চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা নেবে না চবি-বুয়েট

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৭:০৭ অপরাহ্ণ

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা নেবে না চবি-বুয়েট

আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তাব রেখেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

তবে সমন্বিত এ পরীক্ষায় অংশ নেবে না চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)। তারা আগের মতো নিজস্ব পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করবে। গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলের ২৩৮তম সভায় আগের নিয়মানুযায়ী চলতি বছরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কে এম নুর আহামদ। তিনি পূর্বকোণকে বলেন, ‘এ বছর সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা কার্যক্রম পর্যবেক্ষণের পর ইউজিসির সঙ্গে আলাপ করে আগামী বছর থেকে এতে অংশ নেওয়ার চিন্তা করবে কর্তৃপক্ষ। তবে এ বছর সমন্বিত পরীক্ষায় অংশ নেবে না চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়’। তবে এখনো চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন বিশ^বিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার। তিনি পূর্বকোণকে বলেন, ‘আজকে একাডেমিক কাউন্সিলের কমিটি হয়েছে। সম্মানিত সদস্যরা বিভিন্ন মত দিয়েছেন। কেউ কেউ বলেছেন ৭৩ এর অধ্যাদেশ অনুযায়ী আমরা সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার যাব না। অনেকে বলেছেন মহামান্য রাষ্টপতির সম্মানার্থে এ বছর পর্যবেক্ষণ করে আগামী বছর সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিলে ভালো হবে। আমরা সবার মতামত লিখিত আকারে ইউজিসির মিটিংয়ে উপস্থাপন করবো। তারপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেওয়া হবে।’ এদিকে বুধবার বিকালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় নিজস্ব পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয় বলে বুয়েটের ছাত্র কল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক মিজানুর রহমান জানিয়েছেন। তিনি গতকাল বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের একাডেমিক সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, আগের নিয়মেই শিক্ষার্থী ভর্তি নেওয়া হবে। সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় না যাওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, “এর পেছনে তেমন কোনো কারণ নেই। আমরা সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিপক্ষে নই। তবে আমরা আমাদের নিয়মেই শিক্ষার্থী ভর্তি নেব।” গত ১২ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনে (ইউজিসি) অনুষ্ঠিত এক সভায় দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এতদিন বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আলাদা আলাদা পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ায় এইচএসসি পাস করা শিক্ষার্থীদের দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ঘুরে ঘুরে পরীক্ষা দিতে হত। একই বিষয়ে ভর্তি হওয়ার পরীক্ষা দিতে তাদের ভিন্ন ভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ভিন্ন ধরনের প্রস্তুতি নিতে হত। এ ব্যবস্থার বদলে সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা এক

দিনে এক পদ্ধতিতে নেওয়ার এই সিদ্ধান্ত হয়েছে, একেই বলা হচ্ছে সমন্বিত বা গুচ্ছ পদ্ধতি।

এ পদ্ধতিতে একজন শিক্ষার্থী একবার পরীক্ষা দিলেই চলবে, প্রাপ্ত নম্ব^রের ভিত্তিতে তাকে গুচ্ছে থাকা কোনো একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ দেওয়া হবে, যেভাবে মেডিকেল কলেজগুলোতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়।

বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক শাখা থেকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের উচ্চ মাধ্যমিকের পাঠ্যসূচির আলোকে প্রণীত পৃথক প্রশ্নপত্রে এই ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভুক্ত কলেজগুলোর স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তির জন্যও এই প্রক্রিয়া প্রযোজ্য হবে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 152 People

সম্পর্কিত পোস্ট