চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০

মশাবাহিত রোগ প্রতিরোধে নগরবাসীর সহযোগিতা চাইলেন মেয়র

১৮ এপ্রিল, ২০২০ | ৮:২৬ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

মশাবাহিত রোগ প্রতিরোধে নগরবাসীর সহযোগিতা চাইলেন মেয়র

চিকনগুনিয়া, ডেঙ্গুসহ মশাবাহিত রোগ প্রতিরোধে নগরবাসীর সহযোগিতা চেয়েছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। তিনি নগরবাসীকে বাসা-বাড়ি, প্রতিষ্ঠান,এলাকার বিভিন্ন জায়গার ঝোপ-ঝাড় পরিষ্কার করে মশার প্রজনন ক্ষেত্র ধ্বংস করে ফেলার আহ্বান জানান। আজ শনিবার মেয়রের ফেসবুক পেজে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে মেয়র এ আহ্বান জানান।

বিবৃতিতে মেয়র বলেন, মশক নিধন কার্যক্রম শতভাগ নিশ্চিতকরণের ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সুস্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে প্রতি ওয়ার্ডে জীবানুনাশক পানি ছিটানোর পাশাপাশি মশা নিধনে ক্রাশ প্রোগ্রাম কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে।

পরিষ্কার ও বদ্ধ পানি এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র। তাই বাসাবাড়ির আশপাশে, ডাবের খোসায়, ফুলের টবে, ছাদে, ফ্রিজের ট্রেতে যাতে পানি জমে না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। চসিকের পক্ষ থেকে মশা নিধনের জন্য এডাল্টিসাইড এবং মশার লার্ভা ধ্বংসের জন্য লার্ভিসাইড ওষুধ ছিটানো হচ্ছে। ফগার মেশিনের পাশাপাশি হ্যান্ড স্প্রে মেশিনের সাহায্যে মশা নিধন করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, বর্ষা মৌসুম মশার বংশবৃদ্ধির মৌসুম।বাড়ির আশপাশ, ফুলের টব, আবর্জনা ফেলার পাত্র, প্লাস্টিকের পাত্র, পরিত্যক্ত টায়ার, প্লাস্টিকের ড্রাম, মাটির পাত্র, বালতি, টিনের কৌটা, ডাবের খোসা, নারিকেলের মালা, ব্যাটারি শেল, পলিথিন, চিপসের প্যাকেট এবং নালা-নর্দমায় জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে এডিস মশার বংশবিস্তার হতে পারে। এসব বিষয়ে বিশেষ নজর দিয়ে চসিক পরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্য বিভাগকে আরও বেশি তৎপর হয়ে কাজ করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, বিশেষ মশক নিধন অভিযান উদ্বোধনের পর নগরের ৪১ ওয়ার্ডে ১২০ জন শ্রমিক ওষুধ ছিটানো শুরু করেছে। এবার ২ কোটি টাকার ২৫ হাজার লিটার অ্যাডাল্টিসাইড, ১০ হাজার লিটার লার্ভিসাইড ওষুধ ক্রয় করা হয়েছে। চসিকে ১১০টি জার্মানির ফগার মেশিন ও ৩৫০টি হ্যান্ড স্প্রে মেশিন রয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

পূর্বকোণ/ এস

The Post Viewed By: 118 People

সম্পর্কিত পোস্ট