চট্টগ্রাম রবিবার, ৩১ মে, ২০২০

চমেকে চালু হচ্ছে করোনা পরীক্ষা-নিরীক্ষার ল্যাব

৮ এপ্রিল, ২০২০ | ২:৫৮ পূর্বাহ্ণ

ইমাম হোসাইন রাজু

চমেকে চালু হচ্ছে করোনা পরীক্ষা-নিরীক্ষার ল্যাব

এবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে (চমেক) চালু হচ্ছে করোনাভাইরাস পরীক্ষা-নিরীক্ষার ল্যাব। ইতোমধ্যে নতুন করে ল্যাবটি স্থাপনের কাজ শুরু করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এটি স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন কলেজ কর্তৃপক্ষ। এরপর এখান থেকেই নমুনা সংগ্রহ এবং ফলাফল পাওয়া যাবে।
জানা যায়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বিভাগীয় শহরগুলোতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরীক্ষার জন্য নতুন করে ল্যাব স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এরমধ্যে চট্টগ্রামে আগ থেকেই ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকসাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি) হাসপাতালে এমন ল্যাব রয়েছে। যদিও সেটি শহর থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। তাই নগরীর মধ্যে নতুন করে ল্যাবটি স্থাপনের জন্য স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে নির্দেশনা পায় চমেক কর্তৃপক্ষ। যার জন্য গত ২৫ মার্চ কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে এটি স্থাপনের কাজ শুরু করা হয়। ইতোমধ্যে ল্যাবটি স্থাপনে মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের পাশে তিনটি ক্লাস রুম প্রস্তুত করা হয়েছে। যদিও স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে পাঠানো ডিজাইন মোতাবেক কাজ শুরু করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। তবে এটি আগামী দু-একদিনের মধ্যে কাজ শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন কলেজ অধ্যক্ষ ডা. শামীম হাসান।
তিনি পূর্বকোণকে বলেন, ‘একটি ডিজাইন পাঠানো হয়েছে। সে অনুসারে কাজ শুরু করা হবে। আশা করছি আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ল্যাব স্থাপনের কাজ শেষ করা যাবে। এবং এরপর থেকে তা দিয়ে নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজও করা যাবে। এতে করে চমেক হাসপাতালে আসা রোগীদের আর এদিক-ওদিক ছুটাছুটি করতে হবে না।’
এদিকে, ল্যাবে নমুনা পরীক্ষার জন্য পিসিআর মেশিনটি আগামী দু-একদিনের মধ্যে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে এসে পৌঁছানোর কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন কলেজ সূত্র। জানায়, এ নিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষের সাথে মঙ্গলবার একাধিকবার কথা হয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তরের সাথে। তবে পিসিআর মেশিনটি পাঠানো হলেও আনুষাঙ্গিক কাজ শেষ করা ছাড়া এটি বসানো সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছেন কলেজ কর্তৃপক্ষ।
জানতে চাইলে কলেজ অধ্যক্ষ ডা. শামীম হাসান পূর্বকোণকে বলেন,‘সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ হয়েছে। তারা দু-একদিনের মধ্যে মেশিনটি পাঠাবে বলেছে। তবে ল্যাবটি ভেতরে চিকিৎসকদের ও রোগীদের বসার স্থান-নমুনা সংগ্রহের রুম, ওয়াশ রুম, গোসলখানাসহ নানা বিষয় স্থাপন করতে হবে। তারপর মেশিনটি স্থাপন করা হবে। আনুষাঙ্গিক কাজ শেষ না করে এটি বসিয়ে কোন লাভ নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।’

The Post Viewed By: 237 People

সম্পর্কিত পোস্ট