চট্টগ্রাম শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০

বাঁশখালীতে জহির হত্যা মামলার আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন

১৮ মে, ২০২০ | ১০:০৮ অপরাহ্ণ

বাঁশখালী সংবাদদাতা

বাঁশখালীতে জহির হত্যা মামলার আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন

চট্টগ্রামের বাঁশখালীর সাধনপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ সাধনপুর এলাকায় পুর্ব শক্রতা ও  বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় গত মঙ্গলবার (১২ মে)  নিহত ট্রান্সপোর্ট ব্যবসায়ী জহিরুল আহমদ (৩৫) নামে এক ব্যক্তি ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছিলেন।  আহত হয়েছিলেন অন্তত ৮ জন।  এ  হত্যা মামলার আসািমিদের গ্রেপ্তারের দাবিতে আজ সোমবার (১৮ মে) বাঁশখালী গুনাগরি চৌমুহনীতে সন্ধা ৫টা ৩০ মিনিটে এক মানববন্ধন অনুষ্টিত হয়।

মানববন্ধনে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন- নিহত জহিরুল ইসলামের ভাইপো রবিউল আউয়াল হিরো, ভগ্নিপতি আমির হোসেন, বোন মমতাজ বেগম,নিহত জহিরের  বড় মেয়ে কাউসার, ছোট মেয়ে রিয়া, ভাগিনী পপি। এ সময় এ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারপূর্বক ফাঁসি দাবী জানান তারা।

মানববন্ধনে নিহত জহিরুল ইসলামের ভাইপো রবিউল আউয়াল জানান, দীর্ঘদিন যাবত আমি ও আমার চাচা ট্রাক্সপোর্ট এর ব্যবসা করে । বিগত (৫ মে) রাতে গুনাগুরী থেকে নিজ  বাড়িতে আসার পথে নুরুল মোস্তফা ও রহিম দুজন আমাকে হামলা করে টাকা পয়সা ছিনিয়ে নেয় এবং আমি আহত হয়ে চট্টগ্রাম হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহন করি । ঘটনার দিনে রাতে বাড়ি ফিরে মামলা করার জন্য থানায় যাওয়ার খবর পেয়ে বাড়ির সামনে হামলা করে তাতে আমার ছোট ভাই তানজিব ও বাবাকে আহত করে। তানজিবকে চট্টগ্রামে চমেকে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে আমি এবং বাবা থানায় গেলে রাতে স্থানীয় জামায়াত নেতা নেজাম উদ্দিন, মনির আহমদ,কালু, আজিজ শাহেদ, মুবিন, নুরুল্লাহ, জাফর, রাশেদ, ইয়াছিন, ইলিয়াস,ও আনিসের নেতৃত্বে সংঘবন্ধ হয়ে হামলা করে। পরের দিন পুনারায় আবারো হামলা চালালে জহিরুল ইসলাম গুরুতর আহত হয়। তাকে গুনাগুরী মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে আশংকাজনক চট্টগ্রামে চমেক হাসপাতালে নেওয়ার পথে এ্যাম্বুলেন্স গতিরোধ করে হামলা চালালে ঘটনাস্থলে আমার চাচা জহির মৃত্যুবরণ করে বলে সে জানায় ।

এ বিষয়ে বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো.রেজাউল করিম মজুমদার বলেন, নিহত জহিরের স্ত্রী বাদী হয়ে ২৩ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করে। উক্ত মামলায় ২ জন আটক রয়েছেন। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য,  ১২ মে সাধনপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড়ের দক্ষিণ সাধনপুর আশরাফ আলীর বাড়ি এলাকায় পুর্বের বিরোধের জের ধরে জহির নিহত হন এ ঘটনায় আহত হন আরো ৮ জন।

পূর্বকোণ/পিআর

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 427 People

সম্পর্কিত পোস্ট