চট্টগ্রাম রবিবার, ০৫ জুলাই, ২০২০

সর্বশেষ:

প্রাথমিক শিক্ষায় মা-সমাবেশের গুরুত্ব

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ১:২৮ পূর্বাহ্ণ

মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন

প্রাথমিক শিক্ষায় মা-সমাবেশের গুরুত্ব

নেপোলিয়ন বলেছিলেন ‘আমাকে একজন শিক্ষিত মা দাও, আমি একটি শিক্ষিত জাতি দিব’। সুতরাং একথা অনস্বীকার্য যে, সন্তানের ভবিষ্যৎ গঠনে মায়ের ভূমিকাই প্রধান। সন্তানের নৈতিক চরিত্র গঠন ও আনুষ্ঠানিক শিক্ষায় অভিভাবক হিসেবে মায়ের গুরুত্ব সবচেয়ে বেশি, যাকে গুরুত্ব দিয়ে শিক্ষার ভিত তৈরি করা গেলে তা আরো বাস্তবমুখী ও গুণগত মানের হয়ে উঠবে সন্দেহ নেই। জন্মের পর অসহায় শিশুকে শত প্রতিকূলতা পেরিয়ে মা-ই কথা বলতে, পথ চলতে শেখান। সন্তানের সুন্দর ভবিষ্যৎ গঠনে মায়ের ভূমিকাই অপরিসীম।
প্রাথমিক শিক্ষা হচ্ছে একটি শিশুর সুদীর্ঘ পথ-পরিক্রমার প্রারম্ভিক ধাপ। মায়ের হাত ধরে গুটিগুটি পায়ে যখন একটি শিশু প্রথমবারের মতো বিদ্যালয়ের আঙ্গিনায় পা রাখে, তখন শুরু হয় তার নতুন জগতে পথচলা। আর এই নতুন পথচলাকে আরো মসৃণ করতে একজন মায়ের সচেতনতাই সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ। একটি শিশু দিনের অধিকাংশ সময় বিদ্যালয়ে অবস্থান করে, সেক্ষেত্রে সহপাঠী ও শিক্ষকদের সাথে তৈরি হয় মিথস্ক্রিয়ার অবারিত সুযোগ। একজন শিশুর প্রকাশভঙ্গি, আচরণ, শেখার ধরন অন্যশিশুদের থেকে ভিন্ন। আর এই বিষয়গুলো খুব সুন্দরভাবে পর্যবেক্ষণের সুযোগ হয় একজন শিক্ষকের। মা ও শিক্ষকের সঠিক পর্যবেক্ষণ এবং সে অনুযায়ী সন্তানকে গড়ে তোলার পদ্ধতি অনুসরণ করলে একটি শিশু ভবিষ্যতে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠবে এতে কোন সন্দেহ নেই। সেক্ষেত্রে মা সমাবেশের গুরুত্ব অনস্বীকার্য। প্রাথমিক শিক্ষা পদ্ধতিতে নিয়মিত মা-সমাবেশ আয়োজন সন্তানের সঠিক ও সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে অনন্য ভূমিকা পালন করে থাকে। এজন্য প্রতিমাসে বিদ্যালয়গুলোতে মা-সমাবেশ আয়োজনের উপর জোর দেওয়া হয়। বিদ্যালয়ের সকল শিশুর মায়েদেরকে প্রতিমাসে একটি নির্দিষ্ট দিনে বিদ্যালয়ে উপস্থিত থাকতে বলা হয় এবং এদিন সকল শিশুশিক্ষার্থী তাদের মায়েদের সাথে বিদ্যালয়ে হাজির হয়। সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে শিশুশিক্ষার প্রতি বিশেষ নজর দেওয়ার জন্যই মূলত এই মা সমাবেশের আয়োজন করা হয়। তাছাড়া একজন মায়ের কাছ থেকে তার সন্তানের সার্বিক বিষয়ে অবগত হয়ে শিক্ষার্থীকে একজন শিক্ষক পাঠদান করতে পারলে অথবা বিদ্যালয়ে তার সহপাঠী ও শিক্ষকদের সাথে একজন শিশুর আচার-ব্যবহার এবং তার শেখার ধরন ও অন্যান্য আনুষঙ্গিক বিষয়ে শিক্ষক ও মায়েদের ফলপ্রসূ আলোচনার মাধ্যমে শিশুর মানসিক বিকাশ সাধনে পরিচর্যায় করণীয় নির্ধারণ খুব সহজতর হয়। এক্ষেত্রে মা সমাবেশের কোন বিকল্প নেই। মা সমাবেশের মাধ্যমে শিশুর আচার-আচরণ সম্পর্কে অবহিত করা, শিশুর মধ্যে কোন অস্বাভাবিকতা থাকলে তা জানা, শিশুর শারীরিক ও মানসিক অবস্থা সম্পর্কে শিক্ষক ও পরিবারের মধ্যে তথ্য বিনিময় করা, কোন শিক্ষার্থীর বিদ্যালয়ে আসার বিষয়ে কেমন আগ্রহ তা জানা অথবা বিদ্যালয়ে না আসার প্রবণতা থাকলে তার কারণ উদ্ঘাটন করা হয়। শিক্ষা জীবনে শিক্ষার্থী কেমন ফলাফল করছে এসকল বিষয় মাকে অবহিত করা হয়, যাতে আশানুরূপ ফলাফল অর্জনে মা তার সন্তানের প্রতি আরো যতœবান হতে পারেন। মা সমাবেশের মাধ্যমে পরিবারের সদস্যদেরকে শিশু সম্পর্কে সচেতন করে তোলা, শিশুর ঘাটতিগুলো শনাক্ত করে নিরাময়মূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা, শিশুর জন্য পরিবারে এবং বিদ্যালয়ে আস্থাশীল পরিবেশ বজায় রাখা, শিশুর পাঠের তদারকি করা এবং পাঠের ক্ষেত্রে শিশুকে আরো আগ্রহী করে তোলা হয়। চট্টগ্রাম জেলার সবগুলো উপজেলাতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রতি মাসে মা সমাবেশের আয়োজন করার উপর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।
উপজেলা পর্যায়ে আয়োজিত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অনেকগুলো মা সমাবেশে জেলা প্রশাসক হিসেবে উপস্থিত থাকার চেষ্টা করেছি। সেখানে মায়েদের সাথে, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে সরাসরি কথা বলে তাদের সমস্যা চিহ্নিত করার চেষ্টা করেছি এবং তার আশু সমাধানে জেলা প্রশাসন চট্টগ্রাম কাজ করে চলেছে। অনেক মায়েরা তাদের আর্থিক দৈন্যদশার কথা তুলে ধরেছেন, বিদ্যালয়ের পাঠদানে পদ্ধতি ও শিশুদের সাথে শিক্ষকদের সম্পর্ক কেমন হওয়া দরকার সে সম্পর্কে মতামত দিয়েছেন। মা সমাবেশের মাধ্যমে নিজের সন্তানকে ভবিষ্যতে কোথায় দেখতে চান এসব বিষয় নিয়ে মায়েদের সাথে সরাসরি কথা বলার সুযোগ তৈরি হয়। কোন পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী যেন আর্থিক অনটনের অভাবে তাদের সন্তানকে বিদ্যালয়ে পাঠাতে অনীহা প্রকাশ না করে বা শিশুরা যেন অর্থের অভাবে ঝরে না পড়ে সেজন্য চট্টগ্রামে চালু করা হয়েছে ‘জেলা প্রশাসক প্রাথমিক শিক্ষা বৃত্তি’ ও “শতভাগ মিড ডে মিল”। এছাড়া নিয়মিত মনিটরিং করাসহ শিক্ষার্থীদেরকে বিভিন্ন শিক্ষা উপকরণ যেমন খাতা-কলম, স্কুল ব্যাগ, স্কুল ড্রেস ইত্যাদি মা সমাবেশে প্রদান করা হচ্ছে। শিশুর সঠিক মানসিক বিকাশে খেলাধুলার প্রতি গুরুত্ব দিয়ে মায়েদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিদ্যালয়ে প্রদান করা হচ্ছে খেলনা সামগ্রী। মা সমাবেশের মাধ্যমে মায়েরা যেমন তাদের সন্তানকে নিয়ে তাদের চাওয়াগুলো তুলে ধরতে পারেন, তেমন শিক্ষকরা তাদেরকে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে আরো সচেতন ও যতœবান হতে মায়েদেরকে সঠিক দিকনির্দেশনা দিতে পারেন। মা সমাবেশের মাধ্যমে একজন মা আরও একাধিক মায়ের সাথে ভাবÑবিনিময়ের সুযোগ পেয়ে থাকেন, যার ফলে সন্তানের জন্য সঠিক ও উপযুক্ত শিক্ষা নির্ধারণ সহজ হয়। শিশুকে একটি সুন্দর ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য এবং উন্নত জীবনের স্বপ্ন দর্শনে উদ্বুদ্ধ করার জন্য মা অপরিহার্য।

লেখক ঁ জেলা প্রশাসক, চট্টগ্রাম

The Post Viewed By: 492 People

সম্পর্কিত পোস্ট