চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২০

৩ অক্টোবর, ২০২০ | ১২:৩৪ অপরাহ্ণ

হুমায়ুন কবির কিরণ

শুরুটা সুন্দর, বাকিটা হতাশা

এই সুইমিংপুল কোনভাবেই শেখানোর কাজে ব্যবহারের উপযুক্ত নয়, এখন বিভিন্ন টুর্নামেন্টের সাথে শেখানোর কাজ চললেও শুধু শেখানোর জন্য পৃথক একটি সুইমিংপুলের উপর গুরুত্বারোপ করেছেন সিজেকেএস সহ-সভাপতি ও সাঁতার কমিটির চেয়ারম্যান এ কে এম এহসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল। এদিকে বিবিধ সমস্যায় জর্জরিত হয়ে থাকা চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন সুইমিংপুলটি করোনা পরিস্থিতিতে দীর্ঘদিন বন্ধ রয়েছে। দেখা দিয়েছে অবকাঠামোগত ত্রুটিও। সবকিছুর উন্নতিসাধন করে কবে নাগাদ আবার এটি চালু হবে সেটাও অনিশ্চিত। তবে আপাতত সিজেকেএস কর্মকর্তারা চাইছেন পরিপূর্ণ উপযুক্ত একটি সুইমিংপুল। সে লক্ষ্যে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ (এনএসসি)-এর প্রকৌশলী দিয়ে সংস্কার কাজ চলছে।
চট্টগ্রামে একটি পূর্ণাঙ্গ সুইমিং কমপ্লেক্সের দাবি ছিল দীর্ঘদিনের। এই ইস্যুতে বারকয়েক দৈনিক পূর্বকোণ-এ আয়োজন করা হয়েছিল গোল টেবিল বৈঠক। তাতে নগরীর সুশীল সমাজ থেকে শুরু করে সকলেই সাঁতারের প্রয়োজনীয়তার উপর গুরুত্বারোপ করে একটি কমপ্লেক্সের গুরুত্ব উপলব্ধি করেন। একই ইস্যুতে দৈনিক পূর্বকোণ-এ প্রকাশিত হয় বিশেষ ক্রোড়পত্র, টনক নড়ে প্রশাসনের। বিশেষ করে আ জ ম নাছির উদ্দীন সিটি মেয়র হিসাবে দায়িত্ব নেয়ার পর গতি পায় নগরীতে আন্তর্জাতিকমানের সুইমিং কমপ্লেক্স স্থাপনের প্রক্রিয়া। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় প্রথমে কুমিল্লায় বিভাগীয় সুইমিং কমপ্লেক্স স্থাপনের প্রক্রিয়া শুরু করে। তৎকালীন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন তাঁর চেষ্টায় সেই কমপ্লেক্স-এর স্থান চট্টগ্রামে আজকের স্থানে নিয়ে আসতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। তবে আউটার স্টেডিয়ামে এই কমপ্লেক্স স্থাপন করতে গিয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনার জন্ম হয়। শেষ পর্যন্ত জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের এই প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষে আলোর মুখ দেখে গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর। শুরুতেই পুলের স্বচ্ছ নীল জলে ঢেউ তোলেন নবীন-প্রবীণরা, আয়োজিত হয় লিগ টুর্নামেন্টও। তবে করোনা ঢেউ আছড়ে পড়ায় বন্ধ হয়ে যায় সকল কার্যক্রম। মাঝে পরিচর্যার অভাবে এবং নির্মাণগত ত্রুটির কারণে সুইমিংপুলের ভবিষ্যত নিয়েই শংকা তৈরি হয়। অবশ্য সিজেকেএস কর্মকর্তারাই সবার আগে সমস্যাগুলো লক্ষ্য করেন। জেলা প্রশাসক ও সিজেকেএস সভাপতি মোহাম্মদ ইলিয়াস গত বছরের ১২ নভেম্বর পত্র মারফত যুব ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব জাহাঙ্গীর হাওলাদারের কাছে সুইমিং পুলের কিছু সমস্যা জানিয়ে অভিযোগ করেন। এরপর জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ থেকে সরেজমিনে পরিদর্শনের জন্য কর্মকর্তারা চট্টগ্রাম আসেন। তাদের দেওয়া গাইডলাইন ও সিজেকেএস কর্মকর্তাদের দেওয়া পরামর্শ মেনে এখন চলছে সংস্কার কাজ। সংস্কার কাজ শেষে দ্রুত খুলে দেওয়া হতে পারে কমপ্লেক্সটি। তবে সিজেকেএস সহ-সভাপতি ও সাঁতার কমিটির চেয়ারম্যান এ কে এম এহসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল মনে করেন সংস্কার কাজ শেষ হওয়ার পরও কবে নাগাদ আবার সুইমিংপুল উন্মুক্ত করা যাবে সেটা বলার সময় এখনও আসেনি। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হলে শিশু-কিশোরদের ঝুঁকির মধ্যে ঠেলে দেওয়া সমীচিন নয়। সুইমিংপুলের চলমান সমস্যা নিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, আসলে এই সুইমিংপুল শেখানোর কাজে ব্যবহারের উপযুক্ত নয়। আন্তর্জাতিক এই সুইমিংপুলে বিভিন্ন টুর্নামেন্ট আয়োজন করা যেতে পারে, কোনভাবে ট্রেনিং কাজে নয়। শিশু-কিশোরদের সাঁতার শেখানোর জন্য চট্টগ্রামে পৃথক একটি সুইমিংপুল প্রয়োজন। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে এ বিষয়টি উপস্থাপন করে যত দ্রুত সম্ভব আমি শুধুমাত্র শেখানোর কাজে ব্যবহারের জন্য একটি সুইমিংপুল স্থাপনের চেষ্টা করবো। তাঁর কন্ঠে সুর মেলান সিজেকেএস অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহবুদ্দিন শামীম। দৈনিক পূর্বকোণকে তিনি বলেন, আসলেই এই কমপ্লেক্স শেখানোর কাজে উপযুক্ত নয়। কিন্তু শুধুমাত্র টুর্নামেন্ট বা লিগ আয়োজন করে এই কমপ্লেক্সের ব্যয়ভার মিটানো সম্ভব নয়। তাছাড়া সবার দাবি ছিল এমন একটি সুইমিংপুল, যাতে একেবারে স্বল্প খরচে শিশু-কিশোররা সাঁতার শিখতে পারে। যে কারণে মূলত টুর্নামেন্ট পুলে শেখানোর প্রক্রিয়া জুড়ে দেওয়া হয়েছে। শুধুমাত্র শেখানোর জন্য পৃথক একটি সুইমিংপুলের প্রয়োজনীয়তা তিনিও স্বীকার করলেন।
প্রসঙ্গত. জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের অর্থায়নে ১১ কোটি ৬২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সুইমিং পুলটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছিল ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে। এটির কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০১৮ সালের ৩০ জুন। কিন্তু কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার কারণে প্রায় পাঁচ মাস বেশি সময় লেগেছে নির্মাণ কাজ শেষ হতে।
এক একরেরও বেশি জায়গার উপর নির্মিত এই সুইমিং কমপ্লেক্সে পুলের সাইজ ১১০০ বর্গ মিটার। যার দৈর্ঘ ৫০ মিটার আর প্রস্থ ২২ মিটার। যেখানে রয়েছে ৮টি লেন। প্রায় ২০ লাখ লিটার পানি ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন পুলের গড় গভীরতা ২ মিটার। যা সম্পূর্ণ আন্তর্জাতিক মানের একটি সুইমিংপুল।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 222 People