চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

১৩ জুলাই, ২০২০ | ৩:১৬ অপরাহ্ণ

মানিকছড়ি প্রতিনিধি

ঝড়ো হাওয়া ও প্রবল বর্ষণে শেষ সম্বলটুকুও হারিয়েছেন সদাইরং ত্রিপুরা

সদাইরং ত্রিপুরা। বয়স আনুমানিক ৯০ বছর। সংসারে স্বামী সন্তান বলতে কেউ নেই। তাকে চিনেনা এমন মানুষ অত্র ইউনিয়নে খুব কমই আছে। চালাচলের একমাত্র মাধ্যম হাতের লাঠি। মানুষের সাহায্য সহযোগিতায় জীবনের দীর্ঘ সময় পার করেছেন এই নারী। বর্তমানে অন্যের বাড়িতে কাজ-কর্ম করার ক্ষমতাও তার নেই। অধিকাংশ সময় অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটে তার। তাই মানুষের কাছে হাত পেতেই কোন রকম খেয়ে না খেয়ে দিন কাটে বয়ঃবৃদ্ধ এ ত্রিপুরা নারীর।

সারাদিন মানুষের বাড়ি বাড়ি ঘুরে যা পেতো তা নিয়ে ছোট্ট কুঁড়ে ঘড়েই আশ্রয় নিত রাত্রীযাপন করতে। অবশেষে আশ্রয়স্থল কুঁড়ে ঘরটিও গতকাল রবিবার (১২ জুলাই) সকালে ভারি বর্ষণ ও ঝড়ো হাওয়ায় লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছে। বর্তমানে অন্যের বাড়িতেই সর্বস্ব হারিয়ে মাথায় হাত দিয়ে বসেছেন এই নারী।
মানিকছড়ি উপজেলাধীন ২নং বাটনাতলী ইউনিয়নের অন্তর্গত ৯নং ওয়ার্ডের পতিরাম পাড়ার সদাইরং ত্রিপুরার ঘরটি গতকাল রবিবার (১২ জুলাই) সকালে ভারি বর্ষণ ও ঝড়ো হওয়ায় ভেঙ্গে যায়। ফলে মানবেতর জীবনযাপন করছেন এই নারী। এখন পর্যন্ত কোন প্রকার সরকারি-বেসরকারি সহায়তা পাননি বলেও জানিয়েছেন এই নারী।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ইউপি সদস্য মো. জহিরুল হক ভুঁইয়া জানান, এ ব্যাপারে আমার কাছে কোন তথ্য জানা নেই। আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

২নং বাটনাতলী ইউপি চেয়ারম্যান মো. শহিদুল ইসলাম মোহন জানান, পতিরাম পাড়ার সদাইরং ত্রিপুরার ঘরটি গতকাল রবিবার সকালে ভেঙ্গে গিয়েছে। শুকনা খাবারসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. কামাল উদ্দিন বলেন, আমাদের কাছে এখন পর্যন্ত কোন তথ্য আসেনি। তথ্য এলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

পূর্বকোণ/ইসমাইল-এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 125 People

সম্পর্কিত পোস্ট