চট্টগ্রাম সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০

মেধাবিকাশের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের দেশাত্মবোধের বিকাশ ঘটাতে হবে

২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৪:১৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা হ রাঙ্গুনিয়া

রাঙ্গুনিয়ায় নুরুন্নাহার স্মৃতি বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী

মেধাবিকাশের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের দেশাত্মবোধের বিকাশ ঘটাতে হবে

তথ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, মেধা বিকাশের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের মাঝে মূল্যবোধ, মমত্ববোধ ও দেশাত্মবোধের বিকাশ ঘটাতে অভিভাবকদের দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে হবে। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের এমন শিক্ষা দিতে হবে তারা যেন গুরুজনের প্রতি দায়-দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন হয়। বড় হয়ে বাবা-মা’কে যেন অবহেলা না করে, তাদের বৃদ্ধাশ্রমে পাঠিয়ে না দেয়। এ ধরনের মানসিকতা যাতে তাদের মধ্যে সৃষ্টি না হয় সেজন্য ছোটকাল থেকেই সেই শিক্ষাটা দিতে হবে। তবেই শিক্ষার্থীরা পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে গড়ে উঠবে। এভাবে আমাদের দেশটি আরও সুন্দর হবে। গতকাল (শুক্রবার) বিকালে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার সুখবিলাস উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ‘নুরুন্নাহার স্মৃতি বৃত্তি’র পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। সুখবিলাস ফিশারিজ এন্ড প্ল্যানটেশনের উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পদুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম কবির তালুকদার। প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম জর্জ কোর্টের আইনজীবী ও তথ্যমন্ত্রীর মাতা প্রফেসর এডভোকেট কামরুন নাহার বেগম। উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন সুখবিলাস ফিশারিজ এন্ড প্ল্যানটেশনের চেয়ারম্যান এরশাদ মাহমুদ। বিধু মুৎসুদ্দির সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন রাঙ্গুনিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাসুদুর রহমান, সুখবিলাস উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদ সভাপতি মো. খালেদ মাহমুদ, উপাধ্যক্ষ দুলাল কান্তি দাশ, সাবেক চেয়ারম্যান আবু জাফর, নাছির উদ্দিন সেলিম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বাদশা, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রিক্তা সেন, বৃত্তি পরীক্ষা পরিচালনা কমিটির নাজিম উদ্দিন, মোহাম্মদ রাসেল মাহমুদ প্রমুখ।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, জীবনে বড় হতে হলে স্বপ্ন দেখতে হয়। স্বপ্নহীন মানুষের মাঝে স্বপ্ন পূরণের তাগাদা থাকে না। তাই অভিভাবকদের অনুরোধ জানাবো ছাত্রছাত্রীদের স্বপ্ন দেখানোর জন্য। শুধু স্বপ্ন দেখে বসে থাকলে হবে না, সেই স্বপ্ন পূরণ করার জন্য প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। শিক্ষাটা শুধু স্কুলে নয়, পরিবার থেকেও অনেক কিছু শিখতে হয়।

তিনি বলেন, বৃত্তির অংকটা ছোট, কিন্তু ছাত্রছাত্রীদের উৎসাহিত করতে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। যেকোন জায়গায় একটা বই উপহার পেলেও আমরা খুব বেশি উৎসাহিত হতাম। আমরা অনেক সময় দৌড় প্রতিযোগিতায় একটা কাপ কিংবা প্লেট পুরস্কার হিসেবে পেতাম। স্কুলে যে পুরস্কার পেতাম তা ঘরে এসে মা বাবাকে দেখাতাম। সেটার যে আনন্দ সেই আনন্দ এখনও শরীরে লেগে আছে। জীবনের বহুপথ পাড়ি দিয়ে আজকের এই অর্জনের পেছনে সেই অর্জনগুলো সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করেছে।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
The Post Viewed By: 74 People

সম্পর্কিত পোস্ট