চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০১ অক্টোবর, ২০২০

ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক ফাঁকি!

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ২:২৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক ফাঁকি!

তিন কোটি টাকার জর্দা জব্দ

৩৬ লাখ ৬৭ হাজার ৯৫০ টাকার ভ্যাট ও ১ কোটি ৮৩ লাখ ৩৯ হাজার ৭৫০ টাকার সম্পূরক শুল্ক ফাঁকির অভিযোগে প্রায় ৩ কোটি ১৭ লাখ টাকার জর্দা জব্দ করেছে কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটের প্রিভেন্টিভ দল।
গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মিরসরাই উপজেলার হিঙ্গুলী ইউনিয়নে আবছার ট্রেডার্স নামের এক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের গুদামে অভিযান চালিয়ে এসব জর্দা আটক করা হয়। পরে জর্দা ভর্তি কার্টনগুলো নগরীর সদরঘাট থানার পুরাতন কাস্টম এলাকার ভ্যাট কমিশনারেটের গুদামে রাখা হয়।
গতকাল বুধবার মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক বিধিমালা, ২০১৬ এর বিধি ৬১(৬) অনুযায়ী ওই ঘটনায় অনিয়ম ও কর ফাঁকির মামলা দায়ের করা হয়েছে। যার মামলা নং নম্বর- ০২/২০২০। মামলার প্রয়োজনীয় তদন্ত ও প্রক্রিয়া সম্পন্ন শেষ করে জব্দ করা জর্দা আইন অনুযায়ী নিলামে বিক্রি করে ওই টাকা রাষ্ট্রের অনুকূলে জমা করবে চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনার কর্তৃপক্ষ।
চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনার মোহাম্মদ এনামুল হক জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমাদের প্রিভেন্টিভ দল অভিযান চালিয়ে ঢাকার কাউছ কেমিকেল ওয়ার্কসের তৈরি ২৫৮ কার্টন ‘হাকীমপুরী’ জর্দা পাই। এর মধ্যে ৫০ গ্রামের ২১৬ কৌটার ১০০ কার্টন এবং ২৭৬ কৌটার ১৫৮ কার্টন জর্দা রয়েছে। যার মোট ওজন ৩ হাজার ২৬০ দশমিক ৪০ কেজি। এসব জর্দার ক্রয়মূল্য ৯৭ লাখ ৮১ হাজার ২০০ টাকা। এর সঙ্গে ভ্যাট হিসেবে ৩৬ লাখ ৬৭ হাজার ৯৫০ টাকা ও সম্পূরক শুল্ক হিসেবে ১ কোটি ৮৩ লাখ ৩৯ হাজার ৭৫০ টাকা মিলে চালানটির মূল্য দাঁড়ায় ৩ কোটি ১৭ লক্ষ ৮৮ হাজার ৯০০ টাকা।
মোহাম্মদ এনামুল হক আরো জানান, আটকের সময় প্রতিষ্ঠানের মালিককে পাওয়া যায়নি। তবে কর্মচারী মো. সুমন মজুমদার চালানের স্বপক্ষে কিছু ট্রাক চালান (ডেলিভারি চালান) ছাড়া মূসক ও সম্পূরক শুল্ক পরিশোধ সংক্রান্ত কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। তাই মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক বিধিমালা ২০১৬ এর বিধি ৬০ (৩) ও বিধি ৮৪ অনুযায়ী ‘ক্রোক ও জব্দ তালিকা, মূসক ১২.৩’ মূলে জব্দ করে আনা হয়।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 144 People

সম্পর্কিত পোস্ট