চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০

নির্বিচারে গাছ কাটার প্রতিবাদ চবিতে ৭ দফা দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন উপাচার্যকে স্মারকলিপি

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৩:২২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা হ চবি

নির্বিচারে গাছ কাটার প্রতিবাদ চবিতে ৭ দফা দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন উপাচার্যকে স্মারকলিপি

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) নির্বিচারে গাছ কাটার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে বিশ^বিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। গতকাল (বৃহস্পতিবার) দুপুর ১২টায় শহীদ মিনার চত্বরে সাত দফা দাবিতে এ কর্মসূচি পালিত হয়। মানববন্ধন শেষে শিক্ষার্থীরা উপাচার্য বরাবর একটি স্বারকলিপিও প্রদান করেন। অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী দেওয়ান তাহমিদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বন ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের রিটু রায়, নাট্যকলা বিভাগের মুশফিক উদ্দিন, দর্শন বিভাগের সোহেল রানা, জহির সব্যসাচী প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘বহু বছর ধরে ক্যাম্পাসের আশপাশের এলাকা থেকে গাছ কাটা হচ্ছে। বৃক্ষ নিধন করে প্রকৃতির উপর নির্মম প্রতিশোধ কখনোই মেনে নেওয়া যায় না। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ-প্রকৃতি ধ্বংসের এই মহাযজ্ঞের অবসান করতে হবে। কারণ, এ পাহাড়-প্রকৃতির জন্য চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দেশব্যাপী পরিচিত।

তারা আরও বলেন, বিশ্বিবিদ্যালয়ে এমন নির্বিচারে গাছ কাটার ফলে যেমন পরিবেশ হুমকির মুখে পড়ে, ঠিক তেমনি কমে যাচ্ছে বন্যপ্রাণী ও পশু পাখি। এভাবে পাহাড় কাটতে থাকলে একদিন এই ক্যাম্পাস সমতল হয়ে যাবে। আর হারাবে তার সৌন্দর্য ও ঐতিহ্য। তারা বলেন, বিগত ৩-৪ বছর ধরে যে হারে গাছ কাটা হচ্ছে দেখা যাবে আগামী ৫০ বছর পর এই ক্যাম্পাসের সব গাছ বিলীন হয়ে গেছে। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ১৭ শতাংশ বনাঞ্চল রয়েছে। তার বেশির ভাগ চট্টগ্রামেই। বিশ্বিবিদ্যালয়সহ সারা দেশে যদি বৃক্ষনিধন বন্ধ না হয় তাহলে আগামী ১০ বছর পর শ্বাস নেওয়াও কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়াবে। শিক্ষার্থীদের সাত দফা হলো, সৌন্দর্যবর্ধন, রাস্তা সম্প্রসারণের অজুহাতে ক্যাম্পাসের কোনো স্থানে গাছ কাটা যাবে না, গাছ কেটে ক্যাম্পাসে রাখা ও ক্যাম্পাসের ওপর দিয়ে গাছ পরিবহনের অনুমতি দেওয়া যাবে না, গাছ কাটা প্রতিরোধ ও পরিবেশ রক্ষায় অবিলম্বে আরও একটি কমিটি করতে হবে এবং তা কার্যকর রাখতে হবে, ক্যাম্পাসের বাইরের বন-পাহাড়ে গাছ কাটা প্রতিরোধ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষা করতে বন বিভাগ ও পরিবেশ অধিদপ্তরের সঙ্গে সমন্বয় করে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে, আগামী এক বছরের মধ্যে ক্যাম্পাসের সব বিলুপ্তপ্রায় এবং বিপন্ন প্রজাতির উদ্ভিদের তালিকা করতে হবে, মাটি, পানি, বাতাস তথা বনজ এলাকার পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর হওয়ায় ইউক্যালিপটাসসহ কোনো প্রকারের বিদেশি প্রজাতির গাছ বনায়ন করা যাবে না এবং অবৈধভাবে গাছ কাটা ও তা পরিবহনের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে পদক্ষেপ নিতে হবে।

The Post Viewed By: 74 People

সম্পর্কিত পোস্ট