চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০২০

সর্বশেষ:

চান্দগাঁওয়ে জোড়া খুন: জবানবন্দিতে যা বলল আসামি ফারুক

১ অক্টোবর, ২০২০ | ১২:১১ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

জোড়া খুন মামলার আসামি ফারুক আটক

নগরীর চান্দগাঁও থানার পুরাতন চান্দগাঁও রমজান আলী সেরেস্তাদারের বাড়ি এলাকায় মা ও ছেলে খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত পাতানো ভাই ফারুককে আকবরশাহ এলাকা থেকে আটক করেছে র‌্যব-৭।

বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর) দুপুরে র‌্যাব-৭ চান্দগাঁও কার্যালয়ে ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মশিউর রহমান জুয়েল। ফারুকের কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, দুই রাউন্ড গুলি ও একটি ছুরি উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

লে. কর্নেল মো. মশিউর রহমান জুয়েল জানান, হত্যাকাণ্ডের পরপরই র‌্যাব ছায়া তদন্ত শুরু করে। অভিযুক্ত ফারুককে ধরতে বেশ কয়েক জায়গায় অভিযানও চালানো হয়। বৃহস্পতিবার ভোরে আকবরশাহ পাক্কার মাথা এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।  

র‌্যাব-৭ এর চান্দগাঁও ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী কমান্ডার কাজী মোহাম্মদ তারেক আজিজ বলেন, গুলনাহার বেগমের সঙ্গে দীর্ঘদিনের পরিচয় ফারুকের। নানা বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো। গুলনাহার বেগম ফারুককে বকাও দিতেন। এ থেকে তার ওপর ক্ষোভের সৃষ্টি হয় ফারুকের। ঘটনার দিন কথা কাটাকাটির জেরে একপর্যায়ে গুলনাহার বেগমকে খুন করে ফারুক। এ ঘটনা দেখে ফেলায় গুলনাহার বেগমের ছেলে রিফাতকেও খুন করে।  

কাজী মোহাম্মদ তারেক আজিজ বলেন, হত্যাকাণ্ডের পরপরই গ্রেপ্তার এড়াতে আত্মগোপন করে ফারুক। প্রথমে চকবাজার এলাকায় গিয়ে রক্তমাখা জামা নালায় ফেলে দেয়। পরে নিজেকে অসহায় পরিচয় দিয়ে এক ব্যক্তির মাধ্যমে খাগড়াছড়িতে গ্যারেজে কাজ নেয়। সেখানে কিছুদিন থাকার পর ফের চট্টগ্রামে এসে বিভিন্ন মাজারে ঘুরে আত্মগোপন করে। পরে আবার ঢাকায় গিয়ে একটি গ্যারেজে কাজ নেয়। সম্প্রতি ফারুক চট্টগ্রামে ফিরে আসে।  

ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন র‌্যাব-৭ সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. মাহমুদুল হাসান মামুন, চান্দগাঁও ক্যাম্পের স্কোয়াড কমান্ডার মো. নুরুল আবছার।

অভিযুক্ত ফারুক বহদ্দারহাট খাজা রোডের কসাইপাড়া এলাকার মো. সিরাজের ছেলে।  

উল্লেখ্য, ২৪ আগস্ট পুরাতন চান্দগাঁও রমজান আলী সেরেস্তাদারের বাড়ি এলাকায় নিজ বাসায় খুন হন গুলনাহার বেগম (৩৩) ও তার ছেলে রিফাত (৯)। গুলনাহার বেগম তার মেয়ে ময়ুরী ও রিফাতকে নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন।

গুলনাহার বেগম ও রিফাত হত্যাকাণ্ডে ফারুককে সন্দেহ করে আসছিলেন ময়ুরী। ফারুক গুলনাহার বেগমের ‘পাতানো ভাই’ বলে জানিয়েছিলেন ময়ুরী।

পূর্বকোণ/পিআর

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 120 People

সম্পর্কিত পোস্ট