চট্টগ্রাম রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০

সর্বশেষ:

চাকুরি দেয়ার নামে অর্থ আত্মসাতকারি চসিকের সেই কর কর্মকর্তা বরখাস্ত

২৯ মে, ২০২০ | ৬:৪৪ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চাকুরি দেয়ার নামে অর্থ আত্মসাতকারি চসিকের সেই কর কর্মকর্তা বরখাস্ত

অবশেষে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) রাজস্ব বিভাগের সেই কর কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তার নাম জানে আলম। ৫ নম্বর সার্কেলের ভারপ্রাপ্ত কর কর্মকর্তা ছিলেন। চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে তাকে বরখাস্ত করা হয়। তার বিরুদ্ধে ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে শিক্ষিত বেকার যুবকদের কাছ থেকে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ ছিল।

২০১৯ সালের ৭ মার্চ অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে বিভাগীয় মামলা হয়। যার নম্বর ০১/২০১৯। মামলাটি তদন্তশেষে সন্দেহাতীতভাবে অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়। তাই চসিক কর্তৃপক্ষ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন কর্মচারি বিধিমালা ২০১৯ এর ধারা ৫০ এর দফা (খ) এর (উ) মোতাবেক তাকে চাকরি হতে বরখাস্ত (Dismissal from service) করা হয়।

চসিক সূত্র জানায়, একাধিক শিক্ষিত বেকার যুবককে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের রাজস্ব বিভাগে চাকুরি দেয়ার নাম করে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নেন জানে আলম। সেই টাকা আত্মসাতের পর চাকুরিপ্রার্থীদের দীর্ঘদিন নানা টালবাহানা করে ঘুরাতে থাকেন। একসময় তারা বেশি চাপাচাপি করলে তাদেরকে ভূয়া নিয়োগপত্র দিয়ে প্রতারণা করেন। ওই নিয়োগপত্র নিয়ে তারা সিটি কর্পোরেশনের চাকুরিতে যোগদান করতে গেলে তা ভূয়া প্রমাণিত হয়। তখন প্রতারণার শিকার ব্যক্তিরা বিষয়টি সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনকে লিখিতভাবে জানান।

লিখিত অভিযোগ তদন্ত করার জন্য সিটি মেয়র সংশ্লিষ্ট বিভাগকে নির্দেশ দেন। এর মধ্যে প্রতারক জানে আলম অভিযোগকারিদেরকে তাদের টাকা ফেরত দেয়ার আশ্বাস দিয়ে তদন্ত কার্যক্রম কিছুটা ধীর করার চেষ্টা করেন। প্রতারণা শিকার ব্যক্তিরাও তার আশ্বাসে আশ্বস্থ হন। কিন্তু আশ্বাস বাস্তবায়ন না হওয়ায় পাওনাদাররা ফের তৎপর হলে চসিকের পক্ষ থেকে একটি বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়। দীর্ঘ দিন তদন্তশেষে প্রতারণা করে অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়। তাকে বরখাস্ত করা হয়।

জানতে চাইলে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন পূর্বকোণকে বলেন, অনিয়ম করে কারো পার পাওয়ার সুযোগ নেই। অভিযোগ পাওয়ার পর কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়ে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেয়া হয়েছিল। তার জবাব সন্তোষজনক ছিল না বলে বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়েছিল। মামলার তদন্তশেষে প্রতারণার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। কারো প্রতারণার ফাঁদে পা না দেয়ার জন্য শিক্ষিত বেকার যুবকদের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, সিটি কর্পোরেশনসহ যেকোন সরকারি প্রতিষ্ঠানে লোকবল নিয়োগ করার আগে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তি ছাড়া কোন পদেই কারো পক্ষে নিয়োগ দেয়া সম্ভব নয়।

পূর্বকোণ/পিআর-ইফতেখার

The Post Viewed By: 160 People

সম্পর্কিত পোস্ট