চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

সেলুন বন্ধ, বাধ্য হয়েই ‘ন্যাড়া’

১৩ এপ্রিল, ২০২০ | ২:৫৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনার প্রভাব

সেলুন বন্ধ, বাধ্য হয়েই ‘ন্যাড়া’

দোকান বন্ধ থাকায় আয় নেই, মালিক-কর্মচারীরা পড়েছেন বিপাকে

করোনাভাইরাসের মহামারীর প্রভাব পড়েছে সাধারণ মানুষের মাথায়ও। এই সময়ে সেলুন বন্ধ থাকায় চুল কাটাতে পারছেন না কেউ। তাই বাধ্য হয়ে ন্যাড়া হচ্ছেন। কেউ কেউ পরিবারের সদস্যদের সহায়তায় আর কেউ কেউ সেলুন থেকে লোক ডেকে এনে ন্যাড়া করছেন মাথা। ন্যাড়া মাথার ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও পোস্ট দিচ্ছেন। এ কারণে নরসুন্দরদের মাথায় হাত। করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাব ঠেকাতে সরকার ঘোষিত লকডাউনের ফলে বন্ধ রয়েছে চট্টগ্রামের সেলুন। বিশ্বব্যাপী মানুষের প্রাণ সংহার করা এ ভাইরাস ঠেকাতে সব স্থানে মানুষে মানুষে বজায় রাখা হচ্ছে সামাজিক দূরত্ব, যাকে মূলত শারীরিক দূরত্ব বলছেন বিশেষজ্ঞরা। ফলে করোনার কারণে সেলুনের দোকান বন্ধ থাকায় অনেকটা বিপাকে পড়েছেন সাধারণ মানুষ ও সেলুন মালিক। তাদের কপালে এখন চিন্তার ভাঁজ। বিপাকে পরা অধিকাংশ মানুষ বাধ্য হয়ে বাসায় বসে মাথার চুল ন্যাড়া করছেন। চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা যায় অনেকের মাথায় চুল নেই। তারা বাধ্য হয়ে মাথা ন্যাড়া করেছেন। বাকলিয়ার শাহআমানত হাউজিং সোসাইটির প্রায় ২০ জন মানুষ একসাথে মাথার চুল ন্যাড়া করেছে। শাহআমানত হাউজিং সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ আনিস ওয়ারেচী বলেন, লকডাউনের কারণে সেলুনের দোকান বন্ধ থাকায় এলাকার মানুষ বিপাকে পড়েছেন। তাই সেলুনের দোকানদারকে বাসা থেকে ডেকে এনে আমিসহ ২০ জন একসাথে মাথা ন্যাড়া করে ফেলেছি। এলাকার বাসিন্দা আব্দুল মালেক বলেন, সেলুনের দোকান বন্ধ থাকায় মাথা ন্যড়া করে ফেলেছি। তাছাড়া সেলুনে গেলে করোনা আক্রান্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে। এদিকে চরম দৈন্যতার মধ্যে পড়েছেন সেলুনের দোকানের মালিকের পাশাপাশি তাদের কর্মচারীরা। অধিকাংশ সেলুনের কর্মচারী রাখা হয় কাজের উপর কমিশন অর্থাৎ কাজ করে যা আয় করবে তার থেকে শতকরা হিসেবে দৈনিক আয়ের একটি অংশ পাবেন। অথবা দৈনিক মজুরি ভিত্তিতে। সব সেলুন শ্রমিক এখন বেকার হয়ে পড়েছেন। তারা চরম দুর্দশার মধ্যে পড়ে গেছেন। অথচ পবিত্র শব ই বরাত থেকে ঈদ পর্যন্ত তাদের মূল আয় হয়ে থাকে। তাই তারা সারাবছর এই সময়ের জন্য অপেক্ষা করেন। করোনাভাইরাস সব এলোমেলো করে দিয়েছে। শুলকবহর এলাকার এক সেলুন মালিক বিমল শীল পূর্বকোণকে জানান, দোকান বন্ধ রেখেছেন তিনি। অতি কষ্টে জীবনযাপন করছেন।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 239 People

সম্পর্কিত পোস্ট