চট্টগ্রাম শনিবার, ০৬ জুন, ২০২০

বইমেলায় ক্রেতার ভীড়

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ২:৪০ পূর্বাহ্ণ

মরিয়ম জাহান মুন্নী

বইমেলায় ক্রেতার ভীড়

আর মাত্র একদিন পরেই শেষ হতে চলেছে বাঙালির প্রাণের মেলা অমর একুশে বইমেলা। ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি। আর এ মাসেই আয়োজন করা হয় অমর একুশে বই মেলার। এই এক মাসের বইমেলা জুড়ে অনেক স্বপ্ন দেখে লেখক ও প্রকাশনী প্রতিষ্ঠানগুলো। তেমনি বই প্রেমীরাও এ মাসের জন্য অপেক্ষা করে বছর ধরে। কেনার অপেক্ষায় থাকে অনেকেই। তেমনি চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়াম চত্বরের জিমনেশিয়াম মাঠে আয়োজিত এক মাসের এ বইমেলা যথেষ্ট সাড়া পেয়েছে মাস জুড়ে। গতকাল সন্ধ্যার পরে মেলার প্রাঙ্গণ জুড়ে বইপ্রেমীদের লক্ষণীয় ভিড় চোখে পড়ে। নারী-পুরুষ, তরুণ-তরুণী থেকে শুরু করে সব বয়সী মানুষের ভিড় ছিল রাত ১০ টা পর্যন্ত। গল্পগুজবে মুখোর ছিল মেলার বাইরে ও ভিতরে। সবার হাতেই কম বেশি নতুন বইয়ের ব্যাগ দেখা যায়। একদিন আগে মেঘাচ্ছন্ন পরিবেশ আর গুঁটি গুঁটি বৃষ্টির কারণে

ক্রেতা শূন্য ছিল মেলা। কিন্তু সেদিনের বেচাকেনা পুষিয়ে নেয় বিক্রেতারা।

প্রথমা প্রকাশনী জানায়, এক দিনের বৃষ্টিতে যথেষ্ট ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু আজ ক্রেতার আগমনে বেচাকেনা বেড়েছে। আজ মোটামুটি ভালোই বিক্রি হয়েছে বই। এছাড়া শেষ মুহূর্তে বিভিন্ন প্রকাশনী বইয়ের উপরে দিচ্ছে বিশেষ ডিসকাউন্ট। কোনো বইয়ে ৫% ডিসকাউন্ট আবার কোনো বইয়ে ১৫% ডিসকাউন্ট চলছে।
‘ধানশি’ বইয়ের লেখক জাহেদ মোতালেব ও শিশু সাহিত্যিক তসলিম খাঁ বলেন, অমর একুশে বই মেলা শুরু হয় অনেক লেখকের মনের স্বপ্ন নিয়ে। একটি ভালো বই পাঠকের হাতে তুলে দিবে এমন আশায়। আবার সেই মেলায় বই প্রেমীরাও যায় পছন্দের আর ভালো বই কেনার আশায়। আশা-প্রত্যাশার সম্মিলনের মাধ্যমেই শেষ হচ্ছে মেলা। আমরা যথেষ্ট সাড়া পেয়েছি এবারের বইমেলা নিয়েও। সামনে আরো বই পাঠকদের হাতে তুলে দেয়ার চেষ্টা করবো।

তবে এমন অনেক আশা-প্রত্যাশার মাঝখানে প্রতি বছরই মেলায় প্রকাশিত হয় কিছু বই। আবার যথেষ্ট পাঠক প্রিয়তাও অর্জন করে সেই বইগুলো। এবারের মেলাও এমন কিছু বই অর্জন করেছে পাঠক প্রিয়তা। বিক্রেতারা জানায় এক মাসের এ মেলায় মোটামুটি সব রকমের বই বিক্রি হয়। কিন্তু প্রতি বছরই মেলা উপলক্ষে এমন কিছু বই প্রকাশিত হয় যেগুলো শুরু থেকেই পাঠক প্রিয়তা অর্জন করে। সেই বইগুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলা একাডেমির প্রকাশিত বঙ্গবন্ধুর একটি বইসহ পরিচিত কয়েকজন লেখকের বইও। এবারের বই মেলা উপলক্ষে বাংলা একাডেমি প্রকাশিত নতুন বইয়ের নাম ‘আমার দেখা নয়া চীন’। লেখক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিজে। ‘১৯৫২ সালে বঙ্গবন্ধু চীনে শান্তি সম্মেলনে গিয়েছিলেন। পূর্ববঙ্গ থেকে প্রতিনিধি দলের সদস্য হিসেবে তিনি আমন্ত্রিত ছিলেন।

এছাড়া বিশেষভাবে লক্ষণীয় শান্তি সম্মেলনে বাংলা ভাষায় বক্তৃতা দিয়েছিলেন তিনি। মনোজ বসু তাঁর বইয়ে এ কথা লিখেছেন। তার বিস্তারিত বর্ণনা আছে বইটিতে’। আরো রয়েছে আনিসুল হকের ‘এখানে থেমো না’, কার্টুনিস্ট আহসান হাবীবের ‘উন্মাদ জোকস’, ও মারজুক রাসেলের দেহ বণ্টনবিষয়ক দ্বিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষর ‘চাবি ছাড়াও মায়ের আঁচলে আমিও তো বাঁধা থাকি’। স্টলের বিক্রেতারা বলেন অনেক বইয়ের মধ্যে এ বইগুলো যথেষ্ট পাঠকপ্রিয়তা অর্জন করেছে। আরো রয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বই, আছে উপন্যাস, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী, ছড়া, রম্য, তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক বই ও লেখক শাহরিয়ারের ‘বেসিক আলী’ বইটি।

The Post Viewed By: 121 People

সম্পর্কিত পোস্ট