চট্টগ্রাম শনিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২০

সন্দ্বীপে শিল্পায়নের পথ সুগম হল

২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ | ১:৪৬ অপরাহ্ণ

মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন

সন্দ্বীপে শিল্পায়নের পথ সুগম হল

সন্দ্বীপে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য ভূমি বন্দোবস্তির অনুমোদন দিয়েছে ভূমি মন্ত্রণালয়। প্রায় ১৪ হাজার একর জমিতে এই অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণ করবে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। চলতি সপ্তাহে প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হবে বলে জানায় জেলা প্রশাসন সূত্র।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, গত ১০ ফেব্রুয়ারি ভূমি মন্ত্রণালয়ের উপসচিব সেবাষ্টিন রেমা চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কাছে প্রশাসনিক অনুমোদনের বিষয়ে চিঠি দেন। এতে বলা হয়েছে সন্দ্বীপের বাথানবাড়ি, চিরিঙ্গা, কাঁকড়ার চর, বোয়ালিয়া, বগারচর ও চর কাউনিয়াসহ ৬ মৌজার জেগে ওঠা নতুন জমির ১৩ হাজার দশমিক ৪২৬৪ একর খাসজমি বিনা সেলামি বা প্রতীকীমূল্যে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) অনুকূলে দীর্ঘমেয়াদি বন্দোবস্তি দেওয়ার জন্য প্রশাসনিক অনুমোদন প্রদান করা হয়েছে। এজন্য বন্দোবস্তি প্রস্তাব পাঠাতে জন্য জেলা প্রশাসককে অনুরোধ করা হয়েছে। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন গতকাল পূর্বকোণকে বলেন, ‘প্রশাসনিক অনুমোদন দেয়া হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যে বন্দোবস্তি প্রক্রিয়া শেষ করা হবে।’

গত ২০ ফেব্রুয়ারি জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর বন্দোবস্তি প্রক্রিয়া গ্রহণের অনুরোধ জানিয়ে সন্দ্বীপ উপজেলা সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) চিঠি দিয়েছেন। এতে দীর্ঘমেয়াদি বন্দোবস্তি প্রস্তাবনা পাঠানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।
২০১৭ সালের জানুয়ারিতে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের যুগ্ম সচিব ও বেজার ব্যবস্থাপক (বিনিয়োগ উন্নয়ন) মো. মনিরুজ্জামান সন্দ্বীপে অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণের পরিকল্পনার বিষয়টি অবহিত করেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসককে। এতে বলা হয়েছে, অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য চর জেগে ওঠা জমির প্রয়োজনীয় তথ্য পাঠাতে বলা হয়েছে।

পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক চিঠিতে দেখা যায়, সন্দ্বীপের ৬টি মৌজায় অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার পরিকল্পনা নিয়েছে বেজা। ৬ মৌজার ১৩ হাজার ৯১৩ একর সরকারি খাস জমি বিনা সেলামি বা প্রতীকী মূল্যে দীর্ঘমেয়াদি বন্দোবস্ত দেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসককে অনুরোধ করেছেন।

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসন, সন্দ্বীপ উপজেলা ও ভূমি প্রশাসন থেকে সার্ভে প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হয়।

উপজেলা ভূমি অফিস ও বেজা সূত্র জানায়, সন্দ্বীপের বাথানচর, চিরিঙ্গা, কাঁকড়ার চর, বোয়ালিয়া, বগারচর ও চর কাউনিয়া মৌজায় অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার পরিকল্পনা নিয়েছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)।

উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, ১নং খাস খতিয়ানের ৬ মৌজা এলাকায় ১৩,৯৫৭ দশমিক ৪৮৯৪ একর জায়গা রয়েছে। এরমধ্যে নদী ও খাল শ্রেণি ৯৫৭ দশমিক ৬৩ একর। অবশিষ্ট ১৩ হাজার ৪২৬৪ একর হচ্ছে চরভূমি। নদী ও খাল শ্রেণি ছাড়া ১৩ হাজার ৯১৩ একর জমি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য দীর্ঘমেয়াদি বন্দোবস্ত প্রদানের সুপারিশ করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, সন্দ্বীপ উপজেলার মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চলে এই অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার পরিকল্পনা নিয়েছে বেজা। সন্দ্বীপের উত্তর ও পশ্চিমের মেঘনা ও বামনী নদীর মোহনায় অবস্থিত জাহাজ্জার চর নামে চরভূমিতে অর্থনৈতিক জোন স্থাপনের জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমানে ওই চরে সেনাবাহিনীর ক্যাম্প এবং গবাদিপশু পালন ও চাষাবাদের জন্য সীমিত সংখ্যক মানুষের বসবাস রয়েছে।
৬ মৌজায় অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য সরকারি খাস জমি রয়েছে বাথানবাড়িতে ২৩১৯ একর, চিরিঙ্গায় ২৩১৮ একর, কাঁকড়ার চরে ২৩১৮ একর, বোয়ালিয়ায় ২৩২০ একর, বাগারচরে ২৩১৯ একর, চর কাউনিয়ায় ২৩১৯ একর।
পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 223 People

সম্পর্কিত পোস্ট