চট্টগ্রাম শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২০

১৬ জুলাই, ২০২০ | ৩:৪০ অপরাহ্ণ

নাজিম মুহাম্মদ

মন ভালো নেই প্রতিমা শিল্পীদের

এবারের দুর্গাপূজা আড়ম্বরহীন শোভাযাত্রা নয় জন্মাষ্টমীতে

মন ভালো নেই প্রতিমা শিল্পীদের। অনেকটা বেকার সময় কাটাচ্ছে। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিভিন্ন পূজার আয়োজন হয় বাংলা পঞ্জিকা অনুসারে। আগামী ৭ কার্তিক (২২ অক্টোবর) দেবী দুর্গার ষষ্ঠী পূজা শুরু হবে। ২৬ অক্টোবর বিজয়া দশমী। দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে মৃৎশিল্পীরা তাদের কাজের হিসাব করেন বাংলা বছর অনুযায়ী। অন্য বছর এ সময়ে দুর্গাপূজার বায়না আসতে শুরু করলেও এবার তার খবর নেই। ফলে নেই প্রতিমা গড়ার ব্যস্ততা। আর প্রতিমাই যদি না গড়া যায়, তাহলে এর শিল্পীরা ভালো থাকেন কী করে? করোনায় থেমে গেছে সব ব্যবস্থা। আয়-রোজগার বন্ধ হওয়ায় ভবিষ্যৎ নিয়েও তারা শঙ্কায়। বৈশাখ মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে মূলত পূজাভিত্তিক প্রতিমা তৈরির কাজ শুরু করেন শিল্পীরা। অন্যান্য বছর এই সময়ে ব্যস্ত থাকলেও তারা এখন অনেকটা অলস সময় কাটাচ্ছেন। এমন সময়ে ভাড়া করে কারিগর আনতে হয়, অথচ এবার কারখানাগুলো এখনও ফাঁকা। চট্টগ্রামে বংশানুক্রমিকভাবে যারা প্রতিমা তৈরি করেন তাদের বেশিরভাগের আদি নিবাস বৃহত্তর ফরিদপুর অঞ্চলে। সেখান থেকে এসে তারা চট্টগ্রামে স্থায়ী হয়েছেন। একইভাবে প্রতিমা তৈরির কারখানায় যারা কাজ করেন তাদেরও বেশিরভাগ শরীয়তপুর, নেত্রকোণা, ফরিদপুর এলাকার। করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরুর সাথে সাথেই তারা চলে গেছেন নিজ নিজ এলাকায়।
কয়েক মাস পর দুর্গাপূজার আয়োজন নিয়েও দ্বিধাদ্বন্দ্বে আছেন সবাই। অথচ প্রতিমা শিল্পীদের আয়ের সিংহভাগই আসে দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করেই।
চট্টগ্রাম মৃৎশিল্পী সমিতির সভাপতি রতন পাল বলেন, দুর্গাপূজার আড়ম্বর আয়োজন হবে কি হবে না, সেজন্য আমাদের সরকার ও পূজা কমিটির নির্দেশনা দরকার। দুর্গাপূজার কাজ দীর্ঘমেয়াদী ব্যাপার। অনেকেই তিন থেকে পাঁচ মাস ধরে কাজ করে। তবে এবার আমরা উভয় সংকটে আছি। যদি এক মাস আগে বলা হয় পূজা হবে, তাহলে আমরা প্রতিমার কাজ নিয়ে তা আয়োজকদের বুঝিয়ে দিতে পারব না।
চট্টগ্রাম জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শ্যামল পালিত জানান, করোনার মাহমারিতে এবারের দুর্গাপুজা ব্যাপক আকারে হয়তো করা সম্ভব হবে না। কেন্দ্রীয় পূজা কমিটির সাথে আমরা ইতিমধ্যে বৈঠকে বসেছি। দুর্গাপূজা এবার ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা, পূজা অর্চনার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে। সবকিছু করা হবে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে। আবহমানকাল ধরে হয়ে আসা ধর্মীয় এ অনুষ্ঠান ইচ্ছে করলে বন্ধ করা যায় না। পূজার প্রস্তুুতি রাখার জন্য সবাইকে বলা হয়েছে তবে এবারের পূজায় বিগত সময়ের মতো ব্যাপক আকারে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, লাইটিং এসব হয়তো হবে না। ।
শ্যামল পালিত বলেন, আগামী ১১ আগস্ট শ্রী কৃষ্ণের জন্মদিন। কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন পরিষদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এবার মাঙ্গলিক অনুষ্ঠান হবে তবে শোভাযাত্রা বের হবে না। কারণ জনসমাগম করার কোন সুযোগ নেই।
পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 142 People

সম্পর্কিত পোস্ট