চট্টগ্রাম রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

প্রাণ ফিরে পেয়েছে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত

২৯ জানুয়ারি, ২০২০ | ৪:০২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রাণ ফিরে পেয়েছে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত

৪১নং দক্ষিণ পতেঙ্গা

নগরীর পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত আবারো ফিরে পেয়েছে তার নিজস্ব প্রাণ। অবৈধ কোন স্থাপণা না থাকায় পুরো সমুদ্র পার চোখ জুড়ে দেখার সুযোগ হয়েছে। তাই সাপ্তাহিক ছুটির দিন ছাড়াও অন্যান্য দিনে দর্শনার্থীরা পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে ভিড় করছে।

অথচ কিছুদিন আগেও সেখানে ছিলা সারি সারি অবৈধ দোকান। শামুক ঝিনুক আর আচারের দোকানে ঢাকা পড়েছিল সদ্য নির্মিত সমুদ্রে হাঁটার রাস্তা। আরো ছিল বিপুল পিয়াজু ও কাঁকরা ভাজার দোকান। এসব দোকানের জন্য হাঁটার কোন জায়গাই ছিলনা। আর দোকানদারদের টানাটনিতে অতিষ্ঠ হয়ে যেত দর্শনার্থীরা।
পরে গত ১৫ জানুয়ারি পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতের আধা কিলোমিটার এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রায় ৩০০ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)। অভিযানে রিং রোডের প্রায় আধা কিলোমিটার জায়গা উদ্ধার করে সিডিএ।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে আসা দর্শনার্থী মো. জামাল পূর্বকোণকে বলেন, কোন দোকানপাট ছাড়া সমুদ্র সৈকত দেখতে পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। পরিবার নিয়ে ঘুরতে এসে সৈকতে প্রাণ খুলে নিঃশ্বাস নিতে পারছি। দোকানপাট না থাকা কোলাহলও কম। এখন দেখার বিষয় কত দিন এই অবস্থা ধরে রাখা যায়।

নগরীর বহদ্দারহাট থেকে বেড়াতে আসা দর্শনার্থী সাদিয়া ইসলাম জানান, ছুটির দিন না হওয়ায় সৈকতে দর্শনার্থী কম। সেই সাথে কোন দোকান নেই মূল সমুদ্র সৈকতে। ফলে সৈকতে হাঁটতে খুব ভাল লাগছে। আর দোকান না থাকা সৈকতে ময়লা আবর্জনাও কম। এদিকে পতেঙ্গা সৈকতের মূল ফটকে ব্যক্তি মালিকানাধীন দোকানদার মো. মুছা জানান, সৈকতে অবৈধ কোন দোকান না থাকায় দর্শনার্থীরা এদিকের দোকানে আসছে। তাই ব্যবসাও ভাল যাচ্ছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ থাকবে যেন অবৈধ কোন দোকান বসাতে না পারে সেটি নিশ্চিত করতে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে। এতে সৈকত ভাল থাকবে। দর্শনার্থীরাও স্বস্তি পাবে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 531 People

সম্পর্কিত পোস্ট