চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০

সর্বশেষ:

করোনার নমুনা পরীক্ষার অনুমতি পেল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

২২ মে, ২০২০ | ৬:৩৮ অপরাহ্ণ

ইমাম হোসাইন রাজু

করোনা রোগী ভর্তি নিয়ে সংশয়,বাড়ল শয্যা সংখ্যা

অবশেষে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হলো করোনা রোগীদের চিকিৎসায় প্রস্তুত বিশেষায়িত হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতাল। তবে কবে থেকে হাসপাতালটিতে রোগী ভর্তি করানো হবে কিংবা চিকিৎসা সেবা দিতে পারবে সে বিষয়ে দেখা দিয়েছে নতুন সংশয়। দীর্ঘদিন ধরে নানা নাটকীয়তার পরও এমন পরিস্থিতিতে অনেকটাই উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আইসিইউ বেড সম্বলিত ১০০ শয্যার হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতালটি চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের কোভিট ইউনিট-২ হিসেবে পরিচালিত হবে। সেখানে দুই জন সহকারী পরিচালক, ২০ জন চিকিৎসক ও ৩৫ জন নার্স, ৩ জন অফিস সহকারী দেওয়া হয়। তবে পিয়ন, সুইপার ও ওয়ার্ডবয় নিয়োগ হয়নি এখনো। শুধু পিয়ন বা ওয়ার্ড বয় নয়, এখনো কিছু আনুষাঙ্গিক যন্ত্রপাতি ও ইলকোট্রিক্যাল কাজের বাকি রয়েছে। যা সম্পন্ন করতে আরও বেশ কয়েকদিন সময়ের প্রয়োজন আছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। তবে ওয়ার্ড বয়-কিংবা সুইপার নিয়োগ দেওয়ার পরেই হাপসাতালে রোগী ভর্তি ও সেবা কার্যক্রম শুরু করার কথা জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।
এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য দপ্তর চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক ডা. হাসান শাহরিয়ার পূর্বকোণকে বলেন, ‘আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে। তবে এখনো কিছু কাজ বাকি আছে, সেগুলো পূরণ করার পরেই রোগী ভর্তি শুরু হবে’। কবে থেকে রোগী ভর্তি কিংবা সেবা কার্যক্রম শুরু করা যেতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ মুহূর্তে যারা চিকিৎসা দিবেন, তাদের অনেকেরই কোভিড সর্ম্পকে ভাল ধারণা নেই। তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। আবার কিছু জনবলেরও প্রয়োজন আছে। সবমিলিয়ে কিছুদিনের মধ্যেই পুরোপুরি চালু করা সম্ভব হবে। তবে এরমধ্যে কোন সমস্যায় পড়তে হবে না। যেহেতু ১০০ শয্যার একটি ওয়ার্ড চালু করেছে চমেক হাসপাতাল। আপাতত সেখানেই রোগীদের ভর্তি করানো হবে’।
এর আগে গত ১৬ মে হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতালকে সরকারিভাবে স্থানীয় পর্যায়ে চিকিৎসক-নার্সসহ সকল জনবল সংযুক্ত করে দ্রুত সময়ের মধ্যে চালু করার নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। যার প্রেক্ষিতে গতকাল (বৃহস্পতিবার) দুপুরে হাসপাতালটি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন চৌধুরী। এ সময় বিভাগীয় কমিশনার এ বি এম আজাদ, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির, সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) চট্টগ্রামের সভাপতি ডা. মুজিবুল হক খান ও সাধারণ সম্পাদক ডা. ফয়সল ইকবাল চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
তবে এ মুহূর্তে করোনা রোগীদের জন্য বিশেষায়িত হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতালটি চালু করার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে পিয়ন-সুইপার ও ওয়ার্ড বয় না থাকা। যদিও স্বংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলছে, এসব কর্মী নিয়োগ দেওয়ার জন্য একাধিক স্থানে যোগাযোগ করা হয়েছে। স্বাভাবিকের চেয়ে তিনগুণ বেতন দেওয়ার কথা উল্লেখ করা হলেও তাতে কেউ রাজি হচ্ছে না। তবে এ বিষয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল সংশ্লিষ্টরা।
এ প্রসঙ্গে বিএমএ চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক ডা. ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী পূর্বকোণকে বলেন, ‘ অন্য সময়ে ৫ হাজার টাকায় এসব জনবল নিয়োগ দেয়া যায়। এখন ১৫ হাজার টাকা বেতন দেব বললেও পাওয়া যাচ্ছে না। তবুও বিভিন্ন স্থানে আলোচনা চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে তার সমাধান করা হবে’।
উল্লেখ্য, গত ১০ এপ্রিল নগরীর খুলশী হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতালকে সংস্কার করে তা নিজস্ব অর্থায়নে করোনা রোগীদের সুচিকিৎসা প্রদানের সিদ্ধান্ত নেন চট্টগ্রাম প্রাইভেট ক্লিনিক ওনার্স এসোসিয়েশন। যাতে যুক্ত হোন সিটি মেয়রও। দীর্ঘদিনের পরিত্যক্ত থাকা একসময়ের অভিজাত এ হাসপাতালে এরই মধ্যে প্রায় দেড় কোটি টাকা খরচে বসানো হয়েছে ২০টি আইসিইউ এবং ৮০টি আইসোলেশন শয্যা। আছে আধুনিক সব যন্ত্রপাতি। কিন্তু হাসপাতালটি পরিচালনা ও জনবল নিয়োগের দ্বিমতে জটিলতা দেখা দেয়। সর্বশেষ জটিলতা নিরসন হলেও নতুন করে এখন সংশয় দেখা দিয়েছে কর্মী নিয়োগে।

The Post Viewed By: 73 People

সম্পর্কিত পোস্ট