেলিত বৃদ্ধদেরও সহযোগিতা করে থাকি আমরা। সংগঠনের উপদেষ্ঠা সদস্য ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের আর্থিক সহযোগিতায় সেবামূলক এ কাজ করা হচ্ছে। গতকাল বুধবার ৪৫ জন অবহেলিত শিশুদের নগরীর একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে বুফে খাওয়ানো হয়। বিভিন্ন বস্তি এলাকা থেকে এ শিশুদের নিয়ে আসা হয় অভিজাত হোটেলে খাবার খাওয়াতে। তারা ইচ্ছেমতো খেলাধুলা করেছে। তাদের একটি দিন কেটেছে বেশ আনন্দে।
জিসান জানান, পঞ্চান্ন পদের এ বুফে খাবারের মূল্য নেয়া হয়েছে মাত্র দুই টাকা। জনপ্রতি খাবারের মূল্য আরো অনেক বেশি তবে খাবার বিনামূল্যে না দিয়ে দুই টাকার বিনিময়ে শিশুরা খাবারগুলো কিনে খেয়েছে। আমরা চেয়েছি শিশুরা যেন মনে করে তারা খাবার কিনে খেয়েছে। সমাজে তারা অবহেলিত নয়।
২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠিত ‘যাত্রী ছাউনী’ নামের এ সংগঠন নগরীর টাইগার পাস কলোনিতে একটি স্কুলও প্রতিষ্ঠা করেছেন। যেখানে কলোনীর ৩৫ জন শিশু লেখাপড়া করছে। তারা চেষ্টা করছেন অবেহেলিত শিশুরা যেন নিরক্ষর না থাকে। ‘স্বপ্নের স্কুল’ নামে টাইগার পাস কলোনির এ স্কুলটিতে যারা পড়ছেন তাদের বই, খাতা আনুষাঙ্গিক জিনিসপত্র বিনামূল্যে দেয়া হয়।

জিসান জানান, দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে নগরীর কালুরঘাট তারানন্দ মহাকালি আশ্রমে দুটি ও পাহাড়তলি রেলওয়ে হাসপাতাল কলোনিতে একটি কাপড়ের দোকান খোলা হয়েছে। যেখানে দুই টাকা দিয়ে শিশুরা তাদের পছন্দের কাপড় কিনতে পারে। কয়দিন পর আরো দুটি কাপড়ের দোকান খোলা হবে সুবিধাজনক বস্তিতে।
শুধুই পূজা নয়। রমজানের ঈদে কিংবা শীতের সময় সুবধাবঞ্চিত পথ শিশু, বৃদ্ধাশ্রম ও এতিমখানায় দুই টাকার বিনিময়ে তারা কাপড় বিক্রি করেন।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 118 People

সম্পর্কিত পোস্ট