চট্টগ্রাম সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০

চবিতে ‘পল্লী উন্নয়নে অর্থায়ন ও ব্যবস্থাপনা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত

২৫ জুলাই, ২০২০ | ৫:২৮ অপরাহ্ণ

চবি সংবাদদাতা

চবিতে ‘পল্লী উন্নয়নে অর্থায়ন ও ব্যবস্থাপনা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ‘পল্লী উন্নয়নে অর্থায়ন ও ব্যবস্থাপনা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক ওয়েবিনার (ওয়েব সেমিনার) অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (২৫ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন্যান্স বিভাগের উদ্যাগে বিভিন্ন দেশের প্রায় ৬০০ অংশগ্রহণকারী নিয়ে দিনব্যাপী এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার। শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় তাঁর লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর এস এম মনিরুল হাসান। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ও ব্র্যাক চেয়ারপারসন ড. হোসেন জিল্লুর রহমান।

কনফারেন্সে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের উপাচার্য প্রফেসর কে এম গোলাম মহিউদ্দীন ও চবি ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন প্রফেসর এস এম সালামত উল্যা ভূঁইয়া। এতে অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক মূখ্য সচিব এবং পিকেএসএফ এর নির্বাহী পরিচালক জনাব আবদুল করিম এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. এম এ বাকী খলিলী।

সেমিনারে উপাচার্যের পক্ষে উদ্বোধনী বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার প্রফেসর এস এম মনিরুল হাসান বলেন, ফিন্যান্স বিভাগ দ্বিতীয়বারের মত আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করল। মহামারির দুর্যোগপূর্ণ এই সময়ে এ ধরণের সেমিনার আয়োজন অত্যন্ত সময় উপযোগী। সেমিনারে উঠে আসা বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত ও গবেষণা নীতি-নির্ধারনী পর্যায়ে এবং বাস্তব ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা পালন করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ও ব্রাকের চেয়ারম্যান ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ‘করোনা মহামারির ফলে বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলের অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপট পরিবর্তিত হয়ে যাচ্ছে। শহর ছেড়ে একদল নিম্নবিত্ত মানুষ ইতোমধ্যে গ্রামে চলে গেছে। এমনকি মধ্যবিত্তের একটা অংশও গ্রামে চলে গেছে। হঠাৎ কাজ হারানো এই জনগোষ্ঠিকে ‘নয়া গরীব’ (new poor) হিসেবে আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, এই পরিস্থিতিতে গ্রামীন অর্থায়ন ও ব্যাবস্থাপনার ক্ষেত্রে আমাদের নতুন করে ভাবতে হবে। এসময় হোসেন জিল্লুর রহমান নীতি নির্ধারণের ক্ষেত্রে পাঁচটি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা পেশ করেন। এগুলো হচ্ছে শুধুমাত্র ফসল ও ক্ষেতের দিকে জোর না দিয়ে কৃষকের স্বাস্থ্য, দক্ষতা ও শিক্ষার দিকেও নজর দিতে হবে, সামগ্রিক পল্লী উন্নয়নে কাজ করতে হবে, আবহাওয়ার সাথে তাল মিলিয়ে পল্লী উন্নয়নের দিকে জোর দিতে হবে, দেশের যে অঞ্চলে যে ধরণের আবহাওয়া তার সাথে খাপ খায় এমন উন্নয়নের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে, করোনা পরবর্তী গ্রামীন অর্থনীতি প্রবৃদ্ধি সঞ্চালক (growth driver) হতে পারে ও দক্ষতা ও প্রযুক্তি নির্ভর ‘স্মার্ট’ বিনিয়োগ করতে হবে।’

সাবেক মূখ্য সচিব আবদুল করিম বলেন, ‘গ্রামে শহরের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা ছিল আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ছিল। এখন পল্লী উন্ময়নের ক্ষেতে এই বিষয়ে জোর দেয়ার সময়ে এসেছে। এছাড়া কিছু প্রতিবন্ধকতা থাকলেও গ্রামীন অর্থনীতিতে ভর্তুকী প্রদানের বিষয়টাও বিবেচনায় রাখতে হবে।’

চবি ফাইন্যান্স বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. শামীম উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে এবং কনফারেন্স কমিটির কনভেনর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ সালেহ জহুরের সঞ্চালনায় এতে ভার্চুয়ালী আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান ও চবি হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম উদ্দিন, ভারতের নর্থ ইস্টার্ণ হিল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. জয়নাল উদ্দিন আহমেদ, জাপানের রিটসুমিকান এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মুনিম কুমার বড়াল, ভারতের মনিপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. চৌধুরী ইবাল ম্যালতেল, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মোঃ মঞ্জুর মোর্শেদ ভূইয়া, ভারতের নর্থ বেঙ্গল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. অজিত কুমার রায়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মোঃ আইয়ুব ইসলাম প্রমুখ।

পূর্বকোণ/পিআর

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 169 People

সম্পর্কিত পোস্ট