চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০১ অক্টোবর, ২০২০

সর্বশেষ:

আগুনের দৃশ্য ফেসবুকে দেখে নেভাতে ছুটে আসেন ফারুক

১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৪:৪৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

আগুনের দৃশ্য ফেসবুকে দেখে নেভাতে ছুটে আসেন ফারুক

‘বন্ধুর ফেসবুকে হঠাৎ আগুনের একটি ভিডিও দেখতে পাই। কিন্তু তখনও জানিনা আগুন কোথায় লেগেছে। হঠাৎ আরেকটি ভিডিওতে আমার ঘরের দৃশ্য চোখে পড়ে, বুঝতে বাকি ছিল না আমার ঘরে আগুন লেগেছে। তাড়াহুড়ো করে আগুন নেভাতে ছুটে আসি, কিন্তু কিছুই করতে পারিনি। সব কিছুই আগুনে পুড়ে গেছে’।

কথাগুলো বলেন, নগরীর পাঁচলাইশ থানাধীন নওশা মিয়া গলির ডেকোরেটার্স কলোনির বস্তিতে বসবাস করা ওমর ফারুক। গতকাল শুক্রবার সকালে ওই কলোনিতে লাগা আগুনে পুড়ে যায় তার ঘরটিও। ওমর ফারুক সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্ন কর্মী। প্রতিদিনের মতোই সকাল নয়টায় ঘর থেকে কাজে বের হন ওমর ফারুক। কাজের ফাঁকে ফেসবুকে আগুন লাগার দৃশ্য দেখে নেভাতে ছুটে আসেন তিনি। তবে আসার আগেই সব পুড়ে ছাই হয়ে যায়। ওমর ফারুক পূর্বকোণকে বলেন, ‘ফেসবুকে আগুনের দৃশ্য দেখে আসলেও আগেই ঘর পুড়ে যায়। সারা বছর যা সঞ্চয় করেছি, সব আগুনে পুড়ে গেছে। কিছুই রইলো না আর। কলোনিতে প্রায় শতাধিক ঘর রয়েছে, সবগুলোই পুড়ে গেছে। কেউ কিছুই বের করতে পারেনি। সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে’।

আগুন লাগার কারণকে ষড়যন্ত্র উল্লেখ করে ওমর ফারুক বলেন, ‘বারবার একই স্থানে আগুন, এটা আমাদের মতো নি¤œ আয়ের মানুষদের উচ্ছেদের একটা পরিকল্পনা। আমরা যেন এখানে না থাকতে পারি, সেজন্যই এমন আগুন লাগানো হচ্ছে। তা না হলে, একই সময়ে কেন আগুন লাগে এখনে, প্রশ্ন রাখেন তিনি’।
ডেকোরেটার্স কলোনিতে যারা বসবার করেন তাদের সবাই নি¤œ আয়ের মানুষ। এদের কেউ বাসা বাড়িতে আবার কেউ দিনমজুরের কাজ করে থাকেন। অনেকেই রিকশা চালিয়ে তাদের সংসার চালান। তার থাকার জন্যই এই স্থানে ঠাঁই করে নেন তারা। মূলত নাম মাত্র টাকায় মাথা গোঁজার ঠাঁই পাওয়ায় বসবাস করেন তারা। যারা দিনের আলো দেখার সাথে সাথেই নেমে পড়েন জীবন যুদ্ধে। তবে আগুনে হতাহতের কোন ঘটনা না ঘটলেও পুড়ে যায় এসব নি¤œ আয়ের মানুষের সঞ্চয়টুকু।

শাহনাজ বেগম। ঘটনার সময় তিনি পাশের ঘরে বসে সন্তানকে নাস্তা খাওয়াচ্ছিলেন। চারদিকে আগুন আগুন চিৎকার শুনে বেরিয়ে আসেন। পানি ছিটিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টাও করেন তিনি। তবে চোখের সামনেই পুড়ে যেতে দেখলেন তিনি।

শাহনাজ বেগম পূর্বকোণকে বলেন, ‘পানি যত ছিটাতে যাই, আগুন তত উপরে ওঠে পড়ে। চোখের সামনেই ঘর পুড়ে যেতে দেখেছি। কিন্তু অসহায় হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলাম। গরীবদের উপর কেন বারবার এমন অত্যাচার করা হচ্ছে। আমরা এর বিচার চাই’।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 133 People

সম্পর্কিত পোস্ট