চট্টগ্রাম শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২০

ক্যারাভান নগরবাসীর মনে আশার সঞ্চার সৃষ্টি করেছে: চসিক প্রশাসক

৭ অক্টোবর, ২০২০ | ৮:৫৭ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

ক্যারাভান নগরবাসীর মনে আশার সঞ্চার সৃষ্টি করেছে: চসিক প্রশাসক

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, ক্যারাভান কর্মসূচি নগরবাসীর হৃদয়ে আশার সঞ্চার সৃষ্টি করেছে। এ কর্মসূচি নিয়ে জনগণের দোরগোড়ায় যাচ্ছি। তাৎক্ষণিক সেবা দিচ্ছি। সিটি কর্পোরেশনকে জনগণের আস্থার প্রতিষ্ঠানে পরিণত করার প্রাণান্ত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি যাতে জনগণ ও সিটি কর্পোরেশনের মাঝে কোন দেয়াল না থাকে। তবে যেখানেই আমি যাই আমার অনুপস্থিতিতে একই অবস্থার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। এ ব্যাপারে যারা যুক্ত আছেন সেসব বিভাগকে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিচ্ছি।

আজ বুধবার বিকেলে (৭ অক্টোবর) নগরীর মুরাদপুর থেকে অক্সিজেন পর্যন্ত চসিকের প্রকৌশল ও পরিচ্ছন্ন বিভাগের সমন্বয়ে গঠিত টিম নিয়ে ‘নগর সেবায় ক্যারাভান’ কার্যক্রমে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় প্রশাসক ড্রেন সংস্কারে বাঁধ দেয়ার কারণে পানি জমে মশার বিস্তার ঘটছে দেখে তাৎক্ষণিকভাবে মশার ওষুধ ছিটান ও এর কার্যক্রম চলমান রাখার জন্য কর্পোরেশনের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তাকে নির্দেশ প্রদান করেন।

প্রশাসক বলেন, ইদানীং লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, অনুমোদনহীন এবং গ্রামাঞ্চলের গাড়ি নগরীতে প্রবেশ করে তীব্র যানজট ও সড়ক দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে। তাই এর প্রতিকারে এদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশ প্রশাসনকে অনুরোধ জানান তিনি।

সুজন বলেন, রাস্তার উভয় পাশের ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপানাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে অযাচিত পণ্য সামগ্রী রাখা থেকে বিরত থাকুন এবং দোকানের সামনে সবসময় পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখুন। এ সময় তিনি হাটহাজারী সড়কের ময়দার মিল এলাকায় ফুটপাতের উপর ঠেলাগাড়ি, ভ্যানগাড়ি ও মালামাল দেখে তাৎক্ষণিক সরিয়ে ফেলতে নির্দেশ দেন।

অক্সিজেন মোড়ে সম্মিলিত ছাত্র সমাজের ব্যানারে ধর্ষকের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি দেখে তাদের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেন প্রশাসক। এ সময় তিনি ধর্ষকদের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য ছাত্রসমাজসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান ও ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান।

সুজন আরও বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে। তাই সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে। এছাড়া নিয়মিত মাস্ক পরিধান ও সাবান দিয়ে বারেবারে হাত ধুতে হবে। তাছাড়া মৌসুমগত কারণে এখন ডেঙ্গুর প্রভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে। ডেঙ্গুর বিস্তাররোধে ডিসেম্বর পর্যন্ত মশক নিধন অভিযান অব্যাহত রাখা ও মশার উপদ্রবস্থলে মশক নিধন অভিযান পরিচালনা করারও নির্দেশনা দেন তিনি।

এ সময় প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শফিকুল মান্নান সিদ্দিকীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

পূর্বকোণ/আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 223 People

সম্পর্কিত পোস্ট