চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

অনিয়মের অভিযোগ শুদ্ধ সুরে জাতীয় সংগীত প্রতিযোগিতায়

২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৫:০১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা, চন্দনাইশ

প্রথম স্থানে বিচারকদের প্রতিষ্ঠানটি

অনিয়মের অভিযোগ শুদ্ধ সুরে জাতীয় সংগীত প্রতিযোগিতায়

সারাদেশের ন্যায় চন্দনাইশে শুদ্ধ সুরে জাতীয় সংগীত পরিবেশন প্রতিযোগিতা গত ১৬ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিযোগিতায় বিচারকদের প্রতিষ্ঠানটি শ্রেষ্ঠ নির্বাচিত করায় অনিয়মের অভিযোগ করেছে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ।

উপজেলা অডিটরিয়মের শুদ্ধ সুরে জাতীয় সংগীত পরিবেশন প্রতিযোগিতার ২টি কলেজ ১০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ ২১টি প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। প্রতিযোগিতার নিয়ম অনুসারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রধান করে, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, একজন কলেজ শিক্ষক ও উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষকে বিচারক হিসেবে নিয়ম রয়েছে। সেই হিসেবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অন্যত্রে বদলি হয়ে যাওয়ায় মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ ৩ জনকে দিয়ে বিচারকার্য পরিচালনা করা হয়। বরমা ডিগ্রি কলেজ আমান ছফাবদরুন্নেছা মহিলা ডিগ্রি কলেজ, ১০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। চন্দনাইশে ৬টি কলেজ থাকলেও বরমা ডিগ্রি কলেজের কোন প্রভাষক না নিয়ে একজন প্রদর্শক রূপন কান্তি নাথকে এবং জোয়ারা বি.সি উচ্চ বিদ্যালয়ে সিনিয়র শিক্ষক অসীম চক্রবর্তীকে বিচারক হিসেবে নেয়া হয়। ফলাফলে দেখা যায়, বরমা ডিগ্রি কলেজ, জোয়ারা বি.সি উচ্চ বিদ্যালয় ও পূর্ব দোহাজারী আফজল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রথম নির্বাচিত হয়েছে। বরমা কলেজের প্রদর্শক, জোয়ারা বি.সি উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক বিচারক থাকায় এ ২টি প্রতিষ্ঠান প্রথম হওয়ায় অনিয়মের অভিযোগ তুলেছে অংশগ্রহণকারী কর্তৃপক্ষ। তাদের দাবি চন্দনাইশে ৬টি কলেজ, ২৬টি উচ্চ বিদ্যালয় থাকা স্বত্ত্বেও অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠান থেকে বিচারক নেয়ায় অনিয়ম হয়েছে। তাই তারা এ ফলাফল বাতিলের দাবি জানিয়েছে।

এ ব্যাপারে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রতন কুমার সাহা বলেছেন, নিয়ম অনুযায়ী কমিটি করা হয়েছে। তবে, কেন প্রদর্শককে বিচারক হিসেবে নেয়া হয়েছে এ বিষয়টি নির্বাহী কর্মকর্তা বলতে পারবেন। যেহেতু বিচার অধ্যায়ে প্রতিষ্ঠান প্রথম হয়েছে বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে নবাগত নির্বাহী কর্মকর্তা যোগদানের পর আলোচনা সাপেক্ষে তিনি পদক্ষেপ নেবেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ.ন.ম বদরুদ্দোজা বলেন, আমি অন্যত্র বদলি হওয়ার কারণে তাড়াহুড়োর মধ্যে কাজটি হয় এবং এ ব্যাপারে শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে আলাপ করবেন বলে জানান।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 69 People

সম্পর্কিত পোস্ট