চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

লামায় হাম রোগের প্রাদুর্ভাব

২৯ মার্চ, ২০২০ | ৭:৩৭ অপরাহ্ণ

লামা সংবাদদাতা

লামায় হাম রোগের প্রাদুর্ভাব

এখন শুষ্ক মৌসুম। প্রতিবছর এই সময়ে হাম রুবেলা রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। বিষয়টি মাথায় রেখে স্বাস্থ্য বিভাগ প্রতিবছরই এ সময় জাতীয় হাম- রুবেলা ক্যাম্পেইন পরিচালনা করে থাকে। এই বছর ১৮ মার্চ থেকে আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত ৯ মাস থেকে ১০ বছর বয়সী সব শিশুকে এক ডোজ এমআর হাম-রুবেলার টিকা দেওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। কিন্তু বিশ্বব্যাপী মরণব্যাধি করোনাভাইরাস আক্রমণের কারণে এ বছর আপাতত হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইন বন্ধ ঘোষণা করে স্বাস্থ্য বিভাগ।

লামা স্বাস্থ্য বিভাগের এমটি (ইপিআই) রুপন কান্তি চৌধুরী জানিয়েছেন, লামা উপজেলার দুর্গম পাহাড়ে অবস্থিত উপজাতি ও বাঙ্গালী পাড়া গুলোতে হঠাৎ করে হাম-রুবেলা রোগের চরম প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি লামা উপজেলার সদর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের পুরাতন লাইল্যা মুরুং পাড়ায় হাম রোগে আক্রান্ত হয়ে এক শিশু মৃত্যুবরণ করে এবং গুরুতর অবস্থায় ৩৩ জন হাম রোগীকে লামা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিষয়টি মাথায় রেখে লামা উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ আউটব্রেক অনুসন্ধান কার্যক্রম শুরু করে।

গত ১৬ মার্চ থেকে ১৯ মার্চ পর্যন্ত হামের প্রাদুর্ভাব দেখা গেছে সদর ইউনিয়নের এমন ২৬টি উপজাতি ও বাঙালি পাড়াতে তথ্য সংগ্রহ করা হয়। তারপর একজন সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শককে প্রধান করে দু’জন স্বাস্থ্য সহকারীর সমন্বয়ে ৩ সদস্যের ৩টি ভ্যাকসিনেশন টিম গঠন করা হয়। তিনটি টিম গত ২৪ ও ২৫ মার্চ দুর্গমের ২৬টি উপজাতি ও বাঙালি পাড়ায় আউটব্রেক অনুসন্ধান ৬ মাস থেকে ১৫ বছরের কম বয়সী ৭০৩ জন শিশুকে হাম-রুবেলার টিকা প্রদান করে।

সদর ইউনিয়নের আউটব্রেক কার্যক্রমের অধিনে টিকা প্রদান করা পাড়া গুলো হল, পুরাতন তাউ পাড়া, নতুন তাউ পাড়া, লক্ষণ ঝিরি মুরুং পাড়া, লক্ষণঝিরি মুসলিম পাড়া, ক্ষুদিঝিরি মার্মা পাড়া, কালু মুরুং পাড়া (নতুন ও পুরাতন), কয়লা পুডার ঝিরি মার্মা পাড়া, বদলা পাড়া, সিনাই পাড়া, শিলাচন্দ্র পাড়া, নতুন লাইল্যা পাড়া, পুরাতন লাইল্যা পাড়া, খ্রিষ্টান পাড়া, ডলুরঝিরি মার্মা পাড়া, কাংকু উপর পাড়া, কলই পাড়া, বুলুং পাড়া, নতুন টুক্রইং পাড়া, মালা ঝিরি পাড়া, মাংখ্যাই পাড়া, অংহ্ণাই কারবারী পাড়া, মেরিং পাড়া, গন্ডু পাড়া, কাইরং পাড়া, অংহ্লা পাড়া, পারাউ মেম্বার পাড়া।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদুল হক বলেন, করোনা ভাইরাসের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে স্বাস্থ্য বিভাগ বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের সহযোগিতায় সমগ্র উপজেলায় হাম রুবেলা ক্যাম্পইন পরিচালনা করা হবে। সম্প্রতি সদর ইউনিয়নের আক্রান্ত হয়ে লামা হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ৩৩ জন বোগী সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে গেছে। তারা সকলে হাম রোগে আক্রান্ত ছিল।

পূর্বকোণ/রফিকুল-আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 139 People

সম্পর্কিত পোস্ট