চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

বইমেলায় ভিড়-বিক্রি দুটোই বাড়ছে

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৫:৩৯ পূর্বাহ্ণ

অনুপম চৌধুরী

বইমেলায় ভিড়-বিক্রি দুটোই বাড়ছে

বাড়ছে ভিড়। গতকাল বিকেল হতেই মেলায় বইপ্রেমী দর্শনার্থীর ভিড় লক্ষ করা গেছে। শুরুর দিকের বেশির ভাগ মেলায় ঘুরতে এলেও এখন প্রায় বইয়ের ক্রেতা। দশ তারিখ থেকে শুরু হওয়া এই মেলা চলবে পুরো ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এরই মধ্যে গত মঙ্গলবার থেকে শুরু হল লেখক সম্মিলন। দেশের খ্যাতিমান লেখকদের সম্মিলন চলবে আজ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। আর মেলার সময়ও এখন মাঝপথে, সবমিলিয়ে মেলায় ভিড় বাড়ছে। সাথে বিক্রিও কিছুটা বেড়েছে। গতবারের চেয়েও এবারের এই বইমেলার পরিসর বেড়েছে। নগরীর এমএ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেশিয়াম চত্বরে চলছে অমর একুশে বইমেলা।

সুমন চাকমা রাঙ্গামাটি থেকে এই বইমেলা দেখতে এসেছেন। বড় পরিসরে বিপুল বইপ্রেমী দেখে তিনি বেশ উচ্ছ্বসিত। তিনি পূর্বকোণকে বলেন, ‘বছরের এই একটা মাসের জন্য অপেক্ষায় থাকি। যত দূরেই থাকি না কেন চেষ্টা করি একবার হলেও বইমেলায় আসার। স্তরবিন্যাস খুবই চমৎকার হয়েছে। পছন্দের স্টল খুঁজে পেতে খুব একটা বেগ পেতে হয়নি। আর হাঁটা-চলার প্রচুর জায়গাও রয়েছে। এটা খুব ভালো একটা দিক। এতদূর ভ্রমণ করে আসার পরেও খুব একটা একঘেয়েমি লাগছে না।’ এবারের বইমেলা মুজিব বর্ষকে সামনে

রেখে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করা হয়েছে। মেলা প্রাঙ্গণে ঢুকতেই চোখে পড়বে মানবিক কার্যক্রমের সব স্টল। রয়েছে ফুডকোর্টও। নানা ধরণের মুখরোচক খাবারও রয়েছে এখানে। ঘুরতে ঘুরতে ক্লান্ত হলেই কিছু খেয়ে নিতে পারছেন সবাই।

বইমেলায় ঘুরতে ঘুরতেই খড়িমাটি প্রকাশনার সামনে পাওয়া গেল জেলা পরিষদের সদস্য শাহিদা আক্তার জাহানকে। তিনিও এবার বই প্রকাশ করেছেন। খড়িমাটি প্রকাশন থেকে প্রকাশ পেল তার প্রথম বই ‘বঙ্গবন্ধু থেকে শেখ হাসিনা ও ভাবনা বিশ^’। বই সম্পর্কে তিনি পূর্বকোণকে জানানÑ ‘আগে থেকেই পত্র-পত্রিকায় লেখালেখি করতাম। সেই লেখালেখির হাত ধরে এই বই করা। আমরা রাজনীতি করি, কিন্তু রাজনীতির অনেক বিখ্যাত মানুষের ত্যাগ সম্পর্কে আমরা জানি না। তরুণ প্রজন্ম যাতে সঠিক ইতিহাস জেনে রাজনীতি করে সেইজন্যে এই বই।’
বিকেল থেকেই অন্যধারার স্টলে লম্বা লাইন দেখা যায়। কারণ স্টলে ছিল সময়ের জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক সাদাত হোসাইন। তার ভক্তরা প্রিয় লেখককে এক পলক দেখার জন্য আর লেখকের অটোগ্রাফ নিয়ে বইটি কেনার জন্য এই লাইন ধরেছে। লাইন ধরে বই কিনতে আসা মহসীন কলেজের শিক্ষার্থী অন্যান্য পূর্বকোণকে জানানÑ ‘আগেও ভাইয়ার বই পড়তাম, এবার বইয়ে ওনার অটোগ্রাফ আর একটা সেলফি তোলার জন্য লাইন ধরেছি। ভাইয়ার লেখা আমার খুব ভালো লাগে।’

অন্যধারা স্টলের বিক্রেতা ইফতাদুল পূর্বকোণকে জানান- ‘কোন বিশ্রাম পাইনি আজ। বই বিক্রিও খুব ভালো হয়েছে। অন্যদিনের তুলনায় অনেক ভালো বিক্রি হয়েছে। সাদাত ভাইয়ার পাঠক সারাদেশেই আছে, চট্টগ্রামেও কম নয়’।
গতবছর ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে চট্টগ্রামে প্রথম সম্মিলিত বইমেলার আয়োজন করা হয়। যা দ্বিতীয় বৃহত্তর বইমেলা হিসেবে দেশজুড়ে প্রশংসিত হয়েছে। এবারের বইমেলা আরও জমজমাট হবে বলে আশা করছেন আয়োজকরা। নগরীর কাজীর দেউড়ি থেকে লালখানবাজার এদিকে লাভলেইন থেকে নানা রঙের বইমেলার ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে আশপাশের রাস্তা। সিসিটিভির আওতায় থাকবে পুরো বইমেলা প্রাঙ্গণ।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 139 People

সম্পর্কিত পোস্ট