চট্টগ্রাম রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

প্রশিক্ষিত কর্মী পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৩:২৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

সার্কিট হাউসে মন্ত্রী বীর বাহাদুর

প্রশিক্ষিত কর্মী পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

দক্ষ শ্রমিক পাঠিয়ে দেশের অর্থনীতি এগিয়ে নিতে চাই : প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেছেন, দক্ষতার অভাবে বাংলাদেশের শ্রমিকরা বিদেশে উপযুক্ত মজুরি পান না। যুুগের সাথে তাল মিলিয়ে কারিগরি জ্ঞান অর্জন করলে বিদেশে উপযুক্ত মজুরি পাওয়া যায়। তিনি গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় সার্কিট হাউসে বৈদেশিক কর্মসংস্থানের জন্য দক্ষতা ও সচেতনতা শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়। ‘মুজিববর্ষের আহ্বান, দক্ষ হয়ে বিদেশ যান, জেনে বুঝে বিদেশ যাই, অর্থ-সম্মান দুটোই পাই’- এই স্লোগানে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। বীর বাহাদুর বলেন, নারী কর্মীরা বিদেশে গেলে বেশি হয়রানির শিকার হয়। তারা বিদেশে গিয়ে গৃহকাজ করতে পারে না। সে জন্য গৃহকাজের প্রশিক্ষণ দেওয়া প্রয়োজন। তবে বিদেশে শ্রমিক পাঠানোর আগেই দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা জানা দরকার। ভাষাগত দক্ষতা আরও বেশি দরকার। শ্রম বাজারের চাহিদা অনুযায়ী ভাষা শিখিয়ে দক্ষ করে কর্মী পাঠালে অর্থ ও সম্মান দুটোই মিলে। তিনি আরও বলেন, দক্ষ

জনশক্তি গড়ে তুলতে পারলে শুধু বিদেশে নয়, দেশেও তাদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। নির্দিষ্ট ও বৈধ রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে প্রশিক্ষিত কর্মীদের বিদেশের শ্রম বাজারে পাঠাতে পারলে দালালদের দৌরাত্ম্য রোধ হবে। তাই প্রতারণা থেকে রক্ষা পেতে হলে দালালদের বিরুদ্ধে জনসচেতনতার বিকল্প নেই। বীর বাহাদুর বলেন, প্রবাসীদের পাঠানো বৈধ রেমিটেন্স আমাদের দেশের অর্থনীতিতে অগ্রণী ভূমিকা রাখছে। কিছু কিছু অদক্ষ নারী-পুরুষ শ্রমিক অতি লোভে জায়গা-জমি বিক্রি করে দালালের মাধ্যমে বিদেশে যাচ্ছে। মাথার ঘাম পায়ে ফেলে কাজ করেও ন্যায্য মজুরি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তারা। অনেকেই নির্যাতন ও কাজের চাপ সহ্য করতে না পেরে টাকা-পয়সা হারিয়ে দেশে ফিরে আসে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টানা ক্ষমতায় থেকে দেশের কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলোকে ঢেলে সাজিয়েছেন। ফলে দেশের অনেক বেকার যুবক ভাষা শিখে ও নির্দিষ্ট ট্রেডে কারিগরি প্রশিক্ষণ নিয়ে দক্ষতা অর্জনের মাধ্যমে বিদেশের বিভিন্ন কোম্পানিতে কর্মসংস্থানের সুযোগ পাচ্ছে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি বলেন, সৌদি আরবের শ্রম বাজারে সম্ভাবনা থাকা সত্বেও আর শ্রমিক নিচ্ছেনা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরের সুফল হিসেবে চলতি মাসের মধ্যেই সংযুক্ত আরব-আমিরাতের শ্রম বাজার খোলার সম্ভাবনা রয়েছে। জাপান ও চায়নার সাথে আমাদের চুক্তি হয়েছে। যুবক-যুবতীরা দেশের কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলো থেকে নির্দিষ্ট ট্রেডে প্রশিক্ষণ নিয়ে ও ভাষা শিখে সেসব দেশে বৈধভাবে যেতে পারবে। আমরা দক্ষ শ্রমিক পাঠিয়ে দেশকে অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে নিতে চাই। বর্তমানে দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ জনসম্পদে পরিণত করতে হবে। তবেই স্বার্থক হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন।

প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী বলেন, দেশে কারিগরি প্রশিক্ষণের জন্য ৬৪ জেলায় ৭০টি টিটিসি ও ৬টি আইএমটি রয়েছে। সরকার এগুলোকে আধুনিকায়ন করেছে। ৪০টি টিটিসির নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে। আরো ৬০টি প্রকল্প ডিপিপিতে প্রস্তুত হচ্ছে। সরকার প্রবাসীদের উপযুক্ত ও দক্ষ জনশক্তি হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রতি উপজেলায় টিটিসি প্রশিক্ষণকেন্দ্র স্থাপন করছে। এ বছর ৫০ হাজার কর্মী বিদেশে পাঠানোর টার্গেট নেওয়া হয়েছে।
চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. আহমেদ মনীরুছ সালেহীন। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন যুগ্মসচিব ড. মোজাফ্ফর আহমদ। উপস্থিত ছিলেন বিভাগীয় কমিশনারের স্থানীয় সরকার পরিচালক দীপক চক্রবর্তী, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মো. নুরুল আলম নিজামী, বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন, রাঙামাটি জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ, খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস, বান্দরবান জেলা প্রশাসক দাউদুল ইসলাম, সিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আমেনা বেগম, জেলা পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হক, চাঁদপুর জেলার এডিএম মো. জামাল হোসেন, রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এ কে এম এহছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাবরিনা আফরিন মুস্তফা।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 160 People

সম্পর্কিত পোস্ট