চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০২ অক্টোবর, ২০২০

সর্বশেষ:

ঈদের আগে নতুন কমিটি ঘোষণার তোড়জোড়

২৪ জুলাই, ২০২০ | ২:৪৭ অপরাহ্ণ

মোহাম্মদ আলী

মহানগর ছাত্রদল

ঈদের আগে নতুন কমিটি ঘোষণার তোড়জোড়

এমনিতে ৭ বছর ধরে পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই মহানগর ছাত্রদলের। বর্তমানে শুরু হয়েছে নতুন কমিটি গঠনের তোড়জোড়। এ নিয়ে আগ্রহীদের কাছ থেকে বায়োডাটাসহ ফরম জমাদানের আবেদনও করেছিল নগর ছাত্রদল। গত ১৩ জুলাই থেকে ১৭ জুলাই পর্যন্ত পাঁচ দিনব্যাপী এ কর্মসূচিতে প্রায় ৩৫০টি ফরম জমা পড়ে। ফরমগুলো কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের কাছে পৌঁছে দিয়েছে নগর ছাত্রদল।

একই সময়ে নতুন কমিটিতে বিবাহিতদের স্থান দিতে নগরীর নুর আহম্মদ সড়কের নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালন করছে বিবাহিতরা। তাদের দাবি বিবাহিত ও অবিবাহিতদের সমন্বয়ে স্বল্প সময়ের জন্য হলেও নতুন কমিটি ঘোষণা করা হোক। এতে ত্যাগী, মামলা-হামলার শিকার নেতারা মূল্যায়িত হবে। এ কারণে তারা গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালন করছেন।

এ আন্দোলনের অন্যতম নেতা এন মোহাম্মদ রিমন দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘২০০৩ সালে নগর ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়েছিল। এরপর ২০১৩ সালের ২১ জুলাই মাত্র ১১ সদস্যের নগর ছাত্রদলের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। দীর্ঘ ৭ বছরে এ কমিটি আর পূর্ণাঙ্গ করা হয়নি। এতে বঞ্চিত হন ত্যাগী নেতারা। অথচ ত্যাগী নেতারাই বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে হামলা-মামলার শিকার হয়েছেন, জেল কেটেছেন। তাই স্বল্প সময়ের জন্য হলেও নগর ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা করে তাদের মূল্যায়ন করা দরকার। এতে দল উপকৃত হবে।’
চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের সর্বশেষ কমিটি গঠন করা হয়েছিল ২০১৩ সালের ২১ জুলাই। ১১ সদস্যের কমিটিতে গাজী মুহাম্মদ সিরাজ উল্লাহ সভাপতি ও বেলায়েত হোসেন বুলু সাধারণ সম্পাদক হন। দীর্ঘ ৭ বছরেও এ কমিটি আর পূর্ণাঙ্গ করা যায়নি। এরমধ্যে গাজী মুহাম্মদ সিরাজ উল্লাহ নগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক এবং বেলায়েত হোসেন বুলু নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক হন। বর্তমানে তাদের দিয়েই নগর ছাত্রদলের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এ কারণে নতুন করে নেতৃত্ব ওঠে আসছে না বলে অভিযোগ করেছেন ছাত্রদলের নেতারা।

কয়েকজন ছাত্রদল নেতা অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নগর ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়া এবং নিয়মিত কমিটির ধারাবাহিকতা না থাকায় চট্টগ্রাম থেকে নতুন নেতৃত্ব ওঠে আসছে না। নেতৃত্বের মধ্যে এক ধরনের বন্ধ্যাত্ব দেখা দিয়েছে। নতুন নেতৃত্ব না থাকায় যেকোন আন্দোলন-সংগ্রামে ছাত্রদলের জোরালো ভূমিকা থাকে না।
মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি গাজী মুহাম্মদ সিরাজ উল্লাহ দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘আমাদের কমিটির মেয়াদ অনেক আগেই শেষ হয়ে গেছে। নতুন কমিটি গঠনের জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে বারবার বলে যাচ্ছি। আমরা খুব সহসা নগর ছাত্রদলের নতুন কমিটি চাই। কমিটিতে মেধাবী ও সক্রিয় কর্মীদের স্থান দিলে ছাত্রদলের নেতৃত্ব আরো গতিশীল হবে।’
গাজী মুহাম্মদ সিরাজ উল্লাহ বলেন, ‘নতুন কমিটিতে আসতে চট্টগ্রাম মহানগর থেকে ৩৫০ জন বায়োডাটাসহ ফরম জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে ৬২ জন বিবাহিত। এছাড়া ১৫ থানার জন্য ১০০ করে ১৫০০টি এবং প্রত্যেক কলেজ কমিটির জন্য সর্বনি¤œ ৪০ থেকে সর্বোচ্চ ৬০টি আবেদন ফরম জমা পড়ে। আশা করছি কোরবানের আগে মহানগরের জন্য পূর্ণাঙ্গ কমিটি কিংবা নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা হতে পারে।’
বিবাহিতদের নিয়ে মহানগর কমিটি করার দাবি প্রসঙ্গে গাজী মুহাম্মদ সিরাজ উল্লাহ বলেন, ‘তাদের দাবি যৌক্তিক। বিগত সময়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় তারা পদবঞ্চিত হয়েছেন। অথচ তারা বিগত সময়ে আন্দোলন-সংগ্রামে হামলা-মামলার শিকার হয়েছেন। হয়েছেন কারানির্যাতিতও। তাই স্বল্প সময়ের জন্য হলেও নগর ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা করে তাদের মূল্যায়ন করা দরকার।’
ছাত্রদলের কমিটি প্রসঙ্গে মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘নগর ছাত্রদলের কমিটি না হওয়ায় দলের মধ্যে নতুন নতুন নেতৃত্ব ওঠে আসছে না। একই সাথে আন্দোলন-সংগ্রামে তাদের কাক্সিক্ষত ভূমিকা থাকে না। আশা করছি এবার নগর ছাত্রদলের নতুন কমিটি খুব দ্রুত ঘোষণা করা হবে।’

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 116 People

সম্পর্কিত পোস্ট