চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০১ অক্টোবর, ২০২০

সর্বশেষ:

একটাই কথা ‘ঐক্য’

৯ মার্চ, ২০২০ | ৩:২৬ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

একটাই কথা ‘ঐক্য’

নগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা শেখ হাসিনার কর্মী হিসেবে অর্পিত দায়িত্ব শতভাগ পালন করব : ইঞ্জি. মোশাররফ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি বলেছেন, আওয়ামী লীগের দীর্ঘ সংগ্রামের ইতিহাস রয়েছে। এ দলটি একটি দেশ ও পতাকা এনে দিয়েছে। যার নেতৃত্ব দিয়েছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু এবং শেখ হাসিনার কর্মী হিসেবে আমাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব আমরা শতভাগ পালন করব। আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলের মনোনীত প্রার্থীদের বিজয়ী করে আমাদের প্রমাণ করতে হবে আমরা ঐক্যের শক্তিকে বিশ্বাস করি। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার উন্নয়নের কর্মকা-গুলো প্রত্যেক নেতাকর্মীদের মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌঁছে দিতে হবে।
তিনি গতকাল রবিবার কে সি দে রোডস্থ সংগঠনের অস্থায়ী কার্যালয়ে নগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি তাঁর বক্তব্যে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের মনোনয়ন প্রত্যাহারের আহ্বান জানান। প্রত্যাহার না করলে ভবিষ্যতে রাজনৈতিক জীবন কঠিন হয়ে যাবে বলেও হুঁশিয়ার করেন তিনি। তিনি বলেন, অসংখ্য নেতাকর্মীর ত্যাগ-তিতীক্ষা এমনকি আত্মবলিদানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ উপমহাদেশের প্রাচীনতম ঐতিহ্যবাহী একটি বৃহত্তম গণসংগঠনের মর্যাদায় অভিষিক্ত হয়েছে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেন, আমাদের অত্যন্ত দুঃখ হয় আমরা যারা দল করি আমরা মন্ত্রী ও এমপি হবার অপরাধে এখন আমাদের প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইতে পারবো না। দুনিয়ার কোথাও এমন নিয়ম নেই। নির্বাচনী এ আচরণ বিধির কারণে বিরোধী পক্ষ বিএনপি অনেক সুবিধা পাচ্ছে। এক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। তিনি বলেন, মুজিব শতবর্ষে এই প্রথম দলীয় পতাকা চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মুজিব শত বর্ষের এই উজ্জীবনী শক্তির উন্মেষ ঘটিয়ে আমাদেরকে বিজয়ের সঞ্চার ঘটাতে হবে।
চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেন, বাংলাদেশ এখন আর্থসামাজিক ও মানবিক সূচকে পাকিস্তানের চেয়ে সর্বক্ষেত্রে এগিয়ে। কোন কোন ক্ষেত্রে ভারতের চেয়েও আমরা এগিয়ে আছি।
শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যরিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের সাহায্য ছাড়াই পদ্মা সেতুর মত একটি মেগা প্রকল্পকে দৃশ্যমান করতে পেরেছি। এ ধরণের বহু মেগা প্রকল্প আজ বাস্তবায়নের পথে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বিশ্বসভায় বাংলাদেশের কীর্তি ও অর্জন যখন বহুলভাবে প্রশংসিত হচ্ছে তখন বিএনপিসহ আরো কয়েকটি দল সমালোচনার সুরে নেতিবাচক কথা-বার্তা বলছেন।
আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, বিদ্রোহী প্রার্থীরা দলের প্রতি আনুগত্য দেখালে দল তা বিবেচনা করবে।
দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ বলেন, আমরা অবশ্যই শক্তিশালী বিরোধী দল চাই এবং বিতর্ক ও ইতিবাচক সমালোচনাকে গ্রহণ করার মানসিকতা আমাদের আছে। কিন্তু কখনো দেশপ্রেম বিবর্জিত ধ্বংসাত্মক রাজনীতিকে আমরা প্রশ্রয় দিতে পারি না।
নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন বলেন, আওয়ামী লীগ ৩ দফায় ক্ষমতায় থাকার ফলে কিছু অনুপ্রবেশকারীর ঢল নেমেছে। এরা দুর্দিনে ছিলেন না, তারা সুদিনের সুবিধাভোগী মৌলভী। এদের চিহ্নিত করেছি।
উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের সকল গণমানুষের আশ্রয়। তাই আওয়ামী লীগের শাসনামলে এদেশের মানুষের সবচেয়ে বেশি ভাগ্য পরিবর্তনের দ্বার উন্মোচিত হয়েছে।
নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেয়র পদপ্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, আমি বিশ্বাস করি কিছু কিছু ক্ষেত্রে নাগরিক সমস্যা আছে। আমি নির্বাচিত হলে সকলের সহযোগিতায় একটি নান্দনিক চট্টগ্রাম গড়ে তুলতে সক্ষম হব।
নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতির বক্তব্যে বলেন, বিশ্বে যে দু’একটি রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বে স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে আওয়ামী লীগ তাদের মধ্যে অন্যতম।
নগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুকের সঞ্চালনায় বর্ধিত সভায় বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়–য়া, কেন্দ্রীয় উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য মো. আনিসুর রহমান, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, নগর মহিলা লীগের সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিন, নগর যুবলীগের আহ্বায়ক মো. মহিউদ্দিন বাচ্চু, নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহম্মেদ ইমু। উপস্থিত ছিলেন উত্তর জেলা আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান, নগর আ. লীগের সহ-সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, এডভোকেট সুনীল কুমার সরকার, এডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী, খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম, এম এ রশিদ, সম্পাদকম-লীর সদস্য আবদুচ ছালাম, নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, সৈয়দ হাসান মাহমুদ শমসের, এড. শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, জালাল উদ্দিন ইকবাল, আবদুল আহাদ, আবু তাহের, জহরলাল হাজারী প্রমুখ।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 127 People

সম্পর্কিত পোস্ট