চট্টগ্রাম বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০

প্রায় ১৫ বছর পারকি সৈকতে লাল কাঁকড়ার বিচরণ

৭ জুন, ২০২০ | ২:৩২ পূর্বাহ্ণ

ইমরান বিন ছবুর

কাঁকড়াগুলোকে না মারার অনুরোধ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের

প্রায় ১৫ বছর পারকি সৈকতে লাল কাঁকড়ার বিচরণ

বিচ বাইক ও মানুষের পদচারণায় লাল কাঁকড়া প্রায় বিলুপ্তির পথে- ড. মনজুরুল কিবরিয়া

মানুষ যখন গৃহবন্দি, প্রকৃতি তখন স্বাধীন। তাই প্রকৃতি সাজতে শুরু করেছে নিত্য নতুন রূপে। এরইমধ্যে দেখা যেতে শুরু করেছে প্রায় বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া প্রাণী ও উদ্ভিদ। সারা বিশ্বের মত বাংলাদেশেও করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে জনশূন্য পর্যটন স্থান। প্রতিবছর ঈদের ছুটিতে যেখানে মানুষের ঢল নামতো পিঁপড়ার মত, এবার সেখানে ছিল সুনসান নীরবতা। তাই এসময়ে প্রকৃতি সাজতে শুরু করেছে নিজের মতো করে। ‘প্রায় ১৫ বছর আগের পারকি সমুদ্র সৈকত জুড়ে ছিল লাল কাঁকড়ার বিচরণ। সাদা সাদা দুটি লম্বা চোখ। চোখের উপরে লাল সুতোর মত দুটি অংশ। চরের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত, সবখানেই তাদের ছুটোছুটি। এগুলোর সাথে দেখা যেত আরো কিছু ছোট ছোট কাঁকড়া। পর্যটকদের সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে পারকি সমুদ্র সৈকত থেকে বিলুপ্ত হতে থাকে থাকে এ লাল কাঁকড়গুলো। তবে পর্যটকদের আনাগোনা না থাকায় যা আবার দেখা যেতে শুরু করেছে। প্রায় ১৫ বছর আগে বিলুপ্ত হতে যাওয়া এই লাল কাঁকড়ার আবার বিচরণ দেখা যাচ্ছে সমুদ্র সৈকতে।’ গত শুক্রবার পারকি সমুদ্র সৈকতের স্থানীয়দের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা যায়।
এ সম্পর্কে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. মনজুরুল কিবরিয়া বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে দেশে লকডাউনের ফলে কিছু কিছু সমুদ্র সৈকতে এই লাল কাঁকড়া আবার দেখা যেতে শুরু করেছে। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতেও এই কাঁকড়া প্রচুর পরিমাণে ছিল। আমরা নিজেরাও কক্সবাজারে এই কাঁকড়া প্রচুর দেখেছি। চরের পর চর কাঁকড়ায় লাল হয়ে থাকতো। যা এখন প্রায় নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। তবে সোনাদিয়া দ্বীপে এখনো প্রচুর পরিমাণে এই কাঁকড়ার বিচরণ রয়েছে।
কী কী কারণে লাল কাঁকড়া নিশ্চিহ্ন হয়ে যাচ্ছে এমন প্রশ্নে উত্তরে প্রাণিবিদ্যা বিভাগের এই গবেষক বলেন বলেন, মানুষের আনাগোনা, বিচ বাইক চালানো ও পদচারণের ফলে লাল কাঁকড়া পর্যটন এলাকা থেকে এখন প্রায় বিপন্ন হওয়ার পথে। এই প্রাণীটি খুবই স্পর্শকাতর। মানুষ কাছে গেলেই এগুলো গর্তে ঢুকে যায়। মানুষের আনাগোনা না থাকতে তারা আবার গর্ত থেকে বের হয়ে বিচরণ করতে থাকে।
তিনি আরো বলেন, কুয়াকাটা, কক্সবাজার, পারকি সমুদ্র সৈকতসহ বিভিন্ন বিচে প্রচুর পরিমাণে এই লাল কাঁকড়ার বিচরণ ছিল। এক পর্যায়ে সেগুলো প্রায় বিলুপ্ত হয়ে গেছে। পর্যটন এলাকায় মানুষের যাতায়াত বন্ধ থাকায় লাল কাঁকড়া আবার দেখা যেতে শুরু করেছে। সমুদ্র সৈকতে এই লাল কাঁকড়া আবার ফিরে আসতে শুরু করেছে।
জানতে চাইলে আনোয়ারার বারশত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম এ কাইয়ুম শাহ জানান, গত ১৪-১৫ বছরের মধ্যে পারকি সমুদ্র সৈকতে এই লাল কাঁকড়া দেখা যায়নি। তবে এর আগে আমাদের ছোটবেলায়, প্রায় ১৫ বছর আগে এই কাঁকড়ার প্রচুর বিচরণ দেখেছি পারকি সমুদ্র সৈকতে। কিন্তু ধীরে ধীরে সেগুলো এখান থেকে বিলীন হয়ে গেছে। দেশে লকডাউন ঘোষণার পর থেকে এই কাঁকড়া আবার দেখা যাচ্ছে। যাদের বিচরণে পারকি সৈকতের সৌন্দর্য অনেকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।
ক্ষোভ প্রকাশ করে কাইয়ুম শাহ বলেন, গত কয়েকদিন ধরে দেখেছি, স্থানীয় কিছু ছেলে লাঠি দিয়ে কাঁকড়াগুলো মেরে নিয়ে যাচ্ছে। গত শুক্রবার সন্ধ্যার পর পারকি বিচে এসে দেখতে পাই, পাঁচ থেকে সাতজন ছেলে কাঁকড়া মেরে নিয়ে যাচ্ছে। তাদের ধাওয়া দিয়ে ধরার চেষ্টা করেছি। কিন্তু তারা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এভাবে মারতে থাকলে এই কাঁকড়াগুলো আবার হারিয়ে যাবে। আমি সবার কাছে অনুরোধ করবো, কেউ যাতে এই কাঁকড়াগুলোকে না মারে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 271 People

সম্পর্কিত পোস্ট