চট্টগ্রাম বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

তাবলীগের ইজতেমা নিয়ে দু’পক্ষ মুখোমুখি সীতাকু-ে

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৩:২৯ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা হ সীতাকু-

‘জেলা প্রশাসকের অনুমতি লাগবে’

তাবলীগের ইজতেমা নিয়ে দু’পক্ষ মুখোমুখি সীতাকু-ে

সীতাকু-ের বাড়বকু-ে তাবলীগ জামায়াতের সাদ অনুসারীদের আয়োজিত ইজতেমা বন্ধের আবেদন জানিয়েছে আল্লামা আহমদ শফি পন্থীরা। এ নিয়ে দুই পক্ষ থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করলেও পুলিশ বলছে জেলা প্রশাসকের অনুমতি ছাড়া কেউ ইজতেমা করতে পারবে না। তাই অনুমতি না আনা পর্যন্ত সাদ পন্থীদের প্যান্ডেল নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখতে পরামর্শ দিয়েছেন ওসি। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সীতাকু- উপজেলার বাড়বকু- ইউনিয়নের সাগর পাড়ে জেএমআই কারখানা সংলগ্ন এলাকায় প্রথমবারের মত একটি ইজতেমার আয়োজন করে ভারতের সাদ পন্থী তাবলিগ জামাত। আগামী ৬,৭ ও ৮ মার্চ এ ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে। এ নিয়ে আয়োজকরা ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। বিশাল এলাকাজুড়ে গত কয়েকদিন ধরে নির্মাণ করা হচ্ছে প্যান্ডেল। এদিকে এখানে ইজতেমার খবর পেয়ে

গতকাল (মঙ্গলবার) এই ইজতেমা বন্ধের জন্য সীতাকু- থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে লিখিত আবেদন করেন প্রতিপক্ষ আল্লামা শফির অনুসারী আলেম, ওলেমাগণ। অভিযোগে স্বাক্ষর করেন, মোজাহেরুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম ও শায়কুল হাদীস মাওলানা লোকমান হাকিম, হাটহাজারী মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মুফতি জসিম উদ্দিন, দারুল মারিফ মাদ্রাসার নায়েবে মুহাতামিম মাওলানা ফোরকান খলিল, শুলকবহর মাদ্রাসার নায়েবে মুহাতামিম মাওলানা হারুন, বাথুয়া মাদ্রাসার নায়েবে মুহাতামিম মাওলানা ইলিয়াছ, মেজবাহুল ইলুম মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা আবদুল জাব্বার প্রমুখ।

থানায় দেওয়া লিখিত আবেদনে তারা বলেন, বাংলাদেশের টঙ্গিতে ইতিমধ্যেই বিশ^ ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া আর কোন ইজতেমা নেই। দিল্লির মাওলানা সাদ আমাদের নবী রাসূলের শানে অশালীন কথা, সাহাবাদের সমালোচনা, কুরআন হাদীসের মনগড়া ব্যাখ্যা, শরীয়ত বিরোধী ভ্রান্ত্র আকীদার কারণে তারা এতেয়াতী বাতিল ফেরকায় পরিণত। তাই বর্তমান ধর্মবান্ধব সরকার ২০১৮ সাল থেকে সাদকে বাংলাদেশে আসার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। এ কারণে এ ইজতেমা বন্ধ করার দাবি জানান তারা। অন্যথায় সেখানে শান্তি-শৃঙ্খলা বিনষ্ট হতে পারে মন্তব্য করেন তারা।
এদিকে গতকাল (মঙ্গলবার) দুপুরে দিল্লির মাওলানা সাদ’র পক্ষ সীতাকু- মডেল থানার একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এতে তারা প্রতিপক্ষ ষড়যন্ত্র করছে দাবি করে ইসালমী দাওয়াতি কাজ তথা আগামী ৬-৮ মার্চ পর্যন্ত তিন দিনব্যাপী ইজতেমা করার অনুমতি চান। এরপর তারা সীতাকু- উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম আল মামুনের কাছেও একই দাবি জানান।

ইজতেমার আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগে স্বাক্ষর করেন, মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন, মো. মাহাবুবুর রহমান, নুরুল ইসলাম ও মো. ওয়াসিম।

তারা লিখিত আবেদনে বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানে স্বাধীনভাবে ধর্ম পালন করার নাগরিক অধিকার রয়েছে। তারা ইজতেমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।
সীতাকু- থানার ওসি (তদন্ত) শামীম শেখ বলেন, বাড়বকু-ে একপক্ষ ইজতেমা করতে চান, আবার অন্য একটি পক্ষ এই ইজতেমা বন্ধ করতে চান। বিষয়টি স্পর্শকাতর। আমরা বলেছি এখানে ইজতেমা করতে হলে জেলা প্রশাসকের অনুমতি লাগবে। অনুমতি ছাড়া কেউ ইজতেমা করতে পারবে না। নইলে দুই পক্ষের মধ্যে শান্তি-শৃঙ্খলা ভঙ্গের আশংকা রয়েছে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 70 People

সম্পর্কিত পোস্ট